ভোলায় যুবলীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা

প্রকাশিত: ২৬ নভেম্বর, ২০২১ ১০:১০:৩০

ভোলায় যুবলীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা

ভোলা সদর উপজেলায় নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে মো. খোরশেদ আলম টিটু (৩২) নামের এক যুবলীগ নেতার মৃত্যু হয়েছে। নিহত খোরশেদ আলম উপজেলার ধনিয়া ইউনিয়নের ৪নম্বর ওয়ার্ডের কানাই নগর গ্রামের তছির আহম্মেদের ছেলে এবং ওই ইউনিয়নের যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক।
 
শুক্রবার সন্ধ্যায় মেঘনা নদীর চেয়ারম্যানবাজার-নাছিরমাঝি নৌপথের হেতনার হাট এলাকায় দৌলতখান উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী জামাল উদ্দিন সকেট এবং নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন নান্নু গ্রুপের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়।
 
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ভোলা সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনায়েত হোসেন জানান, মাঝ নদীতে গুলিবিদ্ধ টিটুকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।
 
স্থানীয়রা জানান, ভোলার দৌলতখান উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের নব নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যরা নির্বাচন পরবর্তীতে এই প্রথম তাদের কর্মীদের সাথে সৌজন্যে সাক্ষাতে যান। কার্যক্রম সম্পন্ন করে সন্ধ্যায় ফেরার পথে মদনপুর থেকে ভোলা সদরের দিকে ট্রলারে করে যাওয়ার সময় মাঝ নদীতে তাদের ওপর এলোপাথাড়ি গুলি চালায় দুর্বৃত্তরা।
 
এ সময় ট্রলারের থাকা মো. টিটু (৩২) নামের একজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তাকে উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ওই ট্রলারে নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান এ কে এম নাছির উদ্দিন নান্নু এবং মো. হেলাল, আবদুল খালেক, মো. ইউসুফসহ ওই ইউপির আট সদস্য নেতাকর্মীরা ছিলেন।
 
ওই ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান এ কে এম নাছির উদ্দিন নান্নু জানান, আজ দুপুরে তিনি ভোটার ও কর্মীদের সথে দেখা করতে ইউপি সদস্যদের নিয়ে মদনপুরে যান। সেখানে আসরের নামাজ পড়ে একটি যাত্রীবাহী ট্রলারে চড়ে ভোলা সদরের দিকে যাচ্ছিলেন। এ সময় মাঝ নদীতে দুর্বৃত্তদের একটি দল স্পিডবোট নিয়ে এসে ট্রলারের দিকে এলোপাথাড়ি গুলি চালায়। এ সময় আমাদের এক কর্মী গুলিবিদ্ধ হন। তাকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

প্রজন্ম/এসকে

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ