করোনা সন্দেহ: চিকিৎসা-পরীক্ষা ছাড়াই মৃত্যু যুবকের

প্রকাশিত: ২৯ মার্চ, ২০২০ ০২:১৭:৫৫

নওগাঁর রাণীনগরে ঢাকা থেকে আসা আল আমিন (২২) নামের এক যুবককে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে বাড়িতে উঠতে দেয়নি গ্রামবাসী।

তাকে দ্রুত হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার রাতে মারা যান তিনি।

এর আগে তাকে আরো তিনটি হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়।

আল আমিন উপজেলার অলংকার দীঘি গ্রামের মকলেছুর রহমানের ছেলে। তার লাশ গ্রামে নিয়ে আসলে গ্রামবাসী করোনা ভাইরাস সন্দেহে তার মৃতদেহের কাছে যাচ্ছে না। কিন্তু আল আমিন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত কিনা সেই পরীক্ষা কোন হাসপাতালের চিকিৎসকরা করেননি। কিংবা কোন নমুনাও সংগ্রহ করেননি।

আল আমিনের বাবা মকলেছুর রহমান জানান, আল আমিন দীর্ঘদিন ধরে ঢাকায় একটি কাপড়ের দোকানে কর্মচারী হিসেবে কাজ করতেন। শুক্রবার রাতে তিনি গায়ে প্রচণ্ড জ্বর আর কাশি নিয়ে খুব অসুস্থ অবস্থায় ঢাকা থেকে নওগাঁয় এসে পৌঁছান। এর পর শনিবার সকালে বাড়িতে আসার সময় তিনি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে স্থানীয় মেম্বার ও গ্রামের কিছু লোক তাকে গ্রামে উঠতে দেননি। ফলে বাধ্য হয়ে সকালেই চিকিৎসার জন্য আদমদীঘি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তার কোনো চিকিৎসা না করেই ফিরিয়ে দেন সেখানকার চিকিৎসকরা।

এরপর আবারও ছেলেকে ফিরিয়ে নিয়ে ভেটি কমিউনিটি ক্লিনিকে নিয়ে যান বাবা। সেখানে চিকিৎসার কোনো ব্যবস্থা না করেই বারান্দায় আল আমিনকে মূর্মূষ অবস্থায় রাখা হয়। পরে স্থানীয়রা বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানালে পরে তার সহযোগিতায় চিকিৎসার জন্য প্রথমে রাণীনগর হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়। সেখানে করোনা ভাইরাস সন্দেহে চিকিৎসকরা দেখেই হাতে কাগজ ধরিয়ে দিয়ে নওগাঁ সদর আধুনিক হাসপাতালে পাঠান।

নওগাঁ হাসপাতালে পৌঁছার পর সেখানেও আল আমিনকে ভালোভাবে না দেখে কোনো চিকিৎসা না দিয়েই ‘রাজশাহী নিয়ে যান’ বলে হাতে একটি কাগজ ধরিয়ে দেন। এরপর রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানেও কোনো পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই কিছু ওষুধ ও ইনজেকশন লিখে দিয়ে চলে যান চিকিৎসকরা।

প্রজন্মনিউজ২৪/নুর

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ