ফিলিস্তিনিদের পাশে দাঁড়ানো বিশ্বের মুসলমানদের নৈতিক দায়িত্ব: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী

প্রকাশিত: ০১ জুন, ২০১৯ ১১:৫১:৪৯

স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা এবং আল-আকসা মসজিদকে ইসরাইলী দখলদার মুক্ত করা বিশ্বের সকল মানুষের বিশেষ করে মুসলমানদের নৈতিক দায়িত্ব বলে মন্তব্য করেছেন মুক্তিযুক্ত বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক। আন্তর্জাতিক আল-কুদ্স দিবস উপলক্ষে শুক্রবার বিকেলে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) মিলনায়তনে আয়োজিত এক সেমিনারে তিনি এ মন্তব্য করেন।

আল-কুদ্স কমিটি বাংলাদেশ-এর উদ্যোগে ‘আল-কুদ্স মুক্তির অন্বেষায়’শীর্ষক এক সেমিনারের প্রধানদ অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী আরো বলেন, দখলদার ইসরাইল গত কযেক দশক ধরে যেভাবে ফিলিস্তিনে নারী, শিশু ও বৃদ্ধসহ নির্বিচারে মানুষ হত্যা করছে তা সব ধর্মেই হারাম। তিনি বলেন বিশ্বের সকল মানবতাবাদী মানুষের উচিত ইসরাইলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানো।

আমরা এ সেমিনারের মাধ্যমে ফিলিস্তিনে ইসরাইলের বর্বর হামলার নিন্দা জানাই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের অধ্যাপক ও আল কুদ্স কমিটি বাংলাদেশ-এর সভাপতি প্রফেসর ড. শাহ কাউছার মুস্তফা আবুল উলায়ীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে নিযুক্ত ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের রাষ্ট্রদূত মুহাম্মাদ রেজা নাফার, ফিলিস্তিনের রাষ্ট্রদূত ইউসেফ এস ওয়াই রামাদান ও সিটি ইউনিভার্সিটির সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. বোরহান উদ্দিন বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক ড. ছিদ্দিকুর রহমান খান, ইস্টার্ণ প্লাস জামে মসজিদের খতিব মওলানা মুহাম্মদ রুহুল আমীন এবং বিশিষ্ট চিন্তাবিদ আবদুল্লাহ আল ক্বাফি। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন দৈনিক ইনকিলাবের সহকারী সম্পাদক জামাল উদ্দিন বারী। স্বাগত বক্তব্য রাখেন আল-কুদ্স কমিটি বাংলাদেশ-এর সহ-সভাপতি বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী এ.কে.এম. বদরুদ্দোজা।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, ১৯৭৯ সালে ইরানে ইসলামি বিপ্লব সফল হওয়ার পর মহান নেতা ইমাম খোমেনী (র) পবিত্র রমজান মাসের শেষ শুক্রবারকে কুদ্স দিবস ঘোষণা করেন। সেই থেকে ইরানসহ বিশ্বের বহু দেশে কুদ্স দিবস পালিত হয়ে আসছে। ফিলিস্তিন ও পবিত্র বায়তুল মোকাদ্দাস দখলদার ইহুদিবাদীদের হাত থেকে মুক্ত করার জন্যে মুসলমানদের জাগিয়ে তোলাই আল-কুদস দিবসের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য।

বক্তারা আরো বলেন, সম্প্রতি ইসলাম ও মানবতার দুশমন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু ফিলিস্তিনের মুক্তি সংগ্রামকে চিরতরে নিঃশেষ করার লক্ষে এক ভয়াবহ ষড়যন্ত্র মূলক চুক্তি (ডিল অফ দা সেঞ্চুরি/ শতাব্দীর সেরা চুক্তি) স্বাক্ষর করেছে। কিন্তুযায়নবাদী গুরুদের প্রেসক্রিপশনে রচিত কথিত ডিল অব দ্য সেঞ্চুরি ব্যর্থ হতে বাধ্য।

মধ্যপ্রাচ্যের নেতাদের অনেকেই ইতিমধ্যে এই গোপন চুক্তিকে প্রত্যাখ্যান করেছেন। বক্তারা বলেন, ফিলিস্তিন ও আল-আকসার বন্দিদশা পশ্চিমা সাম্রাজ্যবাদী শোষণ ও সামরিক ধ্বংসযজ্ঞ থেকে মধ্যপ্রাচ্য ও নিপীড়িত বিশ্বের রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক মুক্তির লক্ষ্য অর্জনের পথে অন্যতম অন্তরায়। মুসলমানদের ঐক্য এবং মানবতার প্রতি বিশ্বসম্প্রদায়ের কমিটমেন্ট সেই অন্তরায়ের অর্গল ভেঙ্গে দিতে পারে।

সেমিনারের পাশাপাশি  ফিলিস্তিন পরস্থিতি সর্ম্পকে   একটি আলোকচিত্র প্রর্দশনীরও আয়োজন করা হয়। সেমিনারের পূর্বে একটি প্রামাণ্য চত্রি দখোনো হয় এবং দুপুর ২.৩০ মিনিটে প্রেসক্লাবের সামনে নিপীড়িত ফিলিস্তিনিদের সমর্থনে একটি মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন