‘গৃহান্তরীণ’ এরশাদের নিষ্প্রভ ঈদ

প্রকাশিত: ০৫ জুন, ২০১৯ ১১:২৮:৩১

‘গৃহান্তরীণ’ হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ এবার নিজের জন্য ঈদের কোনো কেনাকাটা করেননি। গিফট করার জন্য কিছু পাঞ্জাবি ও শাড়ি লুঙ্গি কিনতে দোকানে গিয়েছিলেন তিনি।

ছোটো ভাই জি এম কাদের ও দলীয় নেতাকর্মীদের কাছ থেকে বেশ কয়েকটি নতুন পাঞ্জাবি উপহার পেয়েছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি। সেগুলো থেকেই কোনো একটি পরে নামাজ পড়তে যাবেন সাবেক এই রাষ্ট্রপতি। শারীরিক অসুস্থতায় অনেকটা ভেঙে পড়েছেন। ঠিকমতো উঠে দাঁড়াতে পারছেন না, হুইল চেয়ারেই তার একমাত্র ভরসা।

এবার বাসার কাছেই বারিধারা জামে মসজিদে ঈদের জামাত আদায় করবেন এরশাদ। অন্যান্য বছর গুলশান সেন্ট্রাল মসজিদে (আজাদ মসজিদ) ঈদের জামাত আদায় করতেন বলে বার্তা২৪.কম’কে জানিয়েছেন হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের এপিএস মঞ্জুরুল ইসলাম।

বরাবরই ঈদুল ফিতর ঢাকায় পালন করতেন এরশাদ। আর ঈদুল আজহা পালন করতেন রংপুরে। এবারের ঈদের নামাজের পর বেলা ১১টায় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে যাবেন। সেখানে নেতাকর্মীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন তিনি। অন্যান্য বছরের মতো এবারও বনানীতে চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে নেতাকর্মীদের আপ্যায়নের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

দুপুরে দিকে বাসায় ফিরবেন। বিকেলে নিমন্ত্রিত দেশি-বিদেশি ভিআইপি অতিথিদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন। এর বাইরে আর কোনো কর্মসূচি রাখা হয়নি। কর্মীবান্ধব এরশাদের এবারের ঈদ অনেকটা নিষ্প্রভ। নেতাকর্মীদের মনেও বিষাদের সুর।

বিগত বছরগুলোতে শপিংমল ঘুরে নিজেই নিজের পাঞ্জাবি পছন্দ করে কিনতেন। রোজার মধ্যে রংপুর থেকে ঘুরে আসতেন। কিন্তু এবার তার শরীর সায় দিচ্ছে না। অসুস্থতাজনিত কারণে গত সংসদ নির্বাচনের আগে থেকেই অনেকটা ‘গৃহান্তরীণ’ সময় পার করছেন এরশাদ।

এখন হাসপাতাল ও বাসার মধ্যেই সীমাবদ্ধ তার চলাফেরা। গত নির্বাচনের পর আর কোনো দলীয় কর্মসূচিতে অংশ নিতে দেখা যায়নি তাকে। শুধু ৩০ মে কূটনৈতিকদের সম্মানে ইফতারে কয়েক মিনিটের জন্য হাজির হয়েছিলেন।

ডিসেম্বরে অসুস্থ হয়ে পড়লেও মার্চের দিকে শরীর অনেকটা ভেঙে পড়েছিলো এরশাদের। এখন ধীরে ধীরে কিছুটা সুস্থ হয়ে উঠছেন, আগের তুলনায় কিছুটা ভালো। ক্ষুধামন্দা ছিলো সেটাও অনেকটা কমে গেছে। তবে তিনি নিজের ওপর আস্থা হারিয়ে ফেলেছেন বলে তার ঘনিষ্ঠরা দাবি করছেন। তাদের কাছে এরশাদ বলেছেন, আমি মনে হয় আর পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠতে পারবো না। এভাবেই বাকি জীবনটা পার করে দিতে হবে।

এরশাদের শারীরিক অসুস্থতার কারণে দলের নেতাকর্মীরাও উদ্বিগ্ন সময় পার করছেন। দলীয় কার্যক্রমওও অনেকটা কাটছাঁট করে চলছে।

সবশেষ গত বছরের ২০ নভেম্বর ইমানুয়েল কনভেনশন সেন্টারে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সামনে আনুষ্ঠানিক বক্তব্য রেখেছিলেন এরশাদ। এরপর আরও অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। ৬ ডিসেম্বর গাড়িতে করে অফিসের সামনে এলেও সেখানে বসেই কথা বলে চলে যান তিনি।

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন