আমাকে ২১ জনের বিরুদ্ধে খেলতে হত: শোয়েব আখতার

প্রকাশিত: ০২ নভেম্বর, ২০১৯ ০৪:৫২:৪৪

পাকিস্তানের ক্রিকেটে ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ নতুন কিছু নয়। আর এই অভিযোগে শাস্তিও পেয়েছেন অনেকেই। এই প্রসঙ্গেই এবার মুখ খুললেন পাকিস্তানের সাবেক তারকা পেসার শোয়েব আখতার।  ‘রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস’ সাফ জানিয়ে দিলেন, তার সময়ে কতটা গভীর ছিল এই সমস্যা। শুধু বিপক্ষ নয়, সতীর্থদের বিরুদ্ধেও খেলতে হয়েছিল তাকে, অভিযোগ শোয়েবের।

একটি টিভি টকশো'তে শোয়েব বলেন, পাকিস্তানকে কখনও প্রতারণা করব না, ম্যাচ ফিক্সিং করব না, এই বিশ্বাস সব সময় আমার ছিল। কিন্তু আমার চারপাশে ঘিরে থাকত ম্যাচ ফিক্সাররা। আমাকে ২১ জনের বিরুদ্ধে খেলতে হত। ওদের ১১ জন আর আমাদের ১০ জনের বিরুদ্ধে নামতে হতো। কে ম্যাচ ফিক্সার, তা বোঝা যেত না। তখন খুব ম্যাচ ফিক্সিং হতো। মোহাম্মদ আসিফ তো একবার আমাকে বলেই ফেলেছিল যে, কোন ম্যাচগুলোয় ওরা ফিক্সিং করেছে আর তা কীভাবে করেছে।

প্রসঙ্গত, ২০১১ সালে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের অভিযোগে পাঁচ বছরের জন্য নির্বাসিত হয়েছিলেন পাকিস্তানের দুই পেসার মোহাম্মদ আমির ও মোহাম্মদ আসিফ। ওপেনার সালমান বাটও সেই সময় স্পট ফিক্সিংয়ে জড়িয়ে পড়ে নির্বাসিত হন পাঁচ বছরের জন্য। আমির-আসিফের ম্যাচ ফিক্সিংয়ে জড়িয়ে পড়ার ঘটনা জেনে রেগে গিয়েছিলেন বলে দাবি করেছেন শোয়েব।

বিষণ্ণ সুরে তিনি বলেছেন, চেষ্টা করেছিলাম আমির ও আসিফকে বুঝানোর। প্রতিভার কী অপচয়। যখন এটা শুনেছিলাম, এতো হতাশ হয়ে পড়েছিলাম যে, দেওয়ালে ঘুঁষি মেরে বসেছিলাম। পাকিস্তানের দুই সেরা বোলার, যারা কি না স্মার্ট, বুদ্ধিমান এবং আদর্শ দুই পেসার, তারা এভাবে নিজেদের নষ্ট করল। সামান্য অর্থের জন্য নিজেদের বিক্রি করল ওরা।  মোহাম্মদ আমির নির্বাসন কাটিয়ে জাতীয় দলে ফিরলেও আসিফ ও বাট আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রত্যাবর্তন করতে পারেননি।

প্রজন্মনিউজ২৪/  মামুন

 

 

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন