ব্যবসায়ী হত্যার প্রতিবাদে উত্তাল গাইবান্ধা 

প্রকাশিত: ১১ এপ্রিল, ২০২১ ০৬:২৯:০৪

ব্যবসায়ী হত্যার প্রতিবাদে উত্তাল গাইবান্ধা 

গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ

গাইবান্ধা জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক দাদঁন ব্যবসায়ি মাসুদ রানার সুদের টাকার কিস্তি দিতে না পারায় জুতা ব্যবসায়ি হাসান আলীকে টানা এক মাস তার বাড়িতে আটকে রেখে হত্যার প্রতিবাদে উত্তাল গাইবান্ধা। 

এদিকে রোববার সকাল ১১টায় জেলা শহরের ডিবি রোডে আসাদুজ্জামান মার্কেটের সামনে গাইবান্ধাবাসি নামে একটি নাগরিক সংগঠনের ব্যানারে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে নিহত হাসান আলীর স্ত্রী বিথি বেগম, ছোট ছেলে হেদায়েতুল ইসলাম শাফিনসহ জেলার রাজনৈতিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক, ক্রীড়া সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিক ও বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ অংশ নেন। এই হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু তদন্ত, দাদন ব্যবসায়ি আওয়ামী নেতা মাসুদ রানার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং সদর থানার ওসি মাহফুজুর রহমানের অপসারণসহ ঘটনার সাথে জড়িত পুলিশ কর্মকর্তাদের শাস্তি দাবি করে মানববন্ধনে।
 
গত শনিবার(১০ই এপ্রিল)রাতে গাইবান্ধা সদর তদন্ত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মজিবর রহমান, এস.আই মোশরাফ ও আওয়ামীলীগ নেতা মাসুদ রানা সহ পাঁচ জনের নাম উল্লেখ করে তাদের বিরুদ্ধে সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন নিহত হাসান আলীর স্ত্রী বিথী বেগম। অভিযোগে বলে তার স্বামীকে ৫ই মার্চ মাসুদ রানা সহ তার সঙ্গীরা তাকে অপহরন করেন। পরে বিষয়টি থানায় জানালে একদিন পর হাসান ওআমাকে (স্ত্রীকে)সদর থানায় তদন্ত ওসি মজিবরের রুমে নিয়ে  সাদা স্টাম্পে ও চেকে সই দিয়ে নিতে যেতে বলেন। তখন নিহত হাসানের স্ত্রী সাদা স্টাম্পে ও চেকে সই না দেওয়া তদন্ত ওসি মজিবর রহমান ৭ই মার্চ হাসানকে অপহরন কারীদের জিম্মায় দেয়।

নিজেকে নিদোর্ষ দাবি করে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তদন্ত আঙ্গুল তুলেন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহফুজার রহমানের দিকে। মজিবর বলেন, ওসি স্যার এস.আই মোশরাফকে দায়িত্ব নিজেই দিয়েছেন। আমি তো দেই নি।

গত শনিবার সকালে আওয়ামী লীগ নেতা মাসুদ রানার বাড়িতে জুতার ব্যবসায়ী হাসান আলীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। শনিবার দুপুরে আওয়ামী লীগ নেতা মাসুদকে আটক করেন পুলিশ। এদিকে পুলিশের বিরুদ্ধে সাধারন মানুষের মধ্যে ক্ষোপ দেখা গেছে। অপহৃত ব্যক্তিকে উদ্ধারের পর অপরাধীর হাতে তুলে দেওয়ায় উদ্বিগ্ন সাধারন মানুষ। 

জেলা আওয়ামী কার্যালয়ে এক প্রেস বিফ্রিংয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু বকর সিদ্দিক স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে মাসুদ রানাকে কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশে তার ওই পদ থেকে অব্যাহতি দেয়ার তথ্য জানান। 

পুলিশ সুপার কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত প্রেস বিফ্রিংয়ে পুলিশ সুপার মুহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম তাঁর সংক্ষিপ্ত বিফ্রিংয়ে জানান, এই ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দ্রুত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে। এব্যাপারে আটক মাসুদ রানাকে জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত রয়েছে। এছাড়াও এই ঘটনায় মামলা গ্রহণের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্ট প্রাপ্তি ও তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবসায়ি হাসান আলীর মৃত্যুর এই ঘটনা সম্পর্কে প্রয়োজনীয় সকল বিষয়ে দোষীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ ও আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। তিনি আরও বলেন, এই ঘটনায় পুলিশ সদস্যসহ অন্য যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাদের কাউকেই নুন্যতম ছাড় দেয়া হবে না বরং দ্রুত তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। 

 প্রজন্মনিউজ২৪/আনোযার হোসেন শামীম/অআই

 

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ