বসতভিটার জমি অন্যদের লিখে দেওয়াই বাবা-মা ও ভাইকে খুন

প্রকাশিত: ১৬ অক্টোবর, ২০২১ ০৫:৩০:৩৭

বসতভিটার জমি অন্যদের লিখে দেওয়াই বাবা-মা ও ভাইকে খুন

বসতবাড়ির ১২ শতক জমি মা জোস্নে আরা, বোন জুলেখা ও মেজো ভাই আহমদ হোসেনের নামে রেজিস্ট্রি করে দেওয়ার পর থেকে বাবা মো. মোস্তফার সঙ্গে মতবিরোধ শুরু হয় পরিবারের বড় ছেলে সাদেক হোসেন সাদ্দামের। এছাড়া তার স্ত্রী আইনুর নাহারের সঙ্গেও বাবা-মায়ের প্রায়ই ঝগড়া হতো। এক পর্যায়ে দিন পনেরো আগে বাবা, মা ও মেজো ভাইকে হত্যার পরিকল্পনা করে সাদ্দাম।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে সাদেক হোসেন সাদ্দাম এসব কথা জানিয়েছে। দিয়েছে হত্যাকাণ্ডের লোমহর্ষক বর্ণনা। সে বলেছে, বাবা, মা ও ভাইকে খুনের পরিকল্পনা সে ১৫ দিন আগেই নিয়েছিল। পরিকল্পনা অনুযায়ী চট্টগ্রাম শহর থেকে একটি ছুরি কিনে বাড়িতে আসে সে। বুধবার রাত ৪টার দিকে সবাই যখন গভীর ঘুমে, তখনই মা-বাবার কক্ষে ঢোকে সাদেক হোসেন। ঘুমন্ত অবস্থায় বাবাকে ধারালো ছুরি দিয়ে কোপাতে থাকে সে। এরপর মাকে। এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মা-বাবাকে ক্ষতবিক্ষত করে ফেলে। মা-বাবা বাঁচার জন্য ঘরের করিডোরে চলে আসেন। মা-বাবার চিৎকার শুনে পাশের ঘরে থাকা মেজো ভাই আহমদ হোসেন ছুটে আসে। তখন আহমদকে জাপটে ধরে তার গলায় ছুরি চালিয়ে দেয় সাদ্দাম। তিন জন সেখানেই প্রাণ হারান। এরপর খুনের ঘটনা আড়াল করার জন্য সে ঘরের ছাদে উঠে ডাকাত ডাকাত বলে চিৎকার শুরু করে। বসতভিটার জমি অন্যদের লিখে দেওয়াটাই হত্যার প্রধান কারণ বলে জানায় সে।

জোরারগঞ্জ থানার ওসি মো. নুর হোসেন মামুন বলেন, সাদ্দাম তার বাবা, মা ও ভাইকে নৃশংসভাবে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরিটি উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় তার বোন জুলেখা বাদী হয়ে সাদ্দামকে ১ নম্বর আসামি করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। আসামিকে শুক্রবার চট্টগ্রাম আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। সে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেবে। না হলে রিমান্ড আবেদন করা হবে। প্রাথমিক তদন্তে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সাদেক হোসেনের স্ত্রী আইনুর নাহারের সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় তাকে তার বাবার জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। পরে তদন্তে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে যদি তার সম্পৃক্ততা পাওয়া যায় তাহলে তাকেও আসামি করা হবে। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে লাশের ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারকে বুঝিয়ে দেওয়া হবে।

এদিকে গতকাল শুক্রবার জুমার নামাজের পর উপজেলার জোরারগঞ্জ ইউনিয়নের ছুটি খাঁ জামে মসজিদের সামনে মো. মোস্তফা তার স্ত্রী জোস্নে আরা এবং মেজো ছেলে আহমদ হোসেনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার সঙ্গে জড়িত বড় ছেলে সাদেক হোসেন সাদ্দামের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন করেছেন তার আত্মীয়স্বজন, বাজারের ব্যবসায়ীগণ ও এলাকাবাসী।

প্রজন্মনিউজ২৪/আল-নোমান
 

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন





ব্রেকিং নিউজ