ট্রাম্প থেকে পরমাণু অস্ত্রের কোড কেড়ে নিতে হবে: কংগ্রেস স্পিকার

প্রকাশিত: ০৯ জানুয়ারী, ২০২১ ১২:৫৪:৩৯ || পরিবর্তিত: ০৯ জানুয়ারী, ২০২১ ১২:৫৪:৩৯

ট্রাম্প থেকে পরমাণু অস্ত্রের কোড কেড়ে নিতে হবে: কংগ্রেস স্পিকার

মার্কিন কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের হাতে থাকা পরমাণু অস্ত্রের কোড কেড়ে নিতে সেনাপ্রধান মার্ক মিলির সঙ্গে আলোচনা করেছেন।

তিনি বলেছেন, ডোনাল্ড ট্রাম্প এই মুহূর্তে খুবই অস্থির অবস্থায় রয়েছেন এবং তার কাছে কোনোভাবেই পরমাণু অস্ত্রের কোড থাকা ঠিক নয়। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যাতে কোন যুদ্ধের সূচনা করতে না পারেন সে ব্যবস্থা নিতেও বলেছেন ন্যান্সি পেলোসি।

তিনি বলেন, সেনাপ্রধান মার্ক মিলির সঙ্গে এসব ইস্যুতে কথা বলেছেন এই কারণে যে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যেন তার একক ক্ষমতা ব্যবহার করে কোন দেশের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শুরু কিংবা পরমাণু বোমা হামলা চালানোর নির্দেশ দিতে না পারেন।

ন্যান্সি পেলোসি বলেন, ট্রাম্প যাতে আমেরিকার পরমাণু অস্ত্র ব্যবহার করতে না পারেন তা ঠেকাতেই হবে। এ বিষয়ে তিনি মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদে একটি চিঠিও দিয়েছেন। ট্রাম্পকে ন্যান্সি পেলোসি অস্থিরচিত্তের প্রেসিডেন্ট হিসেবে আখ্যায়িত করেন।

মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার বলেন, এই অস্থির চিত্তের প্রেসিডেন্টকে আরো বিপজ্জনক হয়ে উঠতে দেয়া ঠিক হবে না।

তিনি আলাদা এক বিবৃতিতে বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যদি দ্রুত ও স্বেচ্ছায় ক্ষমতা ছেড়ে না দেন তাহলে কংগ্রেস তাকে ইমপিচ করার প্রক্রিয়া শুরু করবে।#

প্রজন্মনিউজ২৪/ফাহাদ

বাংলাদেশ ও ভারতের বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে সংগীত বিষয়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদেরকে নিয়ে অনলাইন সংগীত প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে বাংলাদেশের সংগীত গবেষণা প্রতিষ্ঠান ‘আন্তর্জাতিক বাংলা সংগীত কেন্দ্র (আইসিবিএম)’। এ প্রতিযোগিতায় গান পাঠিয়ে অংশগ্রহণের সময় শেষ হবে আগামী ১৫ জানুয়ারি।

বাংলাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, শান্ত মারিয়াম বিশ্ববিদ্যালয়, ইউনিভার্সিটি ডেভলপমেন্ট অল্টারনেটিভ (ইউডা)।

ভারতের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়, রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়, কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় এবং কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের শিক্ষার্থীরা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করবে। প্রতিযোগিতার বিষয় উচ্চাঙ্গ সংগীত, রবীন্দ্র সংগীত, নজরুল সংগীত, লোকসংগীত ও কাওয়ালী।

অনলাইনে অনুষ্ঠিত এ সংগীত প্রতিযোগিতায় আইসিবিএমের হোয়াটসঅ্যাপ নম্বর ০১৮১৪৬৯৭৯৭৯ এ গানের ভিডিও পাঠিয়ে যে কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীতে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর শ্রেণীতে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরা অংশ নিতে পারবেন। এছাড়া সংগীতে পড়াশোনা করা সাবেক শিক্ষার্থীরাও (ফলাফল সম্পন্ন হওয়া শিক্ষাবর্ষ থেকে সর্বোচ্চ পাঁচ বছর পর্যন্ত) প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারবেন।

এ প্রতিযোগিতায় সব ধরনের গান পাঠানোর সময়সীমা ৪ মিনিট, তবে উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতের ক্ষেত্রে ৮ মিনিট। একজন প্রতিযোগী সর্বোচ্চ দুটি বিষয়ে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। দেশ বরেণ্য শিক্ষাবিদ ও স্বনামধন্য শিল্পীদের অংশগ্রহণে প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্ব অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৯ জানুয়ারি।

প্রতিযোগিতা সম্পর্কে আরো বিস্তারিত আইসিবিএমের ওয়েবসাইট www.icbmbd.com ও ফেসবুক পেইজে পাওয়া যাবে।

এ বিষয়ে আইসিবিএমের চেয়ারম্যান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক দেশের বিশিষ্ট নজরুল সংগীত শিল্পী ড. লীনা তাপসী খান বলেন- ‘আইসিবিএম আইকন প্রতিযোগিতাটি সংগীত বিষয়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের এই বৈশ্বিক মহামারীর সময়ে সংগীত সাধনায় অনুপ্রেরণা জোগাবে এবং মানসিকভাবে উচ্ছসিত করবে। শিক্ষা ও সংগীত সমতালে চললে মানুষ অন্ধত্বের বেড়াজালে পড়বে না বলে আমার বিশ্বাস।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গীত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক দেবাশীষ বেপারী বলেন, ‘এই প্রতিযোগিতা নিঃসন্দেহে ভারত ও বাংলাদেশের সংগীতের শিক্ষার্থীদের জন্য সম্পূর্ণ ব্যতিক্রমধর্মী আয়োজন, এতে করে তাদের সংগীত সাধনার প্রতি গানের অনুশীলনের প্রতি মনোনিবেশ আরো দৃঢ় হবে। এমন সুন্দর আয়োজনকে ঘিরে দুই প্রতিবেশী দেশের সাংস্কৃতিক সম্প্রীতি আরো সমৃদ্ধ ও বিকশিত হবে বলে আমার বিশ্বাস। প্রতিযোগিতার এবং প্রতিযোগীদের সার্বিক সফলতা কামনা করছি।’#

প্রজন্মনিউজ২৪/ফাহাদ

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ