স্বাস্থ্যের আবজাল রিমান্ড শেষে কারাগারে

প্রকাশিত: ১৯ অক্টোবর, ২০২০ ০৪:১৪:৪৩

স্বাস্থ্যের আবজাল রিমান্ড শেষে কারাগারে

বিপুল পরিমাণ অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুদকের করা দুই মামলায় স্বাস্থ্য অধিদফতরের আলোচিত অফিস সহকারী আবজাল হোসেনের ১৪ দিনের রিমান্ড শেষ হয়েছে। দ্বিতীয় দফায় সাতদিনের রিমান্ড শেষে সোমবার (১৯ অক্টোবর) ঢাকার মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ কেএম ইমরুল কায়েশ তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন৷

গত ২ সেপ্টেম্বর আবজালের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দুই মামলায়  সাতদিন করে ১৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

এরপর এক মামলায় সাতদিনের রিমান্ড শেষে গত ২০ সেপ্টেম্বর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছিল।  
গত বছর ২৭ জুন দুদক উপ-পরিচালক মো. তৌফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-১ এ অবৈধ সম্পদ অর্জন, মানি লন্ডারিং এবং দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনে মামলা দু’টি করেন।

প্রথম মামলায় আবজালের স্ত্রী রুবিনা খানমের বিরুদ্ধে ২৬৩ কোটি ৭৬ লাখ ৮১ হাজার টাকার মানি লন্ডারিংসহ ২৮৫ কোটি ২৭ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়।

মামলায় বলা হয়, আবজালের অবৈধ আয়কে বৈধ করার পূর্বপরিকল্পনায় নিজ নামে ও তাদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট রহমান ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল ও রুপা ফ্যাশনের নামে তফসিলি ব্যাংকের ২৭টি হিসাবের মাধ্যমে ২৬৩ কোটি ৭৭ লাখ ৬৪ হাজার টাকা স্থানান্তর, হস্তান্তর ও মানি লন্ডারিং করেন, যা ২০১২ সালের মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের ২(য) ধারায় বর্ণিত সন্দেহজনক অস্বাভাবিক লেনদেন হিসেবে অনুসন্ধানে প্রমাণ হয়েছে।

এছাড়া রুবিনা খানম নিজ নামে স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদের যে হিসাব দুদকে দাখিল করেন, তাতে তিনি ৫ কোটি ৯০ লাখ ২৮ হাজার টাকার সম্পদের তথ্য গোপন করেন। আর দুদকের অনুসন্ধানে প্রমাণিত হয়, তিনি ৩১ কোটি ৫১ লাখ ২৩ হাজার টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জন করেন।

এ কাজে স্ত্রীকে সহায়তার জন্য স্বামী আবজাল হোসেনকেও আসামি করা হয়।

তাদের বিরুদ্ধে ২০০৪ সালের দুর্নীতি দমন কমিশন আইনের ২৬(২) এবং ২৭(১) ধারাসহ ২০০৯ সালের মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের ৪(২) ধারা এবং ২০১২ সালের মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের ২(ফ) ধারায় মামলাটি দায়ের করা হয়। মামলায় মানি লন্ডারিং সংক্রান্ত অপরাধে ৪(২)(৩) ধারা এবং দণ্ডবিধির ১০৯ ধারাও সংযুক্ত করা হয়।

আরেক মামলায় আবজালের বিরুদ্ধে ২০ কোটি ৭৪ লাখ ৩২ হাজার টাকা মানি লন্ডারিং এবং ২ কোটি ১ লাখ ১৯ হাজার টাকার সম্পদের তথ্য গোপনসহ ৪ কোটি ৭৯ লাখ ৩৪ হাজার টাকার জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদের অভিযোগ আনা হয়।

অভিযোগে বলা হয়, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মেডিকেল এডুকেশন শাখার সাবেক হিসাবরক্ষক (সাময়িক বরখাস্ত) আবজাল হোসেন ওই অধিদফতরে কর্মরত থেকে একজন সরকারি চাকরিজীবী হিসেবে ক্ষমতার অপব্যবহার করেন।

তিনি দুর্নীতির আশ্রয়ে বিভিন্ন তফসিলি ব্যাংকের হিসাবে ২০০৯ সালের মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ও ২০১২ সালের লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের ২(য) ধারায় সন্দেহজনক লেনদেন করেন। তার এ লেনদেনে অর্থের উৎস নিয়ে প্রশ্ন ছিল।

এ লেনদেন অসামঞ্জস্যপূর্ণ। এতে তিনি ২০ কোটি ৭৪ লাখ ৩২ হাজার টাকা মানি লন্ডারিং করেন, যা ২০১২ সালের মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের ২(শ) ধারার (১) উপধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

এছাড়া এ প্রক্রিয়ায় ‘দুর্নীতি’র মাধ্যমে অর্জিত তার সম্পদ ওই আইনের ২(গ) ধারা অনুযায়ী অপরাধলব্ধ আয়।

প্রজন্মনিউজ/মেহেদী

এ সম্পর্কিত খবর

১০ টাকার জন্য রিকশা চালককে কুপিয়ে হত্যা

আবেগী হয়ে রোশনের ২ পোস্টে  যা লিখলেন শ্রাবন্তী

খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ানো বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

১১ সাংবাদিক নেতার ব্যাংক হিসাব তলবে সম্পাদক পরিষদের উদ্বেগ

আফগান সমস্যার সমাধান জাতিসংঘ করতে পারবে এমনটা উদ্ভট কল্পনা : জাতিসংঘ মহাসচিব

প্রমাণ  মিলল নুসরাতের ছেলের বাবা যশের

টাইম ম্যাগাজিনের ১০০ প্রভাবশালীর তালিকায় মোল্লা গনি বারাদার

ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি করায় কুষ্টিয়ায় যুবক গ্রেপ্তার

ত্বকের জেল্লা বাড়াতে সকালে এক কাপ কালো চা জরুরি

জাতিসঙ্ঘ অধিবেশনে যোগ দিতে আগামীকাল ঢাকা ছাড়বেন প্রধানমন্ত্রী

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন





ব্রেকিং নিউজ