সামিয়া হত্যা মামলায় আসামি হারুনের মৃত্যুদণ্ড

প্রকাশিত: ০৯ মার্চ, ২০২০ ০২:৫৭:৫০

রাজধানীর ওয়ারিতে শিশু সামিয়া আফরিন সায়মাকে ধর্ষণের পর হত্যা মামলার রায় ঘোষণা করা হয়েছে। রায়ে আসামি হারুন-অর-রশীদের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে ট্রাইব্যুনাল। সোমবার ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক কাজী আব্দুল হান্নান এ রায় ঘোষণা করেন।

সামিয়ার বাবা আব্দুস সালাম বলেন, ‘আসামি হারুন আমার মেয়ের ওপর পাশবিক নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করেছে। তার সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে। শাস্তি যেন দ্রুত কার্যকর হয় সেটা প্রত্যাশা করছি।’

বিচার প্রক্রিয়ার বিষয়ে আব্দুস সালাম বলেন, ‘মামলার বিচার কার্যক্রম খুব দ্রুততম সময়ের মধ্যে শেষ হয়েছে। এতে আমরা সন্তুষ্ট।’

তিনি আরো বলেন, ‘রায়টি দৃষ্টান্তমূলক হয়েছে। এ রায় দেখে এরকম পাশবিক নির্যাতন ঘটাতে যেন আর কেউ সাহস না পায়। প্রতিটি পরিবারকে যেন নিজের সন্তানদের নিয়ে ভীতসন্ত্রস্ত না থাকতে হয়।’

এর আগে গত ৫ মার্চ রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামিপক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শেষে রায় ঘোষণার জন্য আজকের তারিখ নির্ধারণ করে ট্রাইবুনাল। মোট ৫৮ দিনে এ মামলার বিচার কাজ শেষ করেন বিচারক।

উল্লেখ্য, গত ৫ জুলাই সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে সামিয়া আফরিন সায়মা তার মাকে খেলার কথা বলে প্রতিবেশী মনির হোসেনের ফ্লাটে যায়। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা বেজে গেলেও সামিয়া বাসায় ফিরে না আসায় তার মা তাকে ওই বাসায় খুঁজতে যায়। সেখানে সামিয়াকে না পেয়ে পরিবারের সবাই তাকে খুঁজতে থাকেন। অবশেষে বিল্ডিংয়ের ৯ম তলায় সামিয়ার পায়ের স্যান্ডেল দু’টি পড়ে থাকতে দেখা যায়। স্যান্ডেল দেখে সন্দেহ হলে ভেতরে গিয়ে রান্নাঘরে সামিয়ার রক্তাক্ত লাশ পাওয়া যায়।

পরে শিশু সামিয়াকে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় তার বাবা আবদুস সালাম গত ৬ জুলাই ওয়ারী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন। গত ৭ জুলাই কুমিল্লার ডাবরডাঙা এলাকা থেকে হারুন অর রশিদকে গ্রেফতার করা হয়। পরদিন আদালতে দোষ স্বীকার করে জবানবন্দী দেন তিনি। গত বছর ৩০ অক্টোবর হারুনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবির পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) ওয়ারী জোনাল টিম (নিরস্ত্র) মো: আরজুন। গত ২ জানুয়ারি মামলার একমাত্র আসামি হারুনের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করা হয়।


প্রজন্মনিউজ২৪/এমএসএস

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন