ময়মনসিংহের ২ সাংসদ হোম কোয়ারেন্টাইনে

প্রকাশিত: ২৪ মার্চ, ২০২০ ১২:২৯:৩৬ || পরিবর্তিত: ২৪ মার্চ, ২০২০ ১২:২৯:৩৬

ময়মনসিংহ-৭ (ত্রিশাল) আসনের সংসদ সদস্য হাফেজ মাওলানা রুহুল আমিন মাদানী ও ময়মনসিংহ-১১ (ভালুকা) আসনের কাজিম উদ্দিন আহম্মেদ ধনুসহ দু’টি আসনের সংসদ সদস্যরা হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন।

তারা দুজনই সরকারদলীয় সংসদ সদস্য। এদিকে কাজিম উদ্দিন আহম্মেদ ধনু গত শনিবার ভারতের মুম্বাই থেকে ফিরে ঢাকায় অবস্থান করছেন বলে জানা গেছে।

অন্যদিকে হাফেজ মাওলানা রুহুল আমিন মাদানী এমপি ওমরাহ পালন শেষে ৭ মার্চ দেশে ফিরে নিজ এলাকায় আসেন। এরপর ১৭ মার্চ পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে তার অবাধ বিচরণ ছিল বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। এরআগে গত ৩ মার্চ সৌদি আরবে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়।

এর পরের সপ্তাহেই বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে সব মসজিদে জামাতে নামাজে পড়া বন্ধ ঘোষণা করে দেশটি। এমন প্রেক্ষাপটেই দেশে ফেরেন এমপি মাদানী। পরে ১০ দিনের মাথায় যোগ দেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে। স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত আলোচনা সভা, কেক কাটা ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে দলীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তিনি।

মুজিব জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের এসব ছবি ও ভিডিও নিজের ফেসবুক পেজে আপলোড করেন এমপি মাদানী। এরপর টানা দুই দিন তিনি দুটি স্ট্যাটাস দেন, যেখানে তিনি লেখেন- প্রিয় ত্রিশালবাসী, সরকারের নির্দেশ, করোনাভাইরাসের কারণে যে কোনো ধরনের জমায়েত, অনুষ্ঠান, খেলাধুলার সমাবেশ থেকে বিরত থাকুন। ধন্যবাদ।

অপরটিতে লেখেন, আল্লাহ পাকের রহমতে আমি ভালো আছি। ০৭/০৩/২০২০ তারিখে পবিত্র ওমরাহ পালন করে দেশে ফিরে আসি। আমি হোম কোয়ারেন্টাইনে আছি। দেশ ও জাতির স্বার্থে বিদেশ থেকে আগত সকল ভাই বোনেরা স্বেচ্ছায় কোয়ারেন্টাইনে চলে আসুন। আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য হাফেজ রুহুল আমিন মাদানীর দেওয়া দুটি ফেসবুক স্ট্যাটাস বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, স্বাস্থ্য অধিদফতরের নির্দেশনা মোতাবেক তার ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার কথা। কিন্তু সেই হিসাবে তিনি হোম কোয়ারেন্টাইনে থেকেছেন মাত্র ১০ দিন। উল্টো ১০ দিনের মাথায় তিনি নিজেই নিয়ম ভেঙে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন এবং আলোচনা সভায় প্রায় ২০ মিনিট বক্তব্য রাখেন। সেই আলোচনা সভায় বক্তব্যে তিনি বলেন, ১৫৫টি দেশে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে।

এ কারণে সরকার বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর প্রোগ্রাম অনেক শর্ট করেছে, যাতে বেশি মানুষ জমায়েত না হয়। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে সকালে ফুল দিতে আসি। তখন অনেক গ্যাদারিং হয়ে যাচ্ছিল। আজ সারা দেশে যেভাবে প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছিল, এটা সীমিত আকারে হওয়ার কথা নয়। সরকারি নির্দেশে এই প্রোগ্রাম সংক্ষিপ্ত। সীমিত আকারে অনুষ্ঠান, তাই আমি কাউকে বলি নাই। উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউএনও সাহেব বলছেন, আপনাকে অনুষ্ঠানে থাকতে হবে। আমি একাই এসেছি।

এ বিষয়ে স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘তিনি (এমপি মাদানী) এলাকায় আছেন শুনে দাওয়াত দিয়েছিলাম। তবে কবে সৌদি থেকে ফিরেছেন তা জানা ছিল না।

প্রজন্মনিউজ২৪/নুর

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন