যুক্তরাষ্ট্রে জ্বালানির দাম বেড়ে পাঁচ ডলার ছড়ালো

প্রকাশিত: ১৩ জুন, ২০২২ ০১:০০:২১

যুক্তরাষ্ট্রে জ্বালানির দাম বেড়ে পাঁচ ডলার ছড়ালো

যুক্তরাষ্ট্রে প্রতি গ্যালন গ্যাসোলিনের দাম পাঁচ ডলার ছাড়িয়েছে গত শনিবার। ইউক্রেন যুদ্ধের জেরে দেশটিতে জ্বালানির দাম বেড়েছে। এতে মূল্যস্ফীতির হারও বেড়ে চার দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ পর্যায়ে গিয়ে ঠেকেছে। এর মধ্যে গ্যাসোলিনের দাম বাড়ায় মূল্যস্ফীতি আরও বাড়বে বলেই আশঙ্কা করা হচ্ছে। 

১১ জুন যুক্তরাষ্ট্রে প্রতি গ্যালন গ্যাসোলিন গড়ে ৫ দশমিক ০০০৪ ডলারে বিক্রি হয়েছে। অথচ এক দিন আগে এই দাম ছিল ৪ দশমিক ৯৮৬ ডলার।

গ্যাসোলিনের উচ্চমূল্য প্রেসিডেন্ট বাইডেন ও ডেমোক্র্যাট আইনপ্রণেতাদের মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারণ, কংগ্রেসে সংখ্যাগরিষ্ঠ হলেও বিরোধী দল রিপাবলিকদের চেয়ে ডেমোক্র্যাটের আসন সামান্য বেশি। তাই কংগ্রেসের নিয়ন্ত্রণ নিতে হিমশিম খাচ্ছে ডেমোক্র্যাটরা। এর মধ্যে নভেম্বরে হবে মধ্যবর্তী নির্বাচন।

জ্বালানির দাম কমাতে কম চেষ্টা করেননি বাইডেন। যুক্তরাষ্ট্রের ‘কৌশলগত মজুত’ থেকে রেকর্ড পরিমাণ জ্বালানি বাজারে ছেড়েছেন। গ্রীষ্মকালীন গ্যাসোলিন উৎপাদনের ক্ষেত্রে যেসব নিয়ম আছে, তাতে ছাড় দিয়েছেন। প্রধান তেল রপ্তানিকারক দেশগুলোর সংগঠন ওপেককে উৎপাদন বাড়ানোর অনুরোধ করেছেন।

মহামারি পরবর্তী সময়ে বিশ্বজুড়ে অর্থনৈতিক কার্যক্রম স্বাভাবিক হলে জ্বালানির চাহিদা বাড়তে শুরু করে। এদিকে ইউক্রেনে যুদ্ধের জেরে বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ তেল রপ্তানিকারক রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। তেল পরিশোধন সক্ষমতাও হ্রাস পেয়েছে। এতে শুধু যুক্তরাষ্ট্র নয়, বিশ্বজুড়ে জ্বালানির দাম বাড়ছে।


এরপরও অর্থনীতিবিদেরা বলছেন, দীর্ঘ সময় ধরে যদি তেলের দাম ব্যারেল প্রতি পাঁচ ডলারের বেশি থাকে, তাহলে চাহিদা হ্রাস পেতে শুরু করবে। যুক্তরাষ্ট্রের জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ রিড লানসন বলেন, ‘যখন গ্যাসোলিনের দাম গ্যালনপ্রতি পাঁচ ডলার বা বেশি থাকে, তখন আমরা খুব বেশি মাত্রায় চাহিদা হ্রাস পেতে দেখি।’

যুক্তরাষ্ট্রের জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের হিসাবে, মূল্যস্ফীতির সঙ্গে সমন্বয়ের কারণে ২০০৮ সালের জুনের ৫ দশমিক ৪১ ডলারের চেয়ে গ্যাসোলিনের দাম এখনো কম


প্রজন্মনিঊজ২৪/খতিব

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ