চেনা শহর ঢাকা,লকডাউনে যেন অচেনা

প্রকাশিত: ১৪ এপ্রিল, ২০২১ ০৪:১৫:২৪ || পরিবর্তিত: ১৪ এপ্রিল, ২০২১ ০৪:১৫:২৪

চেনা শহর ঢাকা,লকডাউনে যেন অচেনা

অসীম আল ইমরান, ঢাকা:


সরকারঘোষিত আটদিনের বিধি-নিষেধের প্রথমদিনে রাজধানীর সর্বত্রে পালিত হচ্ছে কঠোর লকডাউন। এই বিধি-নিষেধ সর্বাত্মকভাবে পালনে বাধ্য করতে রাজধানীর পাড়া-মহল্লা থেকে শুরু করে রাজপথের প্রধান সড়ক ও মোড়ে মোড়ে টহল দিচ্ছেন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

গত সপ্তাহের লকডাউনের সাথে যেন আজ বুধবারের (১৪ এপ্রিল) লকডাউনের কোনো মিলই নেই। গত সপ্তাহের লকডাউনে রাস্তা ও মোড়ে হাজার হাজার মানুষ দেখা মিললেও আজ মানুষের কোন জটলা নেই। প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের হতে নির্ষেধ করেছেন প্রশাসনের কর্তৃপক্ষ। কোন ভাবে কেউ বের হলেই বিভিন্ন বাহিনীর সদস্যদের জেরার মুখে পড়তে হচ্ছে নগরবাসীকে।

রাস্তায় বিভিন্ন বাহিনীর টহল গাড়ি, পণ্যবাহী ট্রাক, রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্স, প্রাইভেটকার, রিকশা, মোটরসাইকেলসহ জরুরি প্রয়োজনে ব্যবহৃত সীমিত সংখ্যক যানবাহন ছাড়া তেমন যানবাহন চোখে পড়েনি। প্রায় প্রতিটি যানবাহনকে গতিরোধ করে প্রশ্ন করছে পুলিশ। কী প্রয়োজনে কোথায় যাচ্ছেন তা জানতে চাইছেন পুলিশ সদস্যরা। অপ্রয়োজনে কেউ বাইরে বের হয়েছে এমনটা নিশ্চিত হলে মামলা দিয়ে বাড়ি পাঠানো হচ্ছে।

সরেজমিনে রাজধানীর পান্থপথ, কাওরান বাজার, মগবাজারসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে অধিকাংশ রাস্তাঘাটে পুলিশের টহল ভ্যান ও সাইরেন বাজিয়ে অ্যাম্বুলেন্স চলাচল করতে দেখা গেছে। গতকাল(১৩ এপ্রিল)শহরে যে মানুষের উপস্থিতি দেখা গেছে তা আজ নেই বললেই চলে। তাছাড়া রমজানের প্রথম দিন হওয়ার কারণে এমনিতেই মানুষ ঘরের বাইরে বের হন নি।

সরকারের একাধিক মন্ত্রী ও দায়িত্বশীল শীর্ষ কর্মকর্তারা আগে থেকেই সর্বাত্মক কঠোর লকডাউনের ঘোষণা দেয়ার ফলে ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে নগরের মানুষ গুলো যেন হাওয়ার মতো প্রায় নাই। হয়ে গেছেন

!

রাজধানীর পান্থপথ এলাকায় কর্তব্যরত একজন পুলিশ কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তারা সিহরি পর থেকেই রাস্তায় টহলে নেমেছেন। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কড়া নির্দেশ করোনার সংক্রমণ রোধে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কাউকে রাস্তায় যেন আসত না দেওয়া হয়। শুধু তাই নয়, পুলিশের ‘মুভমেন্ট পা ‘  ছাড়া চলাচলে বাধা দিতে বলা হয়েছে। তবে মানবিক বিবেচনায় কিছু মানুষ যারা তথ্য-প্রযুক্তি সম্পর্কে জানেন না কিন্তু জরুরি প্রয়োজনে বের হয়েছেন তাদেরকে চলাচল করতে দেয়া হচ্ছে। লকডাউন চলাকালে ফলমূল ও কাঁচামাল পরিবহনের অনুমতি থাকলেও বেশ কিছু রাস্তায় পুলিশকে ভ্যান ও ঠেলাগাড়ি ফিরিয়ে দিতে দেখা গেছে। ভুক্তভোগীরা জানিয়েছেন, পুলিশের বাধার কারণে তাদের অনেকটা পথ ঘুরে গন্তব্যে যেতে হচ্ছে।

প্রজন্মনিউজ২৪

 
 

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন