বুড়ি হইলাম অ্যাপের কারণে?


খেয়াল করেছেন কি, কয়েক দিন ধরে সামাজিক মাধ্যমে ঘুরছে বৃদ্ধ চেহারার মানুষজন। অ্যাপের মাধ্যমে বাড়িয়ে বা কমিয়ে দিচ্ছে চেহারার বয়স।‘ফেস অ্যাপ’ নামে একটি অ্যাপ ব্যবহার করে এ ছবিগুলো তৈরি করা হচ্ছে।

তবে এমন অ্যাপ নতুন নয়, এর আগে স্ন্যাপচ্যাট অ্যাপ ব্যবহার করেও চেহারার বয়স কমিয়েছে ফেসবুকবাসী। যেকোনো একজন মানুষের ছবি নিয়ে ফিল্টার করে নির্ভুলভাবে তাকে বৃদ্ধ বানিয়ে দেওয়া হচ্ছে অ্যাপের মাধ্যমে। বিষয়টি যে বাস্তব নয়, তা তো জানাই। তবে ছবি দেখে চমকে যাচ্ছেন মানুষজন।

আসলে অ্যাপের এসব ছবি মানুষকে যতটা মজা দেয়, বাস্তব ছবিগুলো অতটা মজা দেয় না। টেকনোলজি ক্রাঞ্চ প্রতিবেদনমতে, অ্যাপটি তৈরি করেছেন ইয়ারোস্লাভ গনচারভ। তিনি বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি, বিনোদনমূলক বিষয় কিছু সময়ের জন্য প্রভাব ফেলে।

তবে ফটোরিয়ালিজম হলো সীমাহীন।’এমন কিছু হাতের সামনে পেয়ে গেলে একে এড়িয়ে যাওয়া সত্যিই কষ্টসাধ্য। অ্যাপটি নিয়ে ফেসবুকবাসীর ভেতর চলছে ব্যাপক তোলপাড়। এমনকি অনেক তারকাদের নিয়ে ট্রল করা হচ্ছে এ অ্যাপের মাধ্যমে।

জনপ্রিয় নায়িকা জয়া আহসান ও পূর্ণিমাকেও প্রবীণ বানিয়ে ট্রল করা হয়েছে অ্যাপটি ব্যবহার করে। অ্যাপটি নিয়ে বিভিন্নজন বিভিন্ন মন্তব্য করেছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক গীতি আরা নাসরিন তাঁর এক পোস্টে লিখেছেন, ‘কীয়্যাক্টাবস্তা!

ফেসবুকে সবাই চেহারা বদলে আমার মতো দেখতে হয়েছে! জাকারমামু আমারে বাঁচান।’সাংবাদিক ডি এ সৌরো তাঁর ওয়ালে লিখেছেন, ‘সবাই মিলে দেশটারে বৃদ্ধাশ্রম বানায়া ছারছেরে।’

প্রজন্মনিউজ২৪/মামুন