সঞ্চয়পত্র বিক্রিতে ভাটা জোয়ার সরকারের ব্যাংক ঋণে

প্রকাশিত: ০৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১২:২৫:০০ || পরিবর্তিত: ০৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১২:২৫:০০

সঞ্চয়পত্র বিক্রি ব্যাপক হারে কমে গেছে। আর সঞ্চয়পত্র কমে যাওয়ায় অর্থ সংকট মেটাতে সরকারকে ব্যাংকের দিকে হাত বাড়াতে হচ্ছে। চলতি অর্থবছরের শুরু থেকেই ব্যাংক থেকে সরকার ব্যাপক হারে ঋণ নিচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নানান কড়াকড়িতে চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রথম থেকেই সঞ্চয়পত্র বিক্রি কমতে শুরু করে।

এ ছাড়া অর্থবছরের প্রথম দিকে কত শতাংশ কর দিতে হবে তা নিয়ে ধোঁয়াশা ছিল। ফলে মানুষ সঞ্চয়পত্র বিমুখ হয়ে পড়ে। মূলত, সঞ্চয়পত্র কেনার ক্ষেত্রে কর শনাক্তকরণ নম্বর (টিআইএন) বাধ্যতামূলক করা, এক লাখ টাকার ওপরে হলে ব্যাংকের চেকের মাধ্যমে অর্থ দেওয়া, অনলাইনে আবেদনের পদ্ধতির কারণে একই ব্যক্তির বিভিন্ন জায়গা থেকে সঞ্চয়পত্র কেনা বন্ধ এবং অর্থের উেসর বিবরণ দেওয়ার নিয়মের কারণেই সঞ্চয়পত্র বিক্রি কমে যায়।

এছাড়া এক ব্যক্তি কত টাকার সঞ্চয়পত্র কিনতে পারবে তারও সীমা নির্ধারণ করে দেওয়ার কারণেও সঞ্চয়পত্র বিক্রি কমেছে। একজন ব্যক্তির জন্য সর্বোচ্চ ৬০ লাখ টাকা সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ করতে পারবেন। এদিকে সঞ্চয়পত্র থেকে অর্থ না পেয়ে সরকারকে ব্যাংকমুখী হতে হয়েছে। চলতি অর্থবছরের মাত্র পাঁচ মাসে বছরের লক্ষ্যমাত্রার ৯০ শতাংশ ব্যাংক ঋণ নিয়ে ফেলেছে সরকার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যে দেখা গেছে, অর্থবছরের প্রথম দিন ১ জুলাই থেকে গত ২১ নভেম্বর পর্যন্ত সরকার ব্যাংক খাত থেকে ৪২ হাজার ৬০৭ কোটি ৩২ লাখ টাকা ঋণ নিয়েছে। গত অর্থবছরের একই সময়ে এ খাত থেকে ঋণের পরিমাণ ছিল। গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরে পুরো সময়ে সরকার ব্যাংকিং খাত থেকে ঋণ নিয়েছিল ২৬ হাজার ৪৪৬ কোটি টাকা। চলতি বাজেটে সরকারের ব্যাংক ৪৭ হাজার ৩৬৪ কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে।

প্রজন্মনিউজ২৪/আঃমান্নান

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ