প্রকল্প তাঁতশিল্পীদের সুবিধা দিতে আসছে

প্রকাশিত: ২৪ অক্টোবর, ২০২০ ০৪:১২:২৫ || পরিবর্তিত: ২৪ অক্টোবর, ২০২০ ০৪:১২:২৫

প্রকল্প তাঁতশিল্পীদের সুবিধা দিতে আসছে

দেশের বস্ত্র ও পাট খাতের গৌরবময় ইতিহাস ও সোনালী ঐতিহ্য সংরক্ষণ এবং তা সাধারণ জনগণের কাছে তুলে ধরতে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের তারাব এলাকায় বঙ্গবন্ধু বস্ত্র ও পাট জাদুঘর স্থাপন করবে সরকার। একই সঙ্গে সেখানকার উৎপাদিত জামদানি পণ্যের বাজারজাতকরণ ব্যবস্থার উন্নয়ন এবং তাঁতশিল্পীদের জন্য বিভিন্ন ধরনের সুবিধা নিশ্চিতে হবে প্রদর্শনী কাম বিক্রয় কেন্দ্র ও বস্ত্র প্রক্রিয়াকরণ কেন্দ্র।

এছাড়া তাঁতীদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে প্রশিক্ষণ প্রদান এবং পরিবর্তিত বাজারে ভোক্তার চাহিদার সঙ্গে সঙ্গতি রেখে নতুন নতুন ডিজাইন উদ্বোধন এবং দক্ষ ডিজাইনার ও মানবসম্পদ তৈরিতে হবে একটি ফ্যাশন ডিজাইন ইনস্টিটিউট।

এজন্য ‘বঙ্গবন্ধু বস্ত্র ও পাট জাদুঘর, জামদানি শিল্পের উন্নয়নে প্রদর্শনী কাম বিক্রয় কেন্দ্র, বস্ত্র প্রক্রিয়াকরণ কেন্দ্র এবং একটি ফ্যাশন ডিজাইন ইনস্টিটিউট স্থাপন’ নামে একটি প্রকল্পের উদ্যোগ নিয়েছে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়।

বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে। এতে ব্যয় হবে ২৮২ কোটি ১৫ লাখ টাকা। নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের তারাবতে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে। প্রকল্পের মেয়াদ ধরা হয়েছে ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত।

প্রস্তাবিত ‘বঙ্গবন্ধু বস্ত্র ও পাট জাদুঘর’ মুজিববর্ষে বাস্তবায়নের বিষয়ে মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। সেই অনুযায়ী বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবকে (পরিকল্পনা) আহ্বায়ক করে গঠিত নয় সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ উপজেলার তারাবোতে একটি বঙ্গবন্ধু জাদুঘর স্থাপনের স্থান নির্ধারণ করে।

প্রকল্পের উদ্দেশ্য তুলে ধরে বাংলাদেশ তাঁত বোর্ডের চেয়ারম্যান (অতিরিক্ত সচিব) মো. শাহ আলম জাগো নিউজকে বলেন, এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য হচ্ছে দেশের বস্ত্র ও পাট খাতের গৌরবময় ইতিহাস ও সোনালী ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও সাধারণ জনগণের কাছে তুলে ধরা। উৎপাদিত জামদানি পণ্যের বাজারজাতকরণ ব্যবস্থার উন্নয়ন করা। তাঁতশিল্পীদের জন্য বয়নপূর্ব ও বয়নোত্তর বিভিন্ন ধরনের সেবা প্রদানের সুযোগ সৃষ্টি করা।’

তাঁত বোর্ডের প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, বাংলাদেশের তাঁতবস্ত্রের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি দীর্ঘদিনের। এদেশের তাঁতে উৎপাদিত মসলিন ছিল বিশ্ববিখ্যাত। প্রায় ১৭ ধরনের মসলিন কাপড় বুনন হতো, যার মধ্যে অন্যতম হলো জামদানি। ঐতিহ্যবাহী জামদানি তাঁতবস্ত্রের বুননশৈলী অত্যন্ত শৈল্পিক, অসামান্য এবং অদ্বিতীয়। জামদানিশিল্পীরা ঐতিহ্যগতভাবেই তাদের মনের মাধুরী মিশিয়ে মানসম্পন্ন জামদানি শাড়ি তৈরি করে আসছেন। একসময় মসলিনের পরিপূরক হয়ে বাংলাদেশের ফ্যাশন ঐতিহ্যে স্থান করে নেয় জামদানি। ক্রমেই তা বাংলার তাঁতীদের আপন মমতায় আর সুনিপুণ দক্ষতায় হয়ে ওঠে ঐতিহ্যের পাশাপাশি অভিজাত্যের পোশাক।

বাংলাদেশের জাতীয় কারুশিল্প পরিষদ ও বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁওকে ‘ওয়ার্ল্ড ক্রাফট সিটি’র মর্যাদা লাভের জন্য উদ্যোগ নেয়া হয়। জামদানিকে ঘিরে উৎসব আয়োজনের মধ্য দিয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁকে ওয়ার্ল্ড ক্র্যাফট কাউন্সিলের পক্ষ থেকে ওয়ার্ল্ড ক্র্যাফট সিটি’র স্বীকৃতি দেয়া হয়। ফলে প্রথম বাংলাদেশের কোনো স্থান ওয়ার্ল্ড ক্রাফট সিটির মর্যাদা লাভ করে— জানায় তাঁত বোর্ড।

এছাড়া ২০১৩ সালে ইউনেস্কো জামদানি বয়নশিল্পকে ইনটেনজিবল কালচারাল হেরিটেজের মর্যাদা ও স্বীকৃতি দেয়। ২০১৬ সালে বাংলাদেশের প্রথম ভৌগোলিক নির্দেশক সামগ্রী হিসেবে স্বীকৃতি পায় জামদানি।

প্রজন্মনিউজ২৪/সাখাওয়াত

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ












ব্রেকিং নিউজ