টেবিল ঘড়ি প্রতীক নিয়ে লড়বেন সাক্কু

প্রকাশিত: ২৭ মে, ২০২২ ০২:১৯:৩৬

টেবিল ঘড়ি প্রতীক নিয়ে লড়বেন সাক্কু

টানা দুই মেয়াদে কুমিল্লার নগরপিতার দায়িত্ব পালন করে আসছেন মনিরুল হক সাক্কু। তৃতীয়বারের মতো কুমিল্লার মেয়র পদে দাঁড়ানো মনিরুল হক সাক্কু জানিয়েছেন এবারের পর আর ভোটে দাঁড়াবেন না। দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে দাঁড়ানোয় বিএনপি থেকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার হলেও ভোট করতে অনড় সাক্কু।

তাই ধানের শীষের প্রতীক না পেয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য প্রতীক পেয়েছেন টেবিল ঘড়ি। এই প্রতীক নিয়েই ‘শেষবারের’ মতো ভোটে লড়বেন কুমিল্লা সিটির সাবেক এই মেয়র।

শুক্রবার সাক্কুসহ মেয়র পদে পাঁচজনের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়।

গত ১৬ মে শেষ কর্মদিবসে মেয়র কার্যালয়ে সাক্কু সাংবাদিকদের বলেছিলেন, এটাই তার ‘শেষ নির্বাচন’ এবং তিনি দলীয় পদ থেকে পদত্যাগ করে স্বতন্ত্রভাবে লড়বেন।

১৯ মে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ে প্রার্থিতা বৈধ হওয়ার পর সাক্কু এবং নিজাম দলীয় পদ থেকে পদত্যাগের কথা ঘোষণা দিলেও রাতে তাদেরকেই দল থেকে আজীবনের জন্য বহিষ্কারের কথা জানায় কেন্দ্রীয় কমিটি। ২১ মে সাক্কু-নিজামের ভোটের প্রচারে অংশ না নিতে দলের নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দেওয়া হয়।

আওয়ামী লীগের শাসনামলে ২০১১ সালে কুমিল্লা পৌরসভাকে সিটি করপোরেশনে উন্নীত করা হয়। ২০১২ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত প্রথম নির্বাচনে বিএনপি থেকে পদত্যাগ করে নাগরিক সমাজের ব্যানারে প্রার্থী হন সাক্কু। নির্বাচনে তিনি ৬৫ হাজার ৫৭৭ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী প্রবীণ নেতা আফজল খান পান মাত্র ৩৬ হাজার ৪৭১ ভোট।

২০১৭ সালের ৩০ মার্চ বিএনপির মনোনয়নে ধানের শীষ প্রতীকে দ্বিতীয়বার মেয়র নির্বাচিত হন সাক্কু। সেবার তিনি আফজল খানের মেয়ে আঞ্জুম সুলতানা সীমাকে ১১ হাজারের বেশি ভোটে পরাজিত করেন।

এবারের নির্বাচনে সাক্কু ছাড়াও আরও চারজন নির্বাচনে অংশ নেবেন। তাদের সবার মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।


প্রজন্মনিউজ২৪/জাহিদ

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ