মন্ত্রীত্ব থেকে অপসারিত, তৃণমূলে সাসপেন্ড পার্থ

প্রকাশিত: ২৯ জুলাই, ২০২২ ০৬:৫৪:৪২ || পরিবর্তিত: ২৯ জুলাই, ২০২২ ০৬:৫৪:৪২

মন্ত্রীত্ব থেকে অপসারিত, তৃণমূলে সাসপেন্ড পার্থ

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ দুর্নীতি মামালায় গ্রেফতার হওয়ার পর মন্ত্রী পদ থেকে অপসারিত হলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। এমনকি তৃণমূল কংগ্রেস থেকেও বরখাস্ত করা হয়েছে সাবেক এই মন্ত্রীকে। বৃহস্পতিবার নবান্নের বৈঠকের পর নোটিশ জারি করে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাকে মন্ত্রীসভা ও দলীয় পদ থেকে অপসারণ করেন। আপাতত মুখ্যমন্ত্রী নিজেই করবেন পার্থের অধস্তন তিনটি দফতরের দেখভাল। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার

এসএসসি শিক্ষক নিয়োগ ‘দুর্নীতি’ মামলায় রাজ্যের অপসারিত মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের উপর ২১ জুলাই থেক তদন্ত শুরু করে ইডি। এসএসসি কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ২৭ ঘণ্টা ধরে জিজ্ঞাসাবাদে পর শনিবার তাকে গ্রেফতার করেছে ইডি। পার্থের নাকতলার বাড়িসহ ১৫টি জয়গায় তল্লাশী চালায় আর্থিক বিষয়ে তদন্তকারী সংস্থা এনফর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি) কর্মকর্তারা। তদন্ত চলাকালীন পার্থ-অর্পিতার ঘনিষ্ঠতার জের ধরে অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের টালিগঞ্জের ফ্ল্যাটে অভিযান চালালে সেখানে বিপুল পরিমাণ নগদ টাকা উদ্ধার করা হয়। এরপর থেকেই অর্পিতার নামে থাকা একাধিক সম্পত্তিতে অভিযান চালিয়েছে ইডি।

গত শুক্রবার অর্পিতার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ২১ কোটি ৯০ লক্ষ টাকা উদ্ধারসহ হুমূল্যের গয়না ও বিদেশি মুদ্রাও উদ্ধার করেন ইডি কর্মকর্তারা। গ্রেফতার করা হয় অর্পিতাকে। বুধবার বেলঘরিয়ার রথতলার একটি আবাসনে অর্পিতার নামে থাকা দু’টি ফ্ল্যাটে অভিযান চালানো হয়। প্রথমে এই আবাসনের ‘২-এ’ ফ্ল্যাটে তল্লাশি চালিয়ে বিশেষ কিছু না পাওয়ায় ফ্ল্যাটটি সিলগালা করে দেওয়া হয়। ওই আবাসনেই অর্পিতার ‘৮-এ’ ফ্ল্যাটটিতে অভিযান চালায় ইডি।

সেদিন দুপুর থেকে শুরু করে বৃহস্পতিবার ভোর পর্যন্ত টানা ১৯ ঘণ্টার অভিযান চালিয়ে অর্পিতার এই ফ্ল্যাট থেকে নগদ উদ্ধার ২৭ কোটি ৯০ লক্ষ করেন ইডি কর্মকর্তারা। পাশাপাশি উদ্ধার করা হয়, এক কেজি ওজনের তিনটি সোনার বার ও গয়না। শুধু শোবার ঘর নয়, বাথরুম থেকেও প্যাকেটকৃত টাকা উদ্ধার করা হয়।

বৃহস্পতিতে উত্তর ২৪ পরগনার চিনার পার্কেও অর্পিতার একটি ফ্ল্যাটের হদিস পাওয়া যায়। তদন্তকারী সংস্থার সূত্রের দাবি, ওই ফ্ল্যাটটির সন্ধান পাওয়া মাত্রই বিকেলে তল্লাশী চালানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ফ্ল্যাটটি তালাবন্ধ অবস্থায় ছিল। ফ্ল্যাটের চাবি না মেলায় শেষ পর্যন্ত এই ফ্ল্যাটেও তালা ভেঙ্গে ভেতরে ঢুকেন তদন্তকারীরা। পরে অবশ্য ফ্ল্যাটটি লক করে দেওয়া হয়। তল্লাশি শেষে এই ফ্ল্যাটটিও সিল করে দেন ইডি কর্মকর্তারা।

তিনটি দফতরের পরে তৃণমূলের মহাসচিব, দলীয় মুখপত্রের সম্পাদকসহ ৫টি পদ থেকে অপসারণের পরেই সাসপেন্ড করা হয়েছে পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে। অন্যায় করলে পাশে থাকবে না দল, জানিয়েছেন অভিষেক। দলের ভাবমূর্তি রক্ষা করতেই শেষ পর্যন্ত অপসারণের পথে হাঁটতে হল টিএমসি সুপ্রিমো মমতাকে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হামেশাই অভিযোগ করেন, কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা দিয়ে রাজ্যের নেতাদের হেনস্থা করা হচ্ছে। কিন্তু পার্থকে গ্রেফতার করার পর তৃণমূলের বক্তব্য, অভিযোগ প্রমাণ হলে দল ও সরকার ব্যবস্থা নেবে।

জোকা ইএসআই হাসপাতালে মেডিক্যাল পরীক্ষার জন্য নিয়ে যাওয়া হয় পাথ-অর্পিতাকে! হুইলচেয়ারে করে হাসপাতালে ঢোকানোর সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মুখের মাস্ক নামিয়ে বললেন, 'আমি ষড়যন্ত্রের শিকার'! মন্ত্রিত্ব থেকে সাসপেন্ড ও দলীয় সমস্ত পদ হারানোর পর এটাই তাঁর প্রথম প্রতিক্রিয়া।
 


প্রজন্মনিউজ২৪/এসএমএ

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন





ব্রেকিং নিউজ