আমের যত উপকারিতা

প্রকাশিত: ০৫ জুন, ২০২৩ ১০:৪১:৪২

আমের যত উপকারিতা

আবু জাফর: গ্রাম বাংলার সুপরিচিত একটি গাছ আম গাছ। আর বাংলাদেশের জাতীয় গাছ কি জানেন? এই আম গাছ। আম মূলত একটি সুস্বাদু, সুমিষ্টি ও রসালো ফল। আর এই আমকে বলা হয় ফলের রাজা। আম বিভিন্ন জাতের হয়ে থাকে। একজন সুস্থ মানুষ ৩/৪ টা পাকা আম খেলে তৃপ্তি সহকারে পেট ভরে যাবে। আম কাঁচা হোক অথবা পাকা যাই হোক, পরিমিত গ্রহণ করলে শরীরে তেমন কোন নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া তৈরি করে না।

আমে থাকা পুষ্টিগুণ:

আমে প্রচুর খনিজ লবণ এবং বিভিন্ন ভিটামিন থাকে। ভিটামিন এ, ভিটামিন সি ও ভিটামিন বি৬ রয়েছে আমে। এছাড়াও আরো আছে এমাইনো এসিড, পটাশিয়াম ও কপার। আমে থাকা বিটা ক্যারোটিন, লুশিয়েন জিলাইক এসিড, আলফা ক্যারোটিন, পলি পিথানল কিউরেচিন কাম্ফারল, ক্যফিক এসিড আরো অনেক বিশেষ উপাদান রয়েছে যা স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী।

আম বিভিন্ন জাতের হয়ে থাকে:

পৃথিবীতে প্রায় ৩৫ প্রজাতির আম রয়েছে। এর ভিতরে অন্যতম হলো- গোবিন্দ ভোগ, হিমসাগর, আম রূপালী, ল্যাংড়া, মল্লিকা, গোপালভোগ ইত্যাদি। আমের জাত অনুসারে এর রং ও স্বাদের ভিন্নতা দেখা যায়।

আম খাওয়ার উপকারিতা:

১/ আম খেলে ঘুম ভালো হয়।

২/ আম খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়।

৩/ আম স্নায়ুতন্ত্রের সুস্থতায় ভূমিকা রাখে।

৪/ আমের গ্লুটামিক এসিড স্মৃতিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে।

৫/ কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।

৬/ আমে প্রচুর ভিটামিন সি থাকায় এটি স্কার্ভি সহ মুখের ঘা দূর করতে ভূমিকা রাখে এবং ত্বক, হাড় ও দাঁতের সুস্থতা নিশ্চিত করে।

৭/ শুধু তাই নয় আমের ভেষয গুণ আমাদের স্কিন ক্যান্সার সহ বিভিন্ন জটিল রোগ থেকে রক্ষা করে।

৮/ আমে ভিটামিন এ, সি, ও, ই এর অন্যতম উৎস যা ত্বক ও চুল ভালো রাখতে সাহায্য করে।

আম খাওয়ার ক্ষেত্রে কিছু সতর্কতা:

* আম খাওয়ার পূর্বে পরিষ্কার পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে নিন।

*আম খাওয়ার পর পরই পানি খাবেন না।

* আমের আঠা যদি মুখে অথবা শরীরের কোথাও লাগে তাহলে ঘা হতে পারে।

*একটি মাঝারি আমে ৩ গ্রাম ফাইবার থাকে তাই একসঙ্গে বেশি আম খেলে বদহজম অথবা ডায়রিয়া হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।


প্রজন্মনিউজ২৪/এমএ

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন





ব্রেকিং নিউজ