খালেদা জিয়ার বাসায় পুলিশি নিরাপত্তা চেয়ে আবেদন

প্রকাশিত: ৩০ মার্চ, ২০২০ ১০:৪৮:৫৬

প্রায় ২৫ মাস পর গত ২৫ মার্চ শর্তসাপেক্ষে মুক্তি পেয়েছেন ২ মামলায় ১৭ বছরের সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। বর্তমানে তিনি গুলশানে নিজ বাসা ফিরোজায় অনেকটা হোম কোয়ারেনটাইনে দিন কাটাচ্ছেন। নেতাকর্মীদের তেমনই কেউ তাঁর দেখা পাচ্ছেন না। আগামী আরও বেশ কয়েক দিন তিনি হোম কোয়ারেনটাইনে থাকবেন। দলটির শীর্ষ নেতারাও আগে নেত্রীর সুস্থতা ও সুস্বাস্থ্যর দিকে গুরুত্ব দিচ্ছেন। 

এবার বেগম জিয়ার গুলশান-২ এর ৭৯ নম্বর রোডের বাসা ‘ফিরোজা’র সামনে পুলিশি নিরাপত্তা চেয়ে আবেদন করা হয়েছে। 

রবিবার রাতে বিএনপি চেয়ারপাসনের মিডিয়া উইং সদস্য শায়রুল কবির খান গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন। 

তিনি জানান, বেগম জিয়ার মুক্তি পাওয়ার দিনই অর্থাৎ গত ২৫ মার্চ তাঁর একান্ত সচিব আবদুস সাত্তার পুলিশ প্রধান (আইজিপি) বরাবর এ সংক্রান্ত চিঠি দেন। চিঠির অনুলিপি ডিএমপি কমিশনার ও অতিরিক্ত আইজিপির কাছেও পৌঁছানো হয়েছে।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট ও জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট- এই দুই মামলায় ১৭ বছরের সাজাপ্রাপ্ত হয়ে ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে কারাভোগ করছিলেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। এর মধ্যে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে গেল বছরের এপ্রিলে তাঁকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। এরপর থেকে গত প্রায় ১১ মাস ধরে সেখানেই কারা নজরদারিতে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি। 

মুক্ত থাকাকালীন বাসায় থেকেই চিকিৎসা নিতে হবে এবং তিনি বিদেশ গমন করতে পারবেন না- এই দুই শর্তে ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১-এর উপধারা ১ ধারা অনুযায়ী বয়সের বিষয়টি বিবেচনায় রেখে মানবিক কারণে বেগম জিয়ার দণ্ডের কার্যকারিতা ৬ মাসের জন্য স্থগিত করে তাঁর মুক্তির আদেশে সায় দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

দীর্ঘদিন পর নেত্রীর মুক্তিতে সারা দেশে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখা দিয়েছে। কেন্দ্রের পাশাপাশি চাঙ্গা হয়ে উঠেছে বিএনপির তৃণমূলের রাজনীতিও।

প্রজন্মনিউজ২৪/নুর

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ