এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয়

গণিত অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশের প্রথম স্বর্ণপদক মারুফ হাসান

প্রকাশিত: ০৪ জুলাই, ২০২১ ১২:৫০:১৮

গণিত অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশের প্রথম স্বর্ণপদক মারুফ হাসান


ফাহাদ মাহমুদ, ডেস্ক রিপোর্টারঃ বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলির গণিত অলিম্পিয়াডে (এপিএমও) স্বর্ণপদক অর্জন করেছে। এপিএমও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলির স্কুল ও কলেজের শিক্ষার্থীদের জন্য একটি বার্ষিক গাণিতিক প্রতিযোগিতা করেন। বাংলাদেশ থেকে ময়মনসিংহ সরকারী আনন্দমোহন কলেজের শিক্ষার্থী মোঃ মারুফ হাসান তার কঠোর পরিশ্রম ও অভিজ্ঞতায় এই বছরের এপিএমও প্রতিযোগিতায় স্বর্ণপদক জিতেছেন। এই প্রতিযোগিতায় ৩৭ টি দেশের মোট ৩৪৪ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছিল। মোট দলীয় স্কোর ৯৯ নিয়ে বাংলাদেশ ২১তম স্থানে রয়েছে। আয়োজকরা ২৯শে জুন আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল ঘোষণা করেছিলেন।

বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড (বিডিএমও) কমিটির সমন্বয়ক বায়জিদ ভূঁইয়া জুয়েল বলেছেন, এপিএমওতে বাংলাদেশ সর্বপ্রথম ২০১০ সালে অংশ নিয়েছিল। বাংলাদেশ এই প্রতিযোগিতায় একাধিকবার শীর্ষ ২০ টি দলের মধ্যে ছিলো। গত দশ বছরের ফলাফল অনুসারে, বাংলাদেশ ১১ টি রৌপ্য পদক, ৩৪ টি ব্রোঞ্জ পদক এবং ৩১ টি বিশেষ পুরষ্কার সহ মোট ৭৬ টি পদক জিতেছে।

মার্চের প্রথম সপ্তাহে বিডিএমওর ফেসবুক পেজ এপিএমওর ২০২১ সালের স্থানীয় অনুষ্ঠানের ঘোষণা দেয়। সর্বোচ্চ সতর্কতায় এই অনুষ্ঠানটি কারওয়ান বাজারের মোনেম বিজনেস জেলা ভবনে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। অনুষ্ঠানে সেরা ১০ প্রার্থীর সমাধানগুলো আন্তর্জাতিক কমিটিতে পাঠানো হয়েছিল। এ তালিকায় ছিলেন- ময়মনসিংহের সরকারী আনন্দমোহন কলেজের মারুফ হাসান। বিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের নুজাত আহমদ, আদনান সাদিক, মুহাইমিনুল ইসলাম নিনাদ, তাহমিদ হামিম চৌধুরী, ফাহিম ফায়াজ। নটরডেম কলেজের মুত্তাকিন আহমেদ চৌধুরী। সেন্টের দেওয়ান সাদমান হাসান জোসেফ উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়। মতিঝিল সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের তাহমিম নূর এবং ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজের ফুয়াদ আল আলম।

সরকারী আনন্দমোহন কলেজের মারুফ হাসানের কঠোর পরিশ্রমে স্বর্ণ পদক জয়ে সফল হয়েছিলেন। এছাড়াও মারুফ ২০১২ সালে এপিএমওতে রৌপ্যপদক এবং ২০২০ সালে একটি ব্রোঞ্জ পদক জিতেছিলেন। মারুফ বলেছিলেন, এটি তার স্কোর ২০। দলের একমাত্র মহিলা সদস্য নুজহাত আহমেদ সবার পরে জাতীয় দলে এসেছিলেন, তাই বলে তার কৃতিত্ব ছোট নয়। এই বছরের ইউরোপীয় গার্লস ম্যাথমেটিকাল অলিম্পিয়াডে (ইজিএমও) রৌপ্যপদক জিতেছিলেন নুজহাত।

নুজহাত ছাড়াও দলের আরও একটি ব্রোঞ্জ পদকপ্রাপ্ত হলেন আদনান সাদিক। ২০১২ সালে প্রথম জাতীয় রাউন্ডে অংশ নেওয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন। পরের বছর সাদিক আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে একটি ব্রোঞ্জ পদক জিতেছিলেন। এ বছরের এপিএমওর পাঁচটি সমস্যার মধ্যে দুটি সমাধান করেছেন।

এপিএমওতে চার ঘন্টার একটি কাগজ থাকে, এতে বিভিন্ন অসুবিধার পাঁচটি প্রশ্ন থাকে এবং প্রত্যেকটিতে সর্বোচ্চ ৭ পয়েন্ট থাকে। প্রতিযোগীদের আনুষ্ঠানিকভাবে কোনও বিশ্ববিদ্যালয়ে (বা সমমানের পোস্ট-সেকেন্ডারি প্রতিষ্ঠান) ভর্তি হওয়া উচিত নয় এবং প্রতিযোগিতার বছরের ১ জুলাই পর্যন্ত তাদের অবশ্যই ২০ বছরের কম বয়সী হতে হবে।#

প্রজন্মনউজ২৪/ফাহাদ
 

এ সম্পর্কিত খবর

দাম শুনলে আঁতকে উঠবেন, বিশ্বের সবচেয়ে দামী সবজির

করোনায় দেশে  আরও ৫১ জনের মৃত্যু

বরিশালে কোতোয়ালি ও এয়ারপোর্ট থানায় নতুন যানবাহন দিল বিএমপি

ঝিনাইদহ জেলায় সরকারী প্রাথমিকের ৯ শিক্ষকের খোঁজ নেই !

নীলফামারী টু কক্সবাজার চালু হচ্ছে বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট

বলিউডে নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকীর বিপরীতে অভিষেক হচ্ছে জয়া আহসানের

রাসিক মেয়রের সাথে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনালিস্টরা  

ফের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধে আইনি নোটিশ

ব্রিটিশ মন্ত্রিসভায় রদবদল, নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিজ ট্রাস

ভিকারুননিসার অধ্যক্ষের ফোনালাপ ফাঁসের তদন্ত রিপোর্ট দাখিলের নির্দেশ

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ