চশমা পরেও চমকে দিয়েছেন তারা

প্রকাশিত: ০৪ অক্টোবর, ২০১৯ ০৭:০৮:৫৬ || পরিবর্তিত: ০৪ অক্টোবর, ২০১৯ ০৭:০৮:৫৬

সেঞ্চুরি করার পর এলগার
সেঞ্চুরি করার পর এলগার

বিশাখাপত্তম টেস্টে আজ তৃতীয় দিনে সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন ডিন এলগার। টেস্ট অভিষেকে ‘পেয়ার’ পাওয়ার পর সর্বোচ্চ সেঞ্চুরি করা ব্যাটসম্যানদের মধ্যে এলগার এখন তৃতীয়।

ডিন এলগার নিখাদ ওপেনার। বাঁ হাতের স্পিনটা ‘পার্ট টাইম’। কিন্তু ভারতের মাটিতে দক্ষিণ আফ্রিকার এই দলটির সব খেলোয়াড়ের মধ্যে এলগারের টেস্ট উইকেট সংখ্যাই বেশি ! প্রথম ইনিংসে ভারতের রানপাহাড় (৭ উইকেটে ৫০২) গড়ার এটাও একটা কারণ—উপমহাদেশের মাটিতে প্রোটিয়া বোলারদের অনভিজ্ঞতা। এখন এ রানপাহাড় তাড়া করতে নেমে শুরুতেই পথ হারিয়ে ফেলার শঙ্কা ভর করেছিল প্রোটিয়া শিবিরে। তা হয়নি, কারণ এলগার লড়ে যাচ্ছেন এক প্রান্ত আগলে রেখে।

বিশাখাপত্তম টেস্টে কাল ৩ উইকেটে ৩৯ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ করেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। প্রথম চার ব্যাটসম্যানের তিনজনই ফিরে গিয়েছিলেন। ফলোঅনে পড়ার শঙ্কাটা তাই আজ তৃতীয় দিনের শুরু থেকেই ছিল। এলগার টেস্ট ক্যারিয়ারে নিজের ১২তম সেঞ্চুরি তুলে নেওয়ায় আপাতত ফলোঅনে পড়া নিয়ে ভাবনা নেই প্রোটিয়াদের। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত চা বিরতির আগে ৫ উইকেটে ২৯২ রান তুলেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ১৩৩ রান নিয়ে ব্যাট করছিলেন এলগার।

আজ প্রথম সেশনে তেম্বা বাভুমার উইকেট হারায় দক্ষিণ আফ্রিকা। প্রোটিয়ারা তখন ৪ উইকেটে ৬৩। এখান থেকে ফাফ ডু প্লেসির সঙ্গে ১১৫ রানের জুটিতে প্রাথমিক বিপর্যয় সামাল দেন এলগার। এরপর কুইন্টন ডি ককের সঙ্গে আরেকটি বড় জুটি গড়েছেন এলগার। মজার ব্যাপার, ২০১২ সালে পার্থে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এই এলগারের টেস্ট ক্যারিয়ারই শুরু হয়েছিল ‘জোড়া চশমা’ নিয়ে।

জোড়া চশমা মানে ‘পেয়ার’। কোনো ম্যাচের দুই ইনিংসেই শূন্য রানে আউট হলে ব্যাটসম্যানটি ‘পেয়ার’ পেয়েছেন বলা হয়। এলগারের টেস্ট অভিষেক হয়েছিল এই পেয়ার নিয়েই। কিন্তু এরপর তিনি এগিয়ে যাচ্ছেন দারুণ এক রেকর্ড গড়ার পথে। পেয়ার দিয়ে টেস্ট অভিষেকের পর এ সংস্করণে সবচেয়ে বেশি সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন ইংলিশ কিংবদন্তি গ্রাহাম গুচ। এলগার তাঁকে টপকে যাওয়ার পথে বেশ খানিকটা এগিয়ে গেছেন এই সাত বছরে।

১৯৭৫ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট অভিষেকে পেয়ার পেয়েছিলেন গুচ। এরপর দেখা পেয়েছেন ২০ সেঞ্চুরির। মারভান আতাপাত্তু তাঁর চেয়ে ৪ সেঞ্চুরি ব্যবধানে পিছিয়ে দুইয়ে আছেন। ১৯৯০ সালে ভারতের বিপক্ষে টেস্ট অভিষেকে পেয়ার পাওয়ার পর ১৬টি সেঞ্চুরি তুলে নেন এ লঙ্কান। এলগারও ঠিক চার ব্যবধানে পিছিয়ে আছেন আতাপাত্তুর চেয়ে। বিশাখাপত্তমের সেঞ্চুরিটি দিয়ে এ তালিকায় সাঈদ আনোয়ারকে পেছনে ফেললেন এলগার।

তাঁর আগে ভারতের মাটিতে প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সবশেষ সেঞ্চুরি হাশিম আমলার। ২০১০ সালে স্বাগতিকদের বিপক্ষে সেই সিরিজে সেঞ্চুরির সঙ্গে ডাবল সেঞ্চুরিও পেয়েছিলেন আমলা। এলগারের শুরুটা কিন্তু ভালোই হলো!

প্রজন্মনিউজ২৪/সবুজ

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন