টেক্সাসে আঘাত হেনেছে হারিকেন ‘হানা’

প্রকাশিত: ২৬ জুলাই, ২০২০ ১২:২৩:৩১

 

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের দক্ষিণাঞ্চলে আঘাত হেনেছে প্রবল শক্তিশালী হারিকেন ‘হানা’। এর আঘাতে অঞ্চলটিতে প্রাণঘাতী জলোচ্ছ্বাস, প্রবল বাতাস ও ভারি বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে সতর্ক করেছেন দেশটির কর্মকর্তারা। হানা এখন এক মাত্রার হারিকেনের পর্যায়ে আছে; পাঁচ ধাপের সাফির-সিম্পসন স্কেলের এটি সর্বনিম্ন মাত্রা।

এই অবস্থায় টেক্সাসের গভর্নর গ্রেগ অ্যাবট দক্ষিণাঞ্চলের ৩২টি কাউন্টিতে দুর্যোগের ঘোষণা দিয়েছেন। এ সময় করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে জরুরি বিভাগের কাজে জটিলতা দেখা দিতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

হারিকেন ‘হানা’ শনিবার পাদ্রি দ্বীপ দিয়ে স্থলে উঠে আসার পর এখন কর্পাস ক্রিস্টি ও ব্রাউন্সভিলের মধ্যবর্তী অঞ্চলে তাণ্ডব চালাচ্ছে, ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৪৫ কিলোমিটার বেগে বয়ে যাওয়া বাতাস ঘরের ছাউনি উড়িয়ে নিচ্ছে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বিবিসি।

শনিবার গভর্নর অ্যাবট বলেছেন, “সব হারিকেনই সাঙ্ঘাতিক চ্যালেঞ্জ নিয়ে আসে। এই চ্যালেঞ্জটি জটিল ও আরও গুরুতর হয়ে উঠেছে, দেখছি এটি রাজ্যের সবচেয়ে কোভিড-১৯ আক্রান্ত একটি এলাকায় তাণ্ডব চালাচ্ছে।”

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল হারিকেন সেন্টার (এনএইচসি) ওই এলাকার বাসিন্দাদের জরুরি বিভাগের পরামর্শ অনুসরণ করার আহ্বান জানিয়ে সতর্ক করে বলেছে, “পোর্ট ম্যানসফিল্ড থেকে সার্জেন্ট পর্যন্ত টেক্সাসের উপকূল বরাবর এলাকাজুড়ে প্রাণঘাতী জলোচ্ছ্বাস অব্যাহত থাকতে পারে।”

এদিকে ঘূর্ণিঝড় হানার প্রভাবে টেক্সাস অঙ্গরাজ্যে ভূমিধসের ঘটনা ঘটেছে। ঘূর্ণিঝড় হান্নার প্রভাবে যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যে ভূমিধসের ঘটনা ঘটেছে।

অন্যদিকে প্রশান্ত মহাসাগরে উৎপত্তি হওয়া ‘হারিকেন ডগলাস’ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৪৫ কিলোমিটার বাতাসের বেগ নিয়ে হাওয়াই দ্বীপের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে বলে জানিয়েছে এনএইচসি। ঝড়ের তাণ্ডবে ক্ষয়ক্ষতি, প্রবল বৃষ্টিপাতে বন্যা ও বিপজ্জনক উঁচু ঢেউয়ের সতর্কর্তা জারি করেছে ন্যাশনাল হারিকেন সেন্টার।

এই দুটি ঝড়ের গতিবিধির ওপর তার প্রশাসন গভীরভাবে নজর রাখছে বলে এক টুইটে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

এমনিতেই করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় হিমশিম খাচ্ছে টেক্সাস, তার পাশাপাশি আবার ‘হানার’ দুর্যোগ উপস্থিত হল। এ পর্যন্ত রাজ্যটিতে তিন লাখ ৮০ হাজারেরও বেশি কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছে, তাদের মধ্যে মারা গেছে প্রায় পাঁচ হাজার জন।

 

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ