জঙ্গিবাদকে উস্কে দেয়ার অভিযোগ এরদোয়ানের বিরুদ্ধে

প্রকাশিত: ২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২১ ১১:২৩:৩৬

জঙ্গিবাদকে উস্কে দেয়ার অভিযোগ এরদোয়ানের বিরুদ্ধে

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান দাতব্য কাজের আড়ালে ভারত ও নেপালে জঙ্গিবাদ উস্কে দিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। শনিবার সুইডিশ গণমাধ্যম নর্ডিক মনিটরের বরাত দিয়ে ভারতীয় ওয়েবসাইট অপিইন্ডিয়া এ অভিযোগ তুলেছে। বলা হয়েছে, তুর্কি সরকার আল কায়েদার সাথে যুক্ত দাতব্য সংস্থা আইএইচএইচের মাধ্যমে দক্ষিণ এশিয়ায় জিহাদি নেটওয়ার্ক তৈরি করছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, তুরস্ক আলকায়দার সঙ্গে সংযুক্ত দাতব্য সংস্থার দ্য ফাউন্ডেশন ফর হিউম্যান রাইটস এন্ড ফ্রিডমস এন্ড হিউমেনিটেরিয়ানের (আইএইচএইচ) মাধ্যমে সংখ্যালঘু মুসলিম দেশগুলোতে জঙ্গিবাদকে উস্কে দিচ্ছে। দক্ষিণ এশিয়ায় আইএইচএইচের অংশীদার হচ্ছে ইসলামী সংঘ নেপাল (আইএসএন)। সরাসরি তুর্কি অর্থায়নে নেপালে নানা বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে সংগঠনটি। এগুলোর বেশিরভাগই নেপাল-ভারত সীমান্তরেখার কাছাকাছি।

আইএইচএইচ ও আইএসএন দু'টি সংগঠনকেই নজরদারিতে রেখেছে ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থাগুলো। অন্যদিকে, গত ২০১৪ সালেই সিরিয়ায় জিহাদিদের অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগে আইএইচএইচের বিরুদ্ধে তদন্ত করেছিল জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ। তখনই সংগঠনটিকে অস্ত্র চোরাচালানকারী হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হয়।

খবরে আরও বলা হয়েছে, তুর্কি সরকার বেশ কয়েক বছর ধরে কাশ্মীরে বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা সৈয়দ আলী শাহ গিলানিকে অর্থ সহায়তা দিয়ে আসছে। তুর্কি সরকার সময়ে সময়ে কেরালারও একটি উগ্র ইসলামপন্থী সংগঠনকে তহবিল বিতরণ করেছে।

ইসলামী সংঘ নেপাল এবং উগ্র ইসলামপন্থীদের মধ্যে যোগসূত্রটি কেবল আইএইচএইচে সীমাবদ্ধ নয়। আইএসএনকে ইসলামিক ওয়ার্ল্ড এনজিও ইউনিয়ন (আইএসডিবি) নামে একটি সংস্থার সঙ্গে জড়িত । এই সংগঠনের নেতৃত্বে আছেন রাষ্ট্রপতি এরদোগানের প্রাক্তন সিনিয়র সামরিক উপদেষ্টা আদনান তানরিভারদী। তিনি তুরস্কের অভ্যন্তরে এবং বাইরে উভয়দিকেই জিহাদি দলগুলিকে অর্থায়ন করছেন, পাশাপাশি সামরিক ও সুরক্ষা সরবরাহ সম্পর্কিত সামরিক প্রশিক্ষণ এবং পরামর্শ প্রদান করছেন।

অন্যদিকে তুর্কি পুলিশ গোয়েন্দা বিভাগের প্রাক্তন প্রধান আলী ফুয়াত ইলমাজার ২০১৬ সালে আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছিলেন, আইএইচএইচবিশ্বজুড়ে সন্ত্রাসবাদে জেহাদীদের সহায়তা প্রদান এবং চিকিৎসা সহায়তা, তহবিল সরবরাহ করার জন্য তৈরি করা হয়েছে । এটি জিহাদীদের জন্য একটি সম্পদ।

প্রজন্মনিউজ২৪/সাইফুল

 

 

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ