আনারস কেন খাবেন

প্রকাশিত: ২৮ জুলাই, ২০২০ ০১:২৪:১৬

একদিকে করোনা সংক্রমণ, অন্যদিকে বর্ষাকাল। পেটের সংক্রমণও বাড়ছে। এই সময় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোও জরুরি। দূরে রাখতে হবে ক্রনিক সমস্যাগুলোকেও। তবে থাকতে এখন নিয়মিত ফল খাওয়া প্রয়োজন, এ কথা সবাই জানি। এখন সব রকম পুষ্টিগুণ পেতে, পেট পরিষ্কার রাখতে পারে একটি ফল। সেটি হলো আনারস। কিন্তু কেন আনারস খেতে পরামর্শ দিচ্ছেন পুষ্টিবিজ্ঞানীরা?

কারণ আনারসে রয়েছে রোগ প্রতিরোধী অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট। যেগুলো অক্সিডেটিভ স্ট্রেস কমায়। করোনা আবহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো ছাড়াও কো-মর্বিড ফ্যাক্টরগুলো নিয়ে বার বার সতর্ক করছেন চিকিৎসকরা। এ ছাড়াও লকডাউনে ওজনও অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে। তাই লো ক্যালোরিযুক্ত এই ফল খেলে ওজনও থাকবে নিয়ন্ত্রণে। এছাড়া এই ফলে প্রচুর ফাইবার থাকার কারণে পেটের পক্ষেও এটি উপকারী। ভিটামিন সি, পটাসিয়ামে ভরপুর এই ফল হৃদযন্ত্রের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বিশেষ উপকারী। তাই রোগ নিয়ন্ত্রণও সম্ভব হবে।

এই ফলে অনেকগুলো ডাইজেসটিভ এনজাইম বা পাচক উৎসেচক থাকে। এগুলোকে বলা হয় 'ব্রোমেলেইন'।

 ভারতীয় পুষ্টিবিদ সোমা চক্রবর্তী বলেন, প্রচুর পরিমাণে ফোলেট, পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ এই ফল। এতে আছে ম্যাঙ্গানিজও। তাই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে এটি। ফেনলিক অ্যাসিড বা ফ্ল্যাভেনয়েড থাকায় এই ফল পুষ্টিগুণে ভরপুর। এ ছাড়াও বর্ষাকালে হজমের একটা সমস্যা দেখা যায়। সে ক্ষেত্রে  ব্রোমেলেইন উৎসেচক প্রোটিনের অণুগুলোকে ভেঙে দেয়। ক্ষুদ্রান্ত্রের শোষণে সুবিধা হয়। ব্রোমেলেইন মাংসের প্রোটিনকেও ভাঙতে পারে। প্রদাহ নিয়ন্ত্রণে অর্থাৎ ক্রনিক ইনফ্ল্যামেশন রুখতে সাহায্য করে। প্রচুর পানি ও ফাইবার থাকায় কোষ্ঠকাঠিন্যের ক্ষেত্রেও এই ফল খাওয়া যেতে পারে।

কী পরিমাণ, কতটা খাবেন আনারস?

আনারসের রসের বদলে গোটা ফল খেলে তবেই পুষ্টি সম্পূর্ণ হয়। কারণ রস খেলে ফাইবার থাকে না।
নিয়মিত ছোট বাটির এক বাটি অর্থাৎ কয়েক টুকরো আনারস খেলে সহজেই বেশ কিছু রোগের হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যেতে পারে।
পাঁচ থেকে ছয় টুকরো আনারস প্রতিদিন ডায়েটে রাখলে তা যথেষ্ট উপকারী। একটা আনারস নয়, বরং প্রতিদিন নিয়ন্ত্রিত পরিমাণে খেতে হবে।

 

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন