ক্ষুদে বিজ্ঞানী সবুজের ড্রোন আবিষ্কার

প্রকাশিত: ০৮ এপ্রিল, ২০২২ ১০:৪৮:১০

ক্ষুদে বিজ্ঞানী সবুজের ড্রোন আবিষ্কার

স্বপ্নগুলোকে মুক্ত আকাশে পাখিদের মতো স্বাধীনভাবে ওড়ানোর তীব্র বাসনা ছিল অনেক দিনের। কিন্তু দারিদ্র্যতার সীমারেখায় বন্দি থেকে চাইলেই কি আর সব স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দেওয়া সম্ভব! তবে হাল ছাড়লে তো চলবে না। দারিদ্র্যতার নির্মম বাস্তবতাকে পাশ কাটিয়ে নিজের স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিয়ে খোলা আকাশে উড়িয়ে সবুজ সর্দার নামক এক কিশোর।

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে গ‌রিব রিকশা চালকের ছেলে সবুজ সর্দার চালকবি‌হীন বিমান (‌ড্রোন) উদ্ভাবন করে‌ সবার নজর কেড়েছেন। সদ্য মাধ্যমিক পাশ করা সবুজের নিজের তৈ‌রি চালক বিহীন বিমান দা‌ঁপিয়ে ‌বেড়াচ্ছে গ্রামের মুক্ত আকাশে। তার উদ্ভা‌বিত বিমান দেখতে রী‌তিমত ভীড় জমিয়েছেন এলকাবাসী।

জানা যায়, উপজেলার শিবনগর ইউ‌নিয়নের প‌লি‌ শিবনগর (ম‌হেশপুর) গ্রামের রিকশা চালক একরামুল সর্দারের ছেলে সবুজ সর্দার (১৭) মাত্র ৪৫‌ দিনে তৈরি করেছেন এক‌টি চালক বিহীন বিমান। তার উদ্ভা‌বিত বিমান‌টির অবকাঠামো কর্ক‌শিটের তৈ‌রি হলেও রিমো‌ট কন্ট্রোল সিস্টেমের মাধ্যমে অনায়াসে নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

সরেজ‌মিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার প‌লি শিবনগর জামে মস‌জিদের পাশে মাঠে চালক বিহীন বিমান উড়াচ্ছেন সবুজ। আর তা উপভোগ করছেন শিশু, কিশোর, বৃদ্ধসহ নানা বয়সী লোকজন।

মহেশপুর গ্রামের জিয়ারুল হক সর্দার বলেন, 'সবুজ ‌লেখাপড়ার পাশাপা‌শি পাঠকপাড়া বাজারে মোবাই‌ল মেকা‌নিকের কাজও করে। এ থেকেই চালক বিহীন ‌বিমান তৈ‌রির চিন্তা মাথায় আসে। স‌ঠিক পৃষ্ঠপোষকতা পেলে অবশ্যই ভালো কিছু করবে সে।'

একই গ্রামের বা‌সিন্দা মহ‌সিন আলী বলেন, ছেলে‌টি মেধা‌বী। তাকে উৎসাহ ও অনুপ্রা‌ণিত করা উ‌চিৎ। সরকারী সহায়তা পেলে হয়ত আরও ভালো কিছু করবে।

সবুজের মা শেফালী বেগম বলেন, 'অভাবের সংসারে সবসময় এটা সেটা কিনে খুটখাট কাজ করে সবুজ। ভ্যান চালক বাবার বকু‌নির ভয়ে যন্ত্রপা‌তির দাম অনেক কম বলে প্রচার করে থাকে। ছেলের অনেক সাধ থাকলেও সাধ্য নেই।'

উদ্ভাবন প্রসঙ্গে ক্ষুদে বিজ্ঞানী সবুজ সর্দার বলেন, 'সবসময় ব্য‌তিক্রম কিছু করার ভাবনা মাথায় আসে। অর্থের অভাবে বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়না। এই চালক বিহীন বিমান‌টি তৈ‌রিতে দেড়মাস সময় লেগেছে। খরচ হয়েছে প্রায় ১২ হাজার টাকা। একবার চার্জ করলে দীর্ঘক্ষণ উড়তে পা‌রে। অনায়াসে ভূ‌মি থেকে কিংবা হাতে নিয়েও উড়ানো যায়। রিমোটের সাহায্যে প্রায় দেড় কিলো‌মিটার দূর থেকেও নিয়ন্ত্রণ করা যায় এ‌টি। যথাযথ ভাবে উন্নয়ন করা গেলে এর সাহায্যে সাম‌রিক নজরদারী, কৃ‌ষি ক্ষেত্রে পর্যবেক্ষণসহ বি‌ভিন্ন কাজ করা সম্ভব হবে।'

উল্লেখ্য, ফুলবাড়ী কলেজিয়েট উচ্চ বিদ্যালয় হতে সদ্য (২০২১ সালে) মাধ্যমিক পাস করা সবুজ সর্দার বর্তমানে দিনাজপুর উত্তরণ প‌লিটেক‌নিক্যাল ইন‌স্টি‌টিউটে ত‌ড়িৎ প্র‌কৌশল বিভাগে প্রথম বর্ষে ভ‌র্তি হয়েছেন। স‌ঠিক পৃষ্ঠপোষকতা পেলে এদেশেও উৎপাদন হতে পারে বিশ্বমানের চালক বিহীন বিমান (ড্রোন)। সবুজের মত প্রত্যন্ত অঞ্চলের ক্ষুদে বিজ্ঞানীদের কাজে লা‌গিয়ে ড্রোন প্রযু‌ক্তির উন্নয়ন করলে সামরিক ও কৃ‌ষি খাতে এ‌গিয়ে যাবে দেশ। তাই সং‌শ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে বিষয়‌টি আমলে নিতে আহ্বান জানিয়েছেন এলাকাবা‌সী।


প্রজন্মনিউজ২৪/মনিরুল

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ