মেরাদিয়া হাটের সেরা ‘মহারাজা’

প্রকাশিত: ১০ অগাস্ট, ২০১৯ ১১:৫৩:২৪

কোরবানির ঈদের আর বাকি মাত্র দু’দিন। গতকাল শুক্রবার ছুটির দিনে পুরোদমে জমে উঠেছে রাজধানীর কোরবানির পশুর হাটগুলো। অন্য হাটগুলোর মতো জমেছে দক্ষিণ বনশ্রী সংলগ্ন মেরাদিয়া হাটও। এদিন হাটটিতে ক্রেতাদের ব্যাপক ভিড় লক্ষ করা গেছে। জুমার নামাজের পর থেকেই ক্রেতারা হাটে আসতে শুরু করেন। বেলা যত বেড়েছে ক্রেতার ভিড় তত বেড়েছে।

এদিন হাটের প্রধান আকর্ষণ ছিল ‘মহারাজা’। এই মহারাজা কোনো ব্যক্তি নন, বিশালাকারের অস্ট্রেলিয়ান জাতের যাঁড়। এর মালিক আদর করে নাম দিয়েছেন মহারাজা। গরুটিকে ঘিরে ছিল উৎসুক জনতার

ভিড়। যার চোখে পড়ছে সে-ই মোবাইল বের করে একটি ছবি তোলার চেষ্টা করেছে। আশপাশের অন্যান্য গরুর চেয়ে উচ্চতা ও আকারে অনেক বড় হওয়ায় দূর থেকেই চোখে পড়ে মহারাজাকে। সাদার মধ্যে কালোর আঁচড় থাকায় দৃষ্টি কাড়ছে আরও বেশি।

সিরাজগঞ্জ থেকে মহারাজাকে নিয়ে এসেছেন ব্যবসায়ী রবিউল ইসলাম। গত সোমবার মহারাজাসহ ৪০টি গরু নিয়ে ঢাকায় এসেছেন তিনি। সব গরুই তার নিজস্ব খামারের। দীর্ঘ যাত্রায় ক্লান্ত গুরুগুলোকে এতদিন বিশ্রামে রেখে আজকেই প্রথম হাটে এনেছেন। প্রায় পাঁচ ফুট উচ্চতা ও সাত ফুট দৈর্ঘ্যরে মহারাজা মেরাদিয়া হাটের সবচেয়ে বড় গরু বলে দাবি রবিউলের। ১৮-২০ মণ ওজনের মহারাজার দাম হাঁকা হয়েছে সাড়ে ৭ লাখ টাকা। পৌনে ৪ লাখ পর্যন্ত দাম উঠেছে বলে তার দাবি।

রবিউল ইসলাম দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘৪০টি গরুর মধ্যে মহারাজা সবচেয়ে বড় হলেও এর বয়স সবচেয়ে কম। অন্য গরুগুলোর বয়স যেখানে ৪-৫ বছর সেখানে মহারাজার বয়স মাত্র আড়াই বছর। এত অল্প বয়সেই সে অন্যগুলোর চেয়ে দ্বিগুণেরও বেশি বড় হয়েছে। আরও এক বছর রাখলে এর দাম হবে ১২-১৩ লাখ টাকা। বিক্রি না হলে প্রয়োজনে বাড়ি নিয়ে যাব।’

মেরাদিয়া হাটের আরেক আকর্ষণ ‘রাজা’। প্রায় ১২ মণ ওজনের লালচে কালো রঙের যাঁড়টির মূল্য হাঁকা হয়েছে সাড়ে ৪ লাখ টাকা। রাজাকে ঘিরেও উৎসুক জনতার ভিড় ছিল।

এদিকে এদিন বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত হাটে ক্রেতাদের ব্যাপক ভিড় থাকলেও তখন পর্যন্ত কোরবানির পশু তেমন বেশি বিক্রি হতে দেখা যায়নি। ক্রেতারা হাটে ঘুরছেন। পশু দেখছেন। কয়েকজন ক্রেতা জানালেন, অনেক বড় হাট। পছন্দের গরুটি দেখে-শুনে একটু সময় নিয়েই কিনতে চান তারা।

 

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন