এসডিজি-৪ বাস্তবায়নে  কাজ করে যাচ্ছে রায়পুর টিউশন সেবা

প্রকাশিত: ২৯ জুন, ২০২২ ১০:৩৬:১৩ || পরিবর্তিত: ২৯ জুন, ২০২২ ১০:৩৬:১৩

এসডিজি-৪ বাস্তবায়নে  কাজ করে যাচ্ছে রায়পুর টিউশন সেবা

রায়পুর প্রতিনিধিঃ এসডিজি ৪ হলো " সকলের জন্য অন্তর্ভূক্তিমূলক ও সমতাভিত্তিক গুনগত শিক্ষা নিশ্চিতকরণ এবং জীবনব্যাপী শিক্ষা লাভের সুযোগ সৃষ্টি "।

এসডিজি ৪ এর দশটি লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে যা ১১ টি সূচক দ্বারা পরিমাপ করা হয়।  সাতটি "ফলাফল-ভিত্তিক লক্ষ্য" হল: বিনামূল্যে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা;  মানসম্পন্ন প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষায় সমান প্রবেশাধিকার;  সাশ্রয়ী মূল্যের কারিগরি, বৃত্তিমূলক এবং উচ্চ শিক্ষা;  আর্থিক সাফল্যের জন্য প্রাসঙ্গিক দক্ষতা সহ মানুষের সংখ্যা বৃদ্ধি;  শিক্ষায় সকল বৈষম্য দূর করা;  সর্বজনীন সাক্ষরতা এবং সংখ্যাতা;  এবং টেকসই উন্নয়ন এবং বিশ্ব নাগরিকত্বের জন্য শিক্ষা। 

তিনটি "লক্ষ্য অর্জনের উপায়" হল: অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং নিরাপদ বিদ্যালয় নির্মাণ ও আপগ্রেড করা;  উন্নয়নশীল দেশগুলির জন্য উচ্চ শিক্ষা বৃত্তি প্রসারিত করা;  এবং উন্নয়নশীল দেশে যোগ্য শিক্ষকের সরবরাহ বাড়াতে হবে।

বিশেষ করে প্রাথমিক বিদ্যালয় স্তরে ছেলে ও মেয়ে উভয়ের জন্য শিক্ষার প্রবেশাধিকারের ক্ষেত্রে বড় অগ্রগতি সাধিত হয়েছে।  স্কুল বহির্ভূত শিশুদের সংখ্যা ১৯৯৭ সালে ১১২ মিলিয়ন থেকে ২০১৪ সালে ৬০ মিলিয়নে প্রায় অর্ধেক হয়েছে।  অগ্রগতির পরিপ্রেক্ষিতে, ২০১৮ সালে তৃতীয় শিক্ষায় বিশ্বব্যাপী অংশগ্রহণ ২২৪ মিলিয়নে পৌঁছেছে, যা ৩৮% এর গ্রস নথিভুক্তি অনুপাতের সমতুল্য। তারই ধারাবাহিকতায় রায়পুর টিউশন সেবার সদস্যবৃন্দ এই লক্ষ বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছে।

গত ২৪ জুন ২০২২ ইং রোজ শুক্রবার রায়পুর টিউশন সেবার পরিচালক নুরুদ্দিন জাবেদ ও সহকারী পরিচালক মোঃ জিহাদুল ইসলাম ভুঁইয়া ও অন্যতম সদস্য মেহেদি হাসান চৌধুরী রায়পুরের মধুপুর অঞ্চলের কয়েকটি শিক্ষা সহায়তা বঞ্চিত পরিবারের খোঁজখবর নেন এবং পরবর্তিতে তাদের পড়ালেখা বাস্তবায়ণের আশ্বাস প্রদান করেন।

রায়পুর টিউশন সেবার সভাপতি রিয়াজ আখন বলেন, রায়পুরে শিক্ষা বিষয়ক যেকোন সমস্যা নিয়ে কাজ করবে এই সংগঠনটি।

সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক রাছেল আল-ইমরান বলেন, আমরা শিক্ষা সহায়তার পাশাপাশি শিক্ষামূলক কাজের প্রসারের জন্য কুইজ সহ বিভিন্ন প্রোগ্রামের আয়োজন করবো।

রায়পুর টিউশন সেবার সম্মানিত সহ-সভাপতি মোঃতারেক হোসেন বলেন, বাংলাদেশ  সরকার  শিক্ষার উন্নয়নে আন্তরিক ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। অন্যদিকে কোভিড ১৯  এর কারনে গত ২  বছর ধরে শিক্ষা ব্যবস্থা অনেকটা ধুমড়ে মুচড়ে গেছে। তাই এই অবস্থা থেকে উত্তরনের জন্য  এসডিজি-৪ বর্তমান  সরকারের বাস্তবসম্মত একটি পদক্ষেপ। যেখানে শিক্ষার্থী, শিক্ষক এবং পড়াশোনার মান উন্নয়ন  সব দিকে নজর দেওয়ার অভিপ্রায় ব্যক্ত হয়েছে। 

তাই রায়পুর অঞ্চলে সুবিধাবঞ্চিত শিক্ষার্থী এর পাশাপাশি মান সম্মত শিক্ষক  তৈরিতে রায়পুর টিউশন সেবার কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। যা রায়পুরে সরকারের এসডিজি-৪ লক্ষ্যমাত্রা পূরনে উল্লেখযোগ্য  অবদান রাখতে পারবে বলে আমি মনে করি।


প্রজন্মনিউজ২৪/ফিরোজ

 

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন





ব্রেকিং নিউজ