ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সপ্তাহ ২০১৯

প্রকাশিত: ০৭ নভেম্বর, ২০১৯ ০৬:৪০:৪৭ || পরিবর্তিত: ০৭ নভেম্বর, ২০১৯ ০৬:৪০:৪৭

সচেতনতা প্রস্তুতি ও প্রশিক্ষন দুর্যোগ মোকাবেলায় সর্বোত্তম উপায় এই স্লোগানকে সামনে রেখে ঢাকার  তেজগাঁওতে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সপ্তাহ ২০১৯ শুরু হয়েছে। এ উপলক্ষে বুধবার  ৬ নভেম্বর  থেকে ১২ নভেম্বর পর্যন্ত  তেজগাঁও ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এর কার্যালয় চত্বরে সাধারণ জনগণকে আগুন নিয়ন্ত্রনের যন্ত্রপাতির ব্যবহার দেখানো যন্ত্রপাতির নাম কোনটা দ্বারা কি কাজ করতে হবে এবং কোথাও অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটলে তা কিভাবে নিরূপণ করতে হবে তা সম্পর্কে ধারনা দেওয়া হচ্ছে।

সেই সাথে যেকোনো ধরনের দুর্ঘটনা থেকে নিজেদের রক্ষার্থে নানা কৌশল সম্পর্কে জনগণকে সচেতন করছেন তেজগাঁও ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের কর্মীরা। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় তেজগাঁও ফায়ার সার্ভিস কার্যালয় চত্বরে বিভিন্ন ধরনের অগ্নি নির্বাপণের যন্ত্রপাতির সম্পর্কে সাধারণ মানুষের কৈাতুহল ও নানা প্রশ্নের জবাব দিচ্ছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত ফায়ার ফাইটাররা।

ফায়ার সার্ভিস সপ্তাহ উদ্দেশ্য সম্পর্কে জানতে চাইলে সেখানে দায়িত্বপ্রাপ্ত এক ফায়ার ফাইটার বলেন, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় মানুষের করণীয় এবং কোন কাজের জন্য কোন যন্ত্রপাতিটা ব্যবহার করতে হবে সে বিষয়ে জনগণকে জানানোর জন্যে তারা এই প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে।

অন্য এক ফায়ার ফাইটার বলেন, কোথায় আগুন লাগলে সাধারণ জনগণ যেন প্রথমিক ভাবে আগুন নেভানোর কাজ করতে পারে এবং বাসাবাড়িতে অগ্নি নির্বাপণের যন্ত্রপাতি ক্রয় করে রাখতে পারে সে জন্যে তাদের এই সকল সরঞ্জামের নাম ও ব্যবহার জানাতে তারা এই উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

উল্লেখ্য, ১৯৪৭ সনে এ অঞ্চলের ফায়ার সার্ভিসকে পূর্ব পাকিস্তান ফায়ার সার্ভিস নামে অভিহিত করা হয়। ১৯৫১ সনে আইনী প্রক্রিয়ায় সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তর সৃজিত হয়। ১৯৮২ সালে ফায়ার সার্ভিস পরিদপ্তর, সিভিল ডিফেন্স পরিদপ্তর এবং সড়ক ও জনপথ বিভাগের উদ্ধার পরিদপ্তর-এই তিনটি পরিদপ্তরের সমন্বয়ে বর্তমান ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরটি গঠিত হয়।

প্রজন্মনিউজ২৪/মামুন

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ