একসময়ের বিএনপি পরিবার এখন আওয়ামীলীগ পরিবার

প্রকাশিত: ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১০:৫২:১৫ || পরিবর্তিত: ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১০:৫২:১৫

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের অন্তর্গত ১২ নং ওয়ার্ড একটি প্রাচীন ও ঘনবসতিপূর্ন ওয়ার্ড। এই ওয়ার্ড এক সময় চমৎকার রাজনৈতিক সংস্কৃতি ছিল। একই পরিবারের দুই ভাই এবং তাদের ভগ্নিপতি বিএনপি, আওয়ামীলীগ ও জামাতের মহানগর পর্যায়ের নেতা ছিল।

কিন্তু সময়ের ব্যবধানে এখানে পারিবারিক আধিপত্য বিস্তার হচ্ছে। এবং সকল সময় সরকারী দলের ছত্রছায়ায় থেকে বিরোধীমতকে দমন- নিপীড়ন করে যাচ্ছে ১২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সিকন্দর আলী ও তার ভাই কুখ্যাত মাদক ও জুয়া ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর সহ তাদের লুঙ্গী বাহিনী। এই পরিবারের সীমাহীন বিশৃংখলায় অতিষ্ট এই ওয়ার্ডবাসী। ১২ নং ওয়ার্ড বিএনপির ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায় সিকন্দর আলী ১ম বার তৎকালীন পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ছিলেন আর তার ভাই বস জাহাঙ্গীর ছিলেন ওয়ার্ড বিএনপির সেক্রেটারি।  এবং তখন বিরোধীদল আওয়ামীলীগ কে বিভিন্নভাবে সরকারীদলের ব্যানার দিয়ে অপদস্ত করতো এই পরিবার।

কিন্তু জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার ২ দফা ক্ষমতা থাকার পর সর্বশেষ নির্বাচনের পূর্বে এই পরিবারটি একসাথে আওয়ামীলীগে যোগদান করে। এবং তাদের কাজিরবাজার এ মদ ও জুয়ার ব্যবসাকে বৈধ করার পায়তারা করছে। এ বিষয়ে স্থানীয় কৃষকলীগের এক নেতা বলেন এরা বরাবর সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনার গডফাদার হিসেবে পরিচিত এমনকি আলোচিত লাকী হত্যাকান্ড এই পরিবার সরাসরি জড়িত কিন্তু তারা এখন না কি সরকারী দল। তারা আওয়ামীলীগের ব্যানারকে কাজে লাগিয়ে ওয়ার্ড এ চাঁদাবাজি, লুন্ঠস, জমি দখল, জুয়া ও তীর এর ব্যবসাকে জায়েজ করতে চাচ্ছে।

স্থানীয় পঞ্চায়েত কমিটির এক প্রভাবশালী সদস্য বলেন দ্রুত সময়ে যদি এই পরিবারকে নিয়ন্ত্রন না করা যায় তাহলে অপরাধমাত্রা এই ওয়ার্ডে আশংকাজনকহারে বাড়বে। এই ওয়ার্ডের মানুষের আকুতি একটিই লুঙ্গী জাহাঙ্গীর মুক্ত ওয়ার্ড, সন্ত্রাসমুক্ত ওয়ার্ড।

আর স্থানীয় আওয়ামীলীগের দাবি এরা হচ্ছে হাইব্রিড সুতরাং হাইব্রিড নেতৃত্বকে কেন্দ্র কখনও মেনে নেবে না এবং এদের সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াবে সংগঠন।

প্রজন্মনিউজ২৪/রেজাউল

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ