২০১৮ সালের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর থেকে ভালো করছি: পাপন

প্রকাশিত: ২৭ জুন, ২০২২ ০৭:১৬:১১ || পরিবর্তিত: ২৭ জুন, ২০২২ ০৭:১৬:১১

২০১৮ সালের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর থেকে ভালো করছি: পাপন

নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশ সর্বশেষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর করেছিল ২০১৮ সালে। ওই সফরে অ্যান্টিগা টেস্টে ৪৩ রানে অলআউট হওয়ার লজ্জায় ডুবতে হয়েছিল। দ্বিতীয় ইনিংসেও করে ১৪৪ রান। ফলে তিন দিনেই শেষ হয়ে যায় এই টেস্ট। এর আগে প্রথম টেস্টের দুই ইনিংসে মিলিয়ে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল ১৪৯ ও ১৬৮। দুই টেস্টেই হারের কারণ ছিলেন ব্যাটাররা। চার বছর পর ফের ক্যারিবিয়ান সফরে গিয়েও একই পরিণতি সফরকারীদের। কিন্তু বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন মনে করছেন, ২০১৮ সালের সফর থেকে এবার ভালো করছে বাংলাদেশ!

অ্যান্টিগাতে প্রথম টেস্টে ১০৩ রানে অলআউট হওয়ার পর বোলারদের দাপটে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছিল সাকিবরা। দ্বিতীয় ইনিংসে ২৪৫ রান করলেও ম্যাচ জয়ের জন্য তা যথেষ্ট ছিল না। দ্বিতীয় টেস্টেও একই পরিণতি। সেন্ট লুসিয়াতে প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ ২৩৪ রান সংগ্রহ করতে পেরেছে। ক্যারিবীয়দের ৪০৮ রানের জবাবে দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশ ১৩২ রান তুলতেই হারিয়ে বসেছে ৬ উইকেট।

বৃষ্টির কারণে আগে ভাগেই তৃতীয় দিনের খেলা শেষ হয়েছে, ততক্ষণে বাংলাদেশ ৪২ রান পিছিয়ে। তবু রবিবার রাতে এক অনুষ্ঠানে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান দাবি করলেন, ‘চাইবো আমাদের দল জিতুক। যদি মনে করি হেরে গেলে খুব খারাপ অবস্থা, এটাতে আমি একমত না। সারা জীবন তো হেরেই আসছি। বরং আমি বলবো, গতবার যখন গিয়েছি ২০১৮ সালে তার চেয়ে এবারের পারফরম্যান্স ভালো। নিশ্চিতভাবে এটা আমার কাছে উন্নতি। তবে এখনও অনেক পথ বাকি, সেটা নিয়ে আমরা কাজ করছি।’

এসময় নাজমুল হাসান ভুল-ভাল পরিসংখ্যানেরও আশ্রয় নেন, ‘আমার কাছে মনে হয় আমাদের সবচেয়ে দুর্বল দিক হচ্ছে এখনো টেস্ট। এছাড়াও টি-টোয়েন্টিতেও এখনো ভালো করতে পারিনি। তবে একটা জিনিস ঠিক, অনেক দেশ যারা নাকি এখন অনেক অনেক ভালো করছে টেস্টে, তাদের ইতিহাস যদি দেখেন ২০-২২ বছরে তাদের পারফরম্যান্সও ভালো ছিল না। সংস্কৃতি গড়ে উঠতে সময় লাগবে। প্রায় ২৬ বছর লেগে গেছে ভারতের প্রথম ম্যাচ জিততে। (আসলে ভারতের প্রথম টেস্ট জিততে সময় লাগে ২০ বছর। ১৯৩২ সালে তাদের টেস্ট অভিষেক। ১৯৩৬ থেকে ১৯৪৬ পর্যন্ত যুদ্ধের কারণে কোনও ম্যাচ তারা খেলতে পারেনি। ১৯৫২ সালে ২১তম টেস্টে প্রথম জয়।)। এতো অস্থির হলে হবে না। ধৈর্য ধরতে হবে।’

বর্তমান টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের চ্যাম্পিয়ন নিউজিল্যান্ডের কথাও তুলে ধরেন বোর্ড সভাপতি,‘বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন নিউজিল্যান্ড, তারা চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর ৮ সিরিজে ২টা জিতেছে, দুটা জিতে ড্র করেছে। ওরা বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েও তো পারছে না। তাই বলে কি খারাপ হয়ে গেছে। এতো হতাশ হওয়ার কিছু নেই।’

সবাইকে ধৈর্য ধরার আহ্বান জানিয়ে পাপন বলেছেন, ‘আমাকে যদি ২২ বছরের কথা বলেন… দেশের মাটিতে জেতা শুরু করেছি। তাই বলে সবগুলো যে জিতে যাবো তা না। আমরা কয়েকটা টেস্ট ম্যাচ জিতেছি বড় দলের সঙ্গে, এটা আমাদের উন্নতি। বিদেশে যেয়ে যে জিততে পারি, সেটার একটা আভাস পেয়েছি। তাই বলে টেস্টে যে আমরা একটা ভালো দল হয়ে গেছি সেটা প্রশ্নই উঠে না। আমাদের বিশ্বাস রাখতে হবে।’

টেস্ট ক্রিকেটে উন্নতির জন্য আলাদা সেটআপ করার ঘোষণাও দিয়েছেন তিনি, ‘টানা খেলার মধ্যে আপনি টেস্ট সংস্কৃতি কীভাবে তৈরি করবেন। আপনি বলবেন ঘরোয়া ক্রিকেট। কিন্তু টানা ট্যুর করে কোন ছেলেটা ঘরোয়া ক্রিকেট খেলতে পারবে? আমাদের ঘরোয়া ক্রিকেট খেলার সুযোগই তো নেই। তাহলে আপনি উন্নতিটা করবেন কীভাবে? একমাত্র অপশন হচ্ছে, নতুন একটা সেটআপ তৈরি করা। যেটা আসলে এর আগে আমরা চিন্তা করিনি, এখন চিন্তা করছি। আলাদা একটা সেটআপ থাকবে, যারা এই জাতীয় দলের কোনও খেলা খেলবেন না। তারা ঘরোয়া ক্রিকেট খেলবে দেশে এবং দেশের বাইরে।’


প্রজন্মনিউজ২৪/এমআরএ

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন