যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রকে প্রমাণ দিয়েছে তেলআবিব

‘ইসরাইলের তেলবাহী জাহাজে হামলা করেছে ইরান’ 

প্রকাশিত: ০৫ অগাস্ট, ২০২১ ০২:০৬:৪৯ || পরিবর্তিত: ০৫ অগাস্ট, ২০২১ ০২:০৬:৪৯

‘ইসরাইলের তেলবাহী জাহাজে হামলা করেছে ইরান’ 

আরব সাগরে  ইসরাইলি তেলবাহী জাহাজে ভয়াবহ হামলায় ইরান জড়িত বলে যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রকে গোয়েন্দা তথ্য ও প্রমাণ দিয়েছে তেলআবিব। এমভি মেরসেল স্ট্রিট নামের ওই ইসরাইলি জাহাজটি জাপানি তেল কোম্পানি লন্ডনভিত্তিক প্রতিষ্ঠান জোডিয়াক মেরিটাইমের মাধ্যমে পরিচালনা করছে। গতকাল শনিবার ইসরাইল যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রকে এসব গোয়েন্দা প্রতিবাদ জমা দিয়েছে বলে দেশটির গণমাধ্যমে খবরে জানানো হয়েছে।

জাহাজটির মালিক ইসরাইলি প্রতিষ্ঠান ইয়াল অফের। হামলায় জাহাজের দুই নাবিক নিহত হন। নিহত দুই নাবিকের একজন ব্রিটিশ এবং আরেকজন রোমানিয়ার নাগরিক। ভয়াবহ এ হামলার জন্য প্রথম থেকেই ইসরাইল সরাসরি ইরানকে দায়ি করেছে। গেলো শুক্রবার ইসরাইলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইয়াইর ল্যাপিড এক বিবৃতিতে বলেছেন, এটি ইরানের 'সন্ত্রাসী হামলা'।  এ ব্যাপারে বিশ্ববাসীকে চুপ থাকলে চলবে না।তবে এ নিয়ে এখন পর্যন্ত ইরান কোনো মন্তব্য করেনি।

ইসরাইলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শনিবার যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেনকেও হামলায় ইরান জড়িত বলে অভিযোগ করেন। দেশটির রাষ্ট্রনিয়ন্ত্রিত আরবি টিভি চ্যানেল ‘আল-আলম টিভি’র এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, সম্প্রতি সিরিয়ার বিমানবন্দরে ইসরাইলের ক্ষেপণাস্ত্র হামলার জবাব দিতেই ইহুদিবাদী দেশটির মালিকানাধীন তেলবাহী জাহাজে ওই হামলার ঘটনা ঘটেছে।

অন্যদিকে ইসরাইলের চ্যানেল-১৩ এক প্রতিবেদনে জানায়, গত মাসে ইরানের রেলওয়ের সিস্টেমে যে সাইবার হামলা চাণানো হয়েছে, এ জন্য তেহরান তেলআবিবের ওপর প্রতিশোধ নিতে এ হামলা চালিয়ে থাকতে পারে। ইসরাইলি জাহাজটি পরিচালনাকারী ব্রিটিশ প্রতিষ্ঠান জোডিয়াক মেরিটাইম জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার রাতে ওমানের উত্তর-পূর্ব দ্বীপ মাসিরাহতে এ হামলায় দুই নাবিক নিহত হয়েছেন। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে। পরে বিস্তারিত জানানো হবে। হামলার ঘটনাস্থল ওমানের রাজধানী মাসকাট থেকে ৩০০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে।  

ওমান উপকূলে এমন একসময় ইসরাইলের জাহাজে হামলা হলো যখন-ইরানের সঙ্গে পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে দেশটির চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। ৫ আগস্ট ইরানের নতুন প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন। ইরানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বশক্তির পরমাণু চুক্তি আলোচনা স্থগিত আছে। এর আগে চলতি মাসের শুরুতে উত্তর ভারত মহাসাগরে ইসরাইলি মালিকানাধীন একটি কার্গো জাহাজে হামলা হয়। ওই হামলায় জাহাজটিতে আগুন ধরে যায়। এসব হামলার জন্য ইসরাইল ইরানকে দায়ী করে থাকে। মধ্যপ্রাচ্যের কর্তৃত্ব নিয়ে দেশ দুটির মধ্যে ছায়াযুদ্ধ লেগেই থাকে।

উল্লেখ্য, গত এপ্রিলে ইরানের নাতাঞ্জ পারমাণবিক কেন্দ্রে একটি রহস্যজনক বিস্ফোরণ ঘটে। একে নাশকতা বলে অভিহিত করে ইরান। এ হামলার জন্য তারা ইসরাইলকে দায়ী করে। ইরান ও ইসরাইলের মধ্যকার দীর্ঘদিনের অঘোষিত ছায়াযুদ্ধ এখন একটি বিপজ্জনক মোড় নিয়েছে। মার্কিন কেন্দ্রীয় কমান্ড শনিবার জানিয়েছে, ইসরাইলি জাহাজে হামলা হয়েছে চালকবিহীন বিমান বা ড্রোনের সাহায্যে।

প্রজন্মনিউজ২৪/সি এইচ খালেকুজ্জামান

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ