আজ বিশ্ব রক্তদাতা দিবস

প্রকাশিত: ১৪ জুন, ২০২১ ১১:৪৯:৪৮ || পরিবর্তিত: ১৪ জুন, ২০২১ ১১:৪৯:৪৮

আজ বিশ্ব রক্তদাতা দিবস

আজ ১৪ জুন, বিশ্ব রক্তদাতা দিবস।  রক্ত দিন, জীবনের অংশ হোন। রক্তদানকে উৎসাহ দেওয়ার জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই দিনটি উদযাপন করে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সদস্য দেশগুলোতে সরকারি ও বেসরকারিভাবে দিনটি উদযাপিত হয়।

১৯৯৫ সাল থেকে আন্তর্জাতিক রক্তদান দিবস পালন এবং ২০০০ সালে ‘নিরাপদ রক্ত’-এই থিম নিয়ে পালিত বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবসের অভিজ্ঞতা নিয়ে ২০০৪ সালে প্রথম পালিত হয়েছিল বিশ্ব রক্তদান দিবস। ২০০৫ সালে বিশ্ব স্বাস্থ্য অধিবেশনের পর থেকে প্রতিবছর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও এ দিবস পালনের জন্য তাগিদ দিয়ে আসছে।

রক্তদানে সবাইকে অণুপ্রেরণা দিয়ে শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করেছে সামাজিক সংগঠন ‘উৎসর্গ ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ’ এর জাতীয় সেচ্ছাসেবক সমন্বয়ক কমিটির দপ্তর সম্পাদক ও ‘হৃদয়ে কিশোরগঞ্জ’ এর প্রতিষ্ঠাতা মোঃ সাখাওয়াত হোসেন আকাশ।
 
সামাজিক সংগঠন ‘উৎসর্গ ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ’ এর জাতীয় সেচ্ছাসেবক সমন্বয়ক কমিটির দপ্তর সম্পাদক ও ‘হৃদয়ে কিশোরগঞ্জ’ এর প্রতিষ্ঠাতা মোঃ সাখাওয়াত হোসেন আকাশ এক শুভেচ্ছা বিবৃতিতে বলেন, বিশ্বের সকল স্বেচ্ছায় রক্তদাতাদের প্রতি এবং যারা তাদের শরীরের রক্তদানের মত মহৎ কাজ করে সবসময় অসহায় মানুষের পাশে দাড়াচ্ছেন তাদের শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

তিনি আরো বলেন, রক্তদান জীবন দান। কথাটার সঙ্গে আমরা সকলেই পরিচিত। অথচ রক্তদানের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে সচেতনতা, সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়ার মানসিকতা এখনও আমাদের মধ্যে গড়ে ওঠেনি সে ভাবে। প্রতি দিন বিশ্বে রক্তের অভাবে বহু মানুষের প্রাণ গেলেও সুস্থ মানুষেরা অনেকেই রক্তদান সম্পর্কে ভুল ধারণা, ইতস্তত ভাব কাটিয়ে উঠতে পারেননি।

আকাশ আরো বলেন, রক্তদাতারা আছেন বলেই হয়ত রক্তের অভাবে হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে থাকা মানুষগুলো স্বস্তি পায়, হয়ত কোন রক্তযোদ্ধা এসে তার জীবনের আলো ফিরে পেতে সাহায্য করে। আসুন আমরা প্রত্যেকেই রক্তদানে সচেতন হই। প্রতি ৪ মাস পর পর রক্তদান করে অসহায়-দুস্থ মানুষের পাশে দাড়াই এবং সেই সাথে আমাদের আশেপাশের মানুষগুলোকে রক্তদানে সচেতন ও উদ্বুদ্ধ করি। উল্লেখ্য, ‘উৎসর্গ ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ’ ও ‘হদয়ে কিশোরগঞ্জ’ একটি মুক্ত চিন্তার সামাজিক সংগঠন যার লক্ষ্য হচ্ছে মানুষকে সেচ্ছায় সহযোগিতা করা।

অজানা অচেনা মানুষের জীবন বাঁচাতে নীরবে-নিভৃতে নিজেদের রক্ত দান করে স্বেচ্ছা রক্তদাতারা যে মহৎ কাজ করছেন; সেজন্যে তাদেরকে অভিনন্দন জানিয়েছে কোয়ান্টাম স্বেচ্ছা রক্তদান কার্যক্রম কর্তৃপক্ষ। ১৪ জুন বিশ্ব রক্তদাতা দিবস উপলক্ষে কোয়ান্টামের সকল স্বেচ্ছা রক্তদাতার পাশাপাশি বিশ্বের সকল স্বেচ্ছা রক্তদাতার প্রতিও কৃতজ্ঞতা জানায় মানবসেবায় নিয়োজিত এ সংগঠনটি।

করোনার দুর্যোগ সময়েও কোয়ান্টাম ল্যাব কর্মীরা সমস্ত কার্যক্রম যথাসাধ্য চালু রেখেছেন। প্রয়োজনীয় সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়ে দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা মানুষকে সেবা দিয়ে গেছেন। আর এটি সম্ভব হয়েছে মূলত স্বেচ্ছা রক্তদাতার কারণেই। কোয়ান্টামের রয়েছে তিন লক্ষাধিক রক্তদাতার একটি সুসংগঠিত ‘ব্লাড ডোনার পুল’। তবে তাদের পাশাপাশি সুস্থ সচেতন আরও মানুষকে স্বেচ্ছা রক্তদানে এখন এগিয়ে আসা প্রয়োজন। কারণ, মূমুর্ষূ মানুষের রক্তের চাহিদা আরও বেশি।

কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন এক প্রেসবিজ্ঞতিতে জানায়, কোয়ান্টাম ল্যাবে গত এক মাসে (১৪ মে-১৩ জুন ২০২১) রক্ত সংগ্রহ করা হয়েছে ৪৫৫৬ ইউনিট। যদিও গত বছর এই সময়ে এক মাসে (১৪ মে - ১৩ জুন ২০২০) এ সংখ্যা ছিল ৩৮৯২ ইউনিট। অর্থাৎ গত বছরের তুলনায় এই সময়ের এক মাসে সংগ্রহ বেড়েছে প্রায় ৬৬৪ ইউনিট।

২০২০ সালে সারাবছরে কোয়ান্টাম ল্যাবে রক্ত ও রক্ত উপাদানের চাহিদা ছিল ৯৭ হাজার ৬১৪ ইউনিট। এর বিপরীতে ল্যাব সরবরাহ করতে পেরেছে ৮৫ হাজার ৩৫৭ ইউনিট। চলতি বছর ১৩ জুন পর্যন্ত ছয় মাসে চাহিদা ছিল ৪৩ হাজার ৭২৯ ইউনিট; এর বিপরীতে ল্যাব সরবরাহ করতে পেরেছে ৩৯ হাজার ৭১৮ ইউনিট।
২০০০ সালে শুরু করে দুই দশকের নিরলস প্রচেষ্টায় কোয়ান্টাম ল্যাব গড়ে তুলেছে তিন লক্ষাধিক রক্তদাতার একটি ডোনার পুল। এ পর্যন্ত কোয়ান্টাম স্বেচ্ছা রক্তদান কার্যক্রম প্রায় ১২ লাখ ৯৩ হাজার রক্ত ও রক্ত উপাদান সরবরাহ করে মানুষের জীবন বাঁচাতে সহায়তা করতে পেরেছে।

কোয়ান্টাম স্বেচ্ছা রক্তদান কার্যক্রমের প্রাণ হলেন সম্মানিত রক্তদাতারা। করোনা ভয়কে জয় করে এই ক্রান্তিকালেও রক্তদাতারা এগিয়ে এসেছেন মুমূষুর পাশে দাঁড়াতে। এজন্যে তাদের অভিনন্দন। তবে এই মুহূর্তে প্রয়োজন আরও অধিক মানুষের সম্মিলিত সহযোগিতা। রক্তদাতাদের স্বেচ্ছায় রক্তদানের মাধ্যমে আরো অনেক থ্যালাসেমিয়া রোগী, সন্তানসম্ভবা নারী কিংবা অপারেশনের রোগীকে প্রয়োজনের মুহূর্তে রক্ত সরবরাহ করা সম্ভব।
সকল সুস্থ সবল প্রাপ্তবয়স্ক সচেতন নাগরিকদের প্রতি বিশ্ব রক্তদাতা দিবসে আহ্বান প্রয়োজনীয় দুঃসময়ে স্বেচ্ছায় রক্তদান করে হাজারো মানুষের প্রাণ বাঁচাতে এগিয়ে আসুন। মানবিকতার প্রমাণ রাখুন। দেশের প্রতি আপনার ভালবাসা প্রকাশের সুযোগ গ্রহণ করুন।

প্রজন্মনিউজ২৪/শাওন

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ