হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু আজ

প্রকাশিত: ০৮ অগাস্ট, ২০১৯ ১১:৩৬:১০

মুসলমানদের অন্যতম আবশ্যকীয় ইবাদত পবিত্র হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হচ্ছে আজ। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা প্রায় ১৮ লাখের বেশি মুসল্লি এশার নামাজ আদায় করে মক্কার মসজিদুল হারাম থেকে প্রায় নয় কিলোমিটার দূরে মিনায় যাবেন। সেখানে রাতযাপন হজের অন্যতম সুন্নত। রাতযাপন শেষে মুসল্লিরা সারা দিন মিনাতেই থাকবেন। এখানে জোহর, আসর, মাগরিব, এশা ও ফজরের নামাজ আদায় করা মুস্তাহাব।

এখান থেকে পরশু সূর্যোদয়ের পর মুসল্লিরা যাবেন প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরে আরাফাতের ময়দানে। এ ময়দানে অবস্থান হজের মূল আনুষ্ঠানিকতার একটি (ফরজ)। ইহরামের কাপড় (আড়াই হাত বহরের আড়াই গজ কাপড় আর গায়ের চাদরের জন্য একই বহরের তিন গজ কাপড়) পরে জিকির-আসগারে মিনার পথে চলবেন হজযাত্রীরা। কেউ যাবেন গাড়িতে, কেউ বা হেঁটে।

প্রত্যেক হজযাত্রীকে নিজ নিজ মুয়াল্লিম কার্যালয় থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, কখন মিনার উদ্দেশে রওনা দেওয়া হবে। একই সঙ্গে দেওয়া হয়েছে মিনার তাঁবু নম্বরসংবলিত কার্ড। ওই কার্ড সব সময় গলায় ঝুলিয়ে রাখতে হয়।

৯ জিলহজ আরাফাতের ময়দানে মুসল্লিরা সূর্যাস্ত পর্যন্ত অবস্থান করবেন। সূর্যাস্তের পর প্রায় আট কিলোমিটার দূরে মুজদালিফার উদ্দেশে রওনা দেবেন মুসল্লিরা। সেখানে রাতযাপন ও পাথর সংগ্রহ করবেন হাজিরা। পরদিন ফজরের নামাজ আদায় করে মুজদালিফা থেকে আবার মিনায় ফিরে আসবেন তাঁরা।

মিনায় এসে বড় জামারাকে কঙ্কর নিক্ষেপ, কোরবানি ও মাথা মুণ্ডন বা চুল ছেঁটে স্বাভাবিক পোশাকে মক্কায় কাবা শরিফ তাওয়াফ করবেন। তাওয়াফ, সাই শেষে মিনায় ফিরে গিয়ে ১১ ও ১২ জিলহজ অবস্থান ও প্রতিদিন শয়তানকে তিনটি করে পাথর নিক্ষেপ করবেন।

এদিকে মক্কা বাংলাদেশ হজ কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, মিনায় জামারাতের কাছে মুয়াল্লিম নম্বর ৭ ও ৮-এর অধীনে থাকবেন বাংলাদেশ থেকে সরকারি ব্যবস্থাপনায় আসা হাজিরা। আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এজেন্সির মাধ্যমে আসা হাজিরা থাকবেন ৩, ৪, ৬, ১১, ২০, ৫৭, ৫৯, ৬০, ৭৫-৭৭, ৯৯, ১০১, ১০৩ থেকে ১৩৭ মুয়াল্লিম নম্বরের অধীনে। মিনায় হাজিদের সহায়তার জন্য ২৪/৬২ নম্বর তাঁবুতে পাঁচ দিন বাংলাদেশ হজ কার্যালয়ের কার্যক্রম চালানো হবে।

প্রজন্মনিউজ/দেলাওয়ার হোসাইন।

 

 

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন