‘সংগঠনভিত্তিক ছাত্ররাজনীতি’ বন্ধের দাবি বুয়েট শিক্ষার্থীদের

প্রকাশিত: ১০ অক্টোবর, ২০১৯ ০৪:০৬:৩৯

রাজনীতির’ বিরুদ্ধে আন্দোলন করছেন বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থীরা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁদের দাবির বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন উল্লেখ করে এর জন্য তাঁরা প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

বুয়েটের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িত বুয়েট ছাত্রলীগের একদল নেতা–কর্মীদের ফাঁসিসহ ১০ দফা দাবিতে আজ বৃহস্পতিবার টানা তৃতীয় দিনের মতো ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করছেন শিক্ষার্থীরা। দুপুরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে আন্দোলনের নেতৃত্বে থাকা তিন শিক্ষার্থী প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান।

বুয়েটের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী শীর্ষ সংশপ্তক সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাদের আন্দোলন ছাত্ররাজনীতির বিরুদ্ধে নয়। আমরাও স্বীকার করে নিই যে আমাদের দেশের ইতিহাসে ছাত্ররাজনীতির গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল। কিন্তু আজকে বুয়েটে যে নষ্ট ছাত্ররাজনীতি হয়েছে, যার জন্য আমরা আসলে বেঁচে থাকতে পারছি না, যার জন্য হলে ও ক্যাম্পাসে প্রতিটি শিক্ষার্থী ত্রাসের মধ্যে থাকে, আমাদের আন্দোলন তার বিরুদ্ধে। প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই, কারণ তিনি এ বিষয়টির স্বীকৃতি দিয়েছেন। আমাদের আন্দোলনটি আসলে রাজনীতির বিরুদ্ধে নয়, বরং শুধুমাত্র বুয়েট ক্যাম্পাসে সংগঠনভিত্তিক ছাত্ররাজনীতির বিরুদ্ধে।’

শীর্ষ বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের দাবির বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন এবং এ বিষয়ে মিডিয়ার সামনে কথা বলেছেন। তিনি এও বলেন, কোনো প্রতিষ্ঠান চাইলে এটি বন্ধ করে দিতে পারে এবং সে ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় কোনো প্রভাব থাকবে না। এর জন্য প্রয়োজন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সৎসাহস ও সদিচ্ছা। আশা করব, প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের পর আমাদের প্রশাসন ও উপাচার্য এ বিষয়ে পিছিয়ে থাকবেন না। উপাচার্য স্যার আসবেন, আমাদের সব প্রশ্নের উত্তর দেবেন এবং আমাদের দাবিগুলো মেনে নেবেন।’

বুয়েট শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে পুলিশের সঙ্গে দুর্ব্যবহারের যে অভিযোগ এসেছে, তার বিষয়ে শীর্ষ বলেন, ‘পুলিশের সঙ্গে দুর্ব্যবহার বা আলামত আটকে রাখার চেষ্টার মতো কোনো কাজ আমরা করিনি। আমাদের দাবি ছিল, হলের সাধারণ শিক্ষার্থীদের জন্য যেন সিসিটিভি ফুটেজের একটি কপি রাখা হয়। আমরা সে বিষয়ে নেগোশিয়েট করেছি, পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছি এবং সেটি নিশ্চিত করা হয়েছে। উপাচার্যের সঙ্গে কোনো দুর্ব্যবহারও আমরা করিনি, আমরা তাঁর কাছে শুধু কিছু উত্তর চেয়েছি এবং দাবি জানিয়েছি।’

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা বুয়েট উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলামের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেছেন বলে যে অভিযোগ উঠেছে, সে বিষয়ে আন্দোলনের নেতৃত্বে থাকা বুয়েটের চতুর্থ বর্ষের ছাত্রী অন্তরা মাধুরী সাংবাদিকদের বলেন, ‘উপাচার্য স্যারকে আমরা মানববন্ধনের মাধ্যমে আসার সুযোগ করে দিয়েছিলাম। তাঁর সঙ্গে আমরা যদি কোনো দুর্ব্যবহার করে থাকি, তাঁর কাছে আমরা ক্ষমা প্রার্থনা করছি।’

উপাচার্যের প্রতি আহ্বান জানিয়ে অন্তরা বলেন, ‘স্যার, আপনি আসুন, আমরা শুধু কথা বলব। আপনার প্রতি আমাদের কোনো রাগ নেই।’

প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দিয়ে অন্তরা বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আমাদের বিষয়গুলোর স্বীকৃতি দিয়েছেন এবং এগুলো নিয়ে কথা বলেছেন। উনি আমাদের সবার অভিভাবক, ওনার জন্যই ব্যাপারগুলো এত দ্রুত সুষ্ঠুভাবে হয়ে আসছে। আমরা বিশ্বাস করি, এটা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্যই সম্ভব হয়েছে।’ এরপর প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাতে করতালি দেন আন্দোলনকারীরা।

আজ সকাল থেকে তৃতীয় দিনের মতো আন্দোলন শুরু করেন বুয়েটের শতাধিক শিক্ষার্থী। সকাল থেকেই ‘শিক্ষা-সন্ত্রাস, এক সঙ্গে চলে না’, ‘খুনিদের ঠিকানা, এই বুয়েটে হবে না’, ‘এক আবরার কবরে, লক্ষ আবরার বাহিরে’, ‘বহিষ্কার বহিষ্কার, খুনিদের বহিষ্কার’, ‘যাব না, যাব না, ফাঁসি ছাড়া যাব না’ ইত্যাদি স্লোগানে মুখর রয়েছে বুয়েটের শহীদ মিনার এলাকা।
প্রজন্মনিউজ২৪/নাবিল

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ