শাহজিবাজার বিদ্যুৎ উন্নয়ন কেন্দ্র

জীবন্ত গাছকে মৃত দেখিয়ে কর্তনের অভিযোগ

প্রকাশিত: ২১ নভেম্বর, ২০২০ ১১:১০:৪১

জীবন্ত গাছকে মৃত দেখিয়ে কর্তনের অভিযোগ

ইকবাল আহমদ, জেলা প্রতিনিধি (হবিগঞ্জ ): হবিগঞ্জ জেলার শাহজিবাজার বিদ্যুৎ উন্নয়ন কেন্দ্রের ভেতর জীবন্ত গাছকে মৃত দেখিয়ে চলছে অবাধে বৃক্ষ নিধন। ১১৮টি বৃক্ষের নিলামে কাটা হচ্ছে কয়েকশ’ গাছ। কাগজেপত্রে মৃত শুধুমাত্র মেহগনি গাছ দেখানো হলেও কেটে নেয়া হচ্ছে জীবন্ত বৃহৎ আকারের আকাশমনি, ক্রস, চাপালিশ প্রজাতির গাছগুলো। আহবানকৃত নিলামের কয়েকগুন বেশি গাছ কাটা হয়েছে।

সর্বশেষ গত ১৭ নভেম্বর বিদ্যুৎ উন্নয়ন কেন্দ্রের রেস্ট হাউজ এলাকা থেকে বৃহতাকৃতির চাপালিশ গাছ কাটতে গিয়ে স্থানীয় জনগণের বাধার মুখে গাছ কাটা বন্ধ রয়েছে। বন বিভাগের পরামর্শ ছাড়াই অফিস কর্তা-ব্যক্তিরা নিজেদের মতো করে জীবন্ত গাছকে কাগজেপত্রে মৃত দেখিয়ে যোগসাজসে বিক্রি করে দিচ্ছে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।

বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সহকারি পরিচালক মো. মাহবুব হোসেনের সাথে জানান, পরিচালক সাইফুল হাসান চৌধুরীকে আহবায়ক করে ১১৮টি গাছের নিলাম কমিটি করা হয়। কমিটির পরামর্শক্রমে গত ১২ অক্টোবর আহবানকৃত নিলামে ৩টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করে। অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে সর্বোচ্চ দর আহবানকরী মেসার্স মা এন্টারপ্রাইজ ১১৮টি গাছের মূল্য ভ্যাট, ট্যাক্সসহ ৩ লাখ ৪০ হাজার ৫শ’ টাকা পরিশোধের মাধ্যমে গাছ কর্তন করছে। একটি গাছ বেশী কাটা হয়েছিল সেটিতে বাধা দেয়া হয়েছে। রেস্ট হাউজ এলাকায় চাপালিশ ও রাস্তার পাশ থেকে জীবন্ত আকাশমণি ও ক্রস গাছ কাটার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেনি।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল সোহেল বলেন, ‘জীবন্ত গাছকে মৃত দেখিয়ে যারা গাছগুলো কাটছে তারা আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়েছেন। অবাধে গাছ কাটার ফলে আমার পরিবেশ, প্রতিবেশ তথা জলবায়ুর উপর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। জীবন বাচাঁতে গাছ রক্ষার বিকল্প নেই। বিদ্যুৎ বিভাগের মত দ্বায়িত্বশীল প্রতিষ্ঠান কর্তৃক যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরন না করায় তদন্তপূর্বক গাছ কর্তনের সঙ্গে জড়িতদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা দরকার।’

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক মো. মারুফ হোসেন বলেন, ‘পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় সরকার গাছ কর্তনের চেয়ে গাছ রোপনের উপর সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়েছেন। কোন বিভাগ গাছ মার্কিং, বিক্রি, বাজারদর নির্ধারণে বনবিভাগের সহযোগিতা চাইলে আমরা সর্বদা প্রস্তুত। কাটাগাছগুলো পরিবহনের ক্ষেত্রে বনবিভাগের অনমোদন বাধ্যতামূলক।’

এ ব্যপারে বিদ্যুৎ উন্নয়ন কেন্দ্রের পরিচালক সাইফুল হাসান চৌধুরীর সাথে মোবাইল ফোনে যোগযোগ করা হলে তিনি অসুস্থ আছেন বলে জানান। কাগজপত্র না দেখে তিনি কিছু বলতে পারবেন না।

প্রজন্মনিউজ২৪/ইকবাল/নাজমুল

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ












ব্রেকিং নিউজ