প্রবাসীরা পাঠিয়েছেন ৫১ হাজার ৫১০ কোটি টাকা

প্রকাশিত: ১৭ মে, ২০২০ ১১:৩৪:২৩

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসের কবলে প্রবাসী বাংলাদেশিরাও। বিভিন্ন দেশে আক্রান্ত হয়েছেন কয়েক হাজার বাংলাদেশি। ইতোমধ্যে মারা গেছেন প্রায় ৫শ'র অধিক বাংলাদেশ।

এমন পরিস্থিতিতেও বন্ধ নেই দেশে টাকা পাঠানো। এই করোনা পরিস্থিতির সাড়ে ৪ মাসে এই রেমিটেন্স যোদ্ধারা দেশে টাকা পাঠিয়েছেন ৫১ হাজার কোটি টাকার বেশি।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ১ কোটিরও বেশি বাংলাদেশি এখন বিদেশে কাজ করছেন। যার মধ্যে ৭৫ শতাংশেই আছেন মধ্যপ্রাচ্যে। গতবছর এই প্রবাসী বাংলাদেশিরা ব্যাংকিং চ্যানেলে ১৮ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলার বা ১ হাজার ৮৩০ কোটি ডলারের প্রবাসী আয় পাঠিয়েছেন।

কিন্ত এবার করোনা সংকটের মধ্যে চাকরি নিয়েই চিন্তায় প্রবাসীরা। অনেকের বেতন কমে গেছে। অনেকের কাজ নেই। অনেক দেশে লকডাউন। রেমিট্যান্স হাউস বন্ধ। অনেককে দেশে ফিরতে হচ্ছে। সবমিলিয়ে অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ।

তবুও প্রবাসীরা দেশে টাকা পাঠানো পুরোপুরি বন্ধ করে দেননি। বরং ধারদেনা করে হলেও এখনো চেষ্টা করছেন টাকা পাঠাতে। আর সামনে ঈদের কারণে মে মাসে প্রবাসী আয় বাড়তির দিকে। সবমিলিয়ে এ বছরের জানুয়ারি থেকে ১২ মে পর্যন্ত মোট ৬০৬ কোটি ডলার পাঠিয়েছেন বাংলাদেশি টাকায়, যা ৫১ হাজার ৫১০ কোটি টাকা। মে মাসে যেহেতু ঈদ, এই মাসে প্রবাসী আয় বাড়ার ধারায় রয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের জুলাই থেকে চলতি অর্থবছরে (জুলাই থেকে এপ্রিল পর্যন্ত) প্রবাসীরা ১ হাজার ৪৮৫ কোটি ৬০ লাখ ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। তবে ডিসেম্বরে করোনা শুরুর পর জানুয়ারি মাস থেকেই প্রবাসী আয় কমতে শুরু করে। এর মধ্যে জানুয়ারিতে ১৬৩ কোটি ডলার ও ফেব্রুয়ারিতে ১৪৫ কোটি ডলার এসেছে।

তবে করোনার কারণে ব্যাপকভাবে লকডাউন শুরু হওয়ায় মার্চে এসেছে ১২৮ কোটি ডলার। যা আগের বছরের মার্চের চেয়ে ১২ শতাংশ কম। আর এপ্রিলে প্রবাসীরা ১০৮ কোটি ১০ লাখ ডলার পাঠিয়েছেন।

তবে সামনে যেহেতু ঈদ, তাই মে মাসে প্রবাসী আয়ের ধারা বেড়েছে। মে মাসের প্রথম দুই সপ্তাহেই ৬২ কোটি ৪ লাখ ডলারের প্রবাসী আয় এসেছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম।

প্রজন্ম নিউজ/ নুর

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন