অনেক হয়েছে, এবার কঠোর ব্যবস্থা নেবেন জোফরা আর্চার

প্রকাশিত: ২২ জুলাই, ২০২০ ০৩:৩৮:৫৮

বর্ণবিদ্বেষী আচরণ যেন পিছু ছাড়ছে না ইংল্যান্ডের ক্যারিবীয় বংশোদ্ভূত পেসার জোফরা আর্চারের। গতবছর নিউজিল্যান্ড সফরে গিয়ে খেলার মাঠেই বর্ণবাদী মন্তব্য শুনতে হয়েছে আর্চারকে। সে ঘটনায় তোলপাড় হয়েছে অনেক। বছরখানেক না ঘুরতেই ফের একই আচরণের শিকার এ ইংলিশ গতিতারকা।

তবে এবারের প্রেক্ষাপট ও ক্ষেত্রটা ভিন্ন। সম্প্রতি ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের বায়ো সিকিউর প্রোটোকল ভঙ্গ করায় এক ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন আর্চার। তারপর থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একের পর এক বর্ণবাদী মন্তব্য শুনছেন আর্চার। তার করা ভুলের জন্য গায়ের রঙ তুলে কটাক্ষ করা হচ্ছে। এতে ফের ক্ষেপেছেন আর্চার। সাফ জানিয়েছেন এবার আর চুপ থাকবেন না তিনি। যারা তাকে এসব মন্তব্য শুনিয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেবেন। সেলক্ষ্যে এরই মধ্যে ইন্সটাগ্রামে কটুক্তিকারী বেশ কয়েকজন তথ্য ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডে (ইসিবি) জমা দিয়েছেন আর্চার।

ইংলিশ সংবাদ মাধ্যম ডেইলি মেইলে নিজের কলামে এসব কথা লিখেছেন আর্চার। সাফ হুঁশিয়ারি দিয়েছেন, ‘আর নয়, অনেক হয়েছে।’ এখন থেকে বর্ণবাদের বিরুদ্ধে আরও শক্ত অবস্থান নেবেন বলে জানিয়েছেন এ ২৫ বছর বয়সী পেসার। তার লেখা কলামের উল্লেখযোগ্য অংশ নিচে তুলে ধরা হলো:

‘গত কয়েকদিনে আমি ইনস্টাগ্রামে অনেক বাজে ব্যবহার পেয়েছি। তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি, অনেক হয়েছে, আর নয়। ক্রিস্টাল প্যালেসের ফুটবলার উইলফ্রেড জাহাকে ১২ বছর বয়সী ছেলের বর্ণবাদী মন্তব্যের পর থেকে আমি ঠিক করেছি এখন আর কোনকিছু এমনিই যেতে দেবো না। তাই ইসিবিতে অভিযোগ করেছি আমি। এখন বাকিটা যথাযথ নিয়ম মেনেই এগুবে।’

‘এই সপ্তাহটা আমাকে দেখিয়েছে যে, আমি যাই করি না কেন, সেটা মুখরোচক আলোচনার বিষয় হয়ে যাবে। এমনকি যদি একটু জোরে হাঁচি দেই, সেটিও শিরোনাম হয়ে যাবে। আমি গত কয়েকদিনে অনেক বেশি নেতিবাচকতা দেখতে পেয়েছি। যখনই ক্রিকেট বিষয়ে কিছু পোস্ট করা হয়, সবার একটাই প্রতিক্রিয়া, সে (আর্চার) ওভাররেটেড। অথচ আমি মাত্র ৮ টেস্ট খেলেছি। একজন খেলোয়াড় মাত্র ৮ টেস্টেই কীভাবে ওভাররেটেড হয়?’

‘আমি বাধ্য হয়ে সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইল আনফলো এবং মিউট করেছি। যাতে করে এসব না দেখতে হয়। আমি আর এসবে ফেরত যাচ্ছি না। এগুলো পুরোপুরি বেহুদা আলোচনা। মাঠে আবার দুই উইকেট নিলেই সবাইকে আমার পক্ষে দেখা যাবে। সময়টাই এমন, এই পরিবর্তনশীল পৃথিবীতেই বাস করছি আমরা।’

‘কোভিড-১৯ প্রটোকল ভঙ্গ করে আইসোলেশনে যাওয়ার পর প্রথমবার যখন আমি নিজের ঘর থেকে বেরিয়েছি, তখন দেখলাম আমার প্রতিটা পদক্ষেপেই ক্যামেরার শাটারের শব্দ। এমন দৃশ্য আমাকে অপ্রস্তুত করে তুলেছিল। আমি জানি যেটা করেছিলাম, সেটা অনেক বড় ভুল ছিল। কিন্তু আমি কোনো অপরাধ করিনি এবং আমি আবার নিজেকে উপভোগ করতে চাই।’

‘হ্যাঁ আমি দুই ম্যাচের মাঝে সাউদাম্পটন থেকে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে যাওয়ার পথে সরাসরি না গিয়ে ভুল করেছি। কিন্তু মানুষ মাত্রই ভুল করে। আমিও এবার করে ফেলেছি। এটা শেষ হয়ে গেছে। আমি এখন ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছি।’

প্রজন্মনিউজ২৪/ফরিদ

 

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ