গণমাধ্যমেসঠিকভাবে সব তথ্য আসেনা: স্বাস্থ্যের ডিজি

প্রকাশিত: ০৯ অগাস্ট, ২০১৯ ১০:২৯:০৫

ডেঙ্গুর প্রকোপের প্রেক্ষাপটে গণমাধ্যমে সব তথ্য সঠিকভাবে আসছে না দাবি করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ বলেছেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষজ্ঞ বি এন নাগপালের বক্তব্যও ভুলভাবে এসেছে।

বৃহস্পতিবার ঢাকায় দৈনিক যুগান্তর কার্যালয়ে আয়োজিত ‘ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণ ও সচেতনতায় করণীয়’ শিরোনামের এক গোলটেবিল আলোচনায় তিনি একথা বলেন।

ডেঙ্গু জ্বরে হাজার হাজার মানুষ আক্রান্ত হওয়ায় আতঙ্কের মধ্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার  দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া কার্যালয়ের জ্যেষ্ঠ কীটতত্ত্ববিদ নাগপাল গত গত ৫ অগাস্ট স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে এক সংবাদ সম্মেলনে এসেছিলেন।

ডেঙ্গুর বাহক এইডিশ মশার জীবনাচরণের দিকটি তুলে ধরে তিনি সকাল ও সন্ধ্যায় ঘরে অ্যারোসেল স্প্রে করার পরামর্শ দিয়েছিলেন, যা গণমাধ্যমে এসেছিল।

এই গোলটেবিল আলোচনায় কীটতত্ত্ববিদ মঞ্জুর চৌধুরী বলেন, “নাগপাল যেসব পরামর্শ দিয়ে গেছেন, আমরা তার সাথে একমত নই। তিনি আমাদের মিসলিডিং তথ্য দিয়ে চলে গেছেন।”

তখন আবুল কালাম আজাদ বলেন, “তিনি (নাগপাল) বলেছিলেন, প্রতি সপ্তাহে এক ঘণ্টা করে ওষুধ দিতে। কিন্তু গণমাধ্যমে খবর এসেছে, প্রতি দিন ওষুধ ছিটানোর কথা।”“তাহলে তো আর কোনো কাজ করতে হবে না, শুধু মশা মারতে হবে,” বলেন তিনি।

এই প্রসঙ্গ ধরে ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, “আমরা (চিকিৎসকরা) যা বলি, তা সঠিকভাবে গণমাধ্যমে আসে না সবসময়। এতে সম্পর্কের অবনতি হয়, ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়।”‘হিসাব করলে চিকিৎসা দেওয়া যাবে না’

এবার ডেঙ্গুতে মৃত্যুর সংখ্যা নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হিসাবের সঙ্গে গণমাধ্যমের পরিসংখ্যানের ফারাক দেখা দিয়েছে।

গোলটেবিলে এ বিষয়ে নিজেদের পরিসংখ্যানের পক্ষে যুক্তি দেখানোর এক পর্যায়ে আবুল কালাম আজাদ বলেন, “আউটডোরে রোগীর হিসাব করতে গেলে আর চিকিৎসা দেওয়া হবে না। আরও বেশি রোগী মারা যাবে।”

প্রজন্মনিউজ/দেলাওয়ার হোসাইন।

 

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ