সভাপতির বক্তব্যে ব্যাংক খাতে নিষিদ্ধ ‍সিটিও ফোরাম

প্রকাশিত: ০৪ মার্চ, ২০২১ ১১:৪১:৩৮

সভাপতির বক্তব্যে ব্যাংক খাতে নিষিদ্ধ ‍সিটিও ফোরাম

প্রধান প্রযুক্তি কর্মকর্তাদের সংগঠন সিটিও ফোরামের সঙ্গে সব ধরনের সম্পর্ক ছিন্ন করতে ব্যাংকগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। সেই সঙ্গে কেউ এই ফোরামে যুক্ত থাকলে তাঁকে সম্পর্ক ছিন্ন করে ১১ মার্চের মধ্যে তা কেন্দ্রীয় ব্যাংককে জানাতে বলা হয়েছে। গত সোমবার ব্যাংকগুলোকে এই নির্দেশনা দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এরপরই ব্যাংকাররা সিটিও ফোরাম থেকে পদত্যাগ করতে শুরু করেন।

এদিকে চিফ টেকনোলজি অফিসার্স (সিটিও) ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি তপন কান্তি সরকার গতকাল বুধবার বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের কাছে চিঠি দিয়ে নির্দেশনাটি প্রত্যাহারের আবেদন জানিয়েছেন। চিঠিতে তিনি লেখেন, ‘যদি আমার ব্যক্তিগত বক্তব্য কখনো ভুলভাবে উপস্থাপিত হয় বা ভুল-বোঝাবুঝির সৃষ্টি করে, তবে তা কখনোই সিটিও ফোরামের ওপর বর্তায় না। এমন সিদ্ধান্ত অনাকাঙ্ক্ষিত।’

ব্যাংকগুলোতে পাঠানো বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগ এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা এজেন্সি (বিজিডি ইন-গভ-সিআইআরটি) স্মারকের মাধ্যমে জানায়, একটি টেলিভিশন অনুষ্ঠানে ব্যাংকগুলোর সাইবার হ্যাকিং প্রতিরোধে গৃহীত ব্যবস্থা ও সার্বিক প্রস্তুতিবিষয়ক আলোচনায় সিটিও ফোরামের সভাপতির দেওয়া বক্তব্য অসত্য।

এর পরিপ্রেক্ষিতে ব্যাংকগুলোকে কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলেছে, সিটিও ফোরামের সঙ্গে সব ধরনের সংশ্লিষ্টতা পরিহার করতে হবে। জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘মন্ত্রণালয়ের চিঠির পরিপ্রেক্ষিতেই এই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এর বেশি কিছু আমরা জানি না।’

সিটিও ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা তপন কান্তি সরকার বলেন, ‘সরকারের একটি সংস্থার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, পাঁচটি ব্যাংকে হামলা হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে আমি বলেছি, সাইবার হামলা মোকাবিলায় এসব প্রতিষ্ঠানের সক্ষমতায় ঘাটতি আছে। এতে অন্যায় কী বুঝতে পারছি না। আর আমার এক বক্তব্যে পুরো সিটিও ফোরাম কেন নিষিদ্ধ হবে?’

প্রজন্মনিউজ২৪/এমএইচটি

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন