গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা

পারিবারিক কলহে ভাঙ্গলো সাজানো সংসার

প্রকাশিত: ১৮ অক্টোবর, ২০১৯ ১২:২৯:০৭ || পরিবর্তিত: ১৮ অক্টোবর, ২০১৯ ১২:২৯:০৭

হোসাইন -গোবিন্দগন্জ প্রতিনিধি: গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার তালুককানুপুর ইউনিয়নে স্ত্রী কর্তৃক নিজ স্বামীর ঘরে আগুন দিয়ে ঘর পুরে দেয়ায় কপাল পুড়লো গৃহবধূর।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার ৭নং তালুককানুপুর ইউনিয়নের মৃত আব্দুর রহমান মোল্লার ছেলে মোজাফফর মোল্লা (৩০) পাশবর্তী ফুলবড়ি ইউনিয়নের আফসার আলীর মেয়ে আতোয়ারা বেগমকে(২৭) প্রায় ৫ বছর আগে বিয়ে করে। সংসার জীবনে আতোয়ারা ও মোজাফফর দম্পতির এক ছেলে জন্মগ্রহণ করে।

সংসারে উভয়ের মনোমালিন্যের কারণে স্ত্রী আতোয়ারা স্বামীর গলায় ছুড়ি দিয়ে হত্যার চেষ্টা করে বলে স্বামী, তার পরিবার ও প্রতিবেশীরা দাবী করেন।  এরই ধারাবাহিকতায় গত ১২ অক্টোবর (শনিবার) দিনগত রাত ১ টার দিকে কোনো এক অজ্ঞাত কারণে স্বামী ও তার পরিবারকে বিপদে ফেলার লক্ষ্যে আতোয়ারা বেগম নিজ ঘরের গ্যাসের চুলায় আগুন ধরিয়ে দিয়ে পাশের আর এক ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়।

এর আগে আতোয়ারা ঘর থেকে যাতে কেউ বের হতে না পারে তাই বাড়ির সব ঘরের ছিটকানি টেনে বন্ধ করে দেয়। পরে প্রতিবেশীরা টের পেয়ে এবং ফায়ার সার্ভিসে খবর দিলে আগুন নিভিয়ে ফেলে। লোকজন আগুন নিভিয়ে ফেলায় এবং টিন সেড ঘর হওয়ায় কোনো মানুষ ও গরু ছাগলের কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি, তবে ঘরের টিনের ক্ষতি হয়েছে।

এব্যাপারে শনিবার বিকেলে এক সালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হলেও কোনো সুরাহা হয়নি। পরে ওইদিন সন্ধ্যায় তালুককানুপর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান আতিকের উপস্থিতিতে পুনরায় মোজাফফরের বাড়ির আঙিনায় এক সালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠককে আতোয়ারা বেগম ওই বাড়ির জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়ালে স্বামী স্ত্রীর সিদ্ধান্ত ক্রমে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। এ সময় স্বামী মোজাফফর তার স্ত্রী আতোয়ারাকে দেনমোহরের টাকা রাত প্রায় ১২টার দিকে ওই বৈঠককেই বুঝিয়ে দিয়ে কাজীর মাধ্যমে তালাকে উভয়ই সই স্বাক্ষর করে।

পরে আতোয়ারা ব্যবহৃত সব জিনিসপত্র ৩টি রিক্সাভ্যানে তুলে কোলের অবুঝ ৩ বছরের শিশু ছেলে আরাফাতকে নিয়ে বাবা ও মায়ের সাথে চলে যায়। এ সময় করুণ দৃশ্যের অবতারণা হয়। সালিশে স্থানীয়  ব্যক্তিসহ মধ্য রাত পর্যন্ত কয়েকশত নারীপুরুষ উপস্থিত ছিলেন।

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন