শিক্ষামন্ত্রীর ফোনে হঠাৎ প্রধানমন্ত্রীর কণ্ঠ,

প্রকাশিত: ০৬ মে, ২০১৯ ০৪:২৯:১৫

রাজধানীর সেগুনবাগিচার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে আজ সোমবার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশের সময় হঠাৎ করেই শিক্ষামন্ত্রীর মোবাইলে লন্ডন থেকে ফোন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের ও সংশ্লিষ্ট সবাইকে অভিনন্দন জানান। তখন বেলা পৌনে ১১টা। রাজধানীর সেগুনবাগিচার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হচ্ছে। হলভর্তি গণমাধ্যমের কর্মীরা ছাড়াও ১০টি বোর্ডের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা রয়েছেন। এত মানুষের মধ্যেও তখন একেবারে পিনপতন নীরবতা।

কারণ, অনুষ্ঠানের মঞ্চে তখন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি ফলের বিস্তারিত প্রকাশ করবেন। তাঁর পাশে আছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মুহিবুল হাসান চৌধুরী, মাধ্যমিক ও উচ্চ বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন প্রমুখ। শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এসএসসি ও সমমানের ফল ঘোষণা শুরুর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বাক্ষরিত একটি বাণী পড়ে শোনান। প্রধানমন্ত্রী একটি সফরে এখন যুক্তরাজ্যের লন্ডনে অবস্থান করছেন। লন্ডনের স্থানীয় সময় তখন প্রায় ভোর পৌনে ৬টা। বাণী পড়া শেষ হওয়ার পরপরই শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি ফল প্রকাশের লিখিত বক্তব্য পাঠের দিকে মনোযোগ দেন।

এমন সময় হঠাৎ ডা. দীপু মনির ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনের রিংটোন বেজে ওঠে। মন্ত্রী ফোনের দিকে তাকিয়ে পুরো হলের সবাইকে চুপ করার ইঙ্গিত দেন, তারপর ফোনটি রিসিভ করেন। অপর প্রান্ত থেকে লাউড স্পিকারে ভেসে এলো প্রধানমন্ত্রীর কণ্ঠস্বর। লন্ডনে অবস্থানরত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষামন্ত্রীর মাধ্যমে ফোনে পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী ছাত্রছাত্রী ও তাদের অভিভাবকদের অভিনন্দন জানান। একই সঙ্গে তিনি অনুত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের মনোবলকে আরো শক্ত করে আগামীর জন্য প্রস্তুতি গ্রহণের পরামর্শ দেন।

প্রধানমন্ত্রী ফোনে বলেন, ‘এখানে এখন অনেক ভোর। আমি আনন্দমুখর এ সময়টির জন্যই অপেক্ষা করছিলাম। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকেই আমি ফল ঘোষণার এ মুহূর্তটিতে অংশ নিয়ে আসছি। লন্ডনে থাকায় এবার আমি ফল ঘোষণার সময় উপস্থিত না থাকতে পারলেও আপনাদের সঙ্গেই আছি। আওয়ামী লীগ সভাপতি আরো বলেন, ‘যারা পাস করেছ, তোমাদের সবাইকে অভিনন্দন। অভিভাবকদের প্রতিও আন্তরিক অভিনন্দন রইল। ছাত্রছাত্রীদের উদ্দেশে সরকারপ্রধান আরো বলেন, ‘তোমাদের পথ চলা শুরু হলো। আরো অনেক দূর যেতে হবে। এ ফলাফলের ওপর ভিত্তি করেই তোমাদের নিজেদের আগামী দিনের জন্য যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

দেশ ও জাতির সেবায় তোমরা এগিয়ে আসবে। জাতি তোমাদের অপেক্ষায় রয়েছে। উজ্জ্বল ও সোনালি ভবিষ্যৎ তোমরাই রচনা করবে। তোমাদের হাত দিয়েই সোনার বাংলা সোনায় ভরে উঠবে। তোমরা মানবিক মূল্যবোধ নিয়ে নিজেদের যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলবে দেশগড়ার প্রত্যয় নিয়ে। আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তির যুগে তোমরা জ্ঞান-বিজ্ঞানে সাফল্যমণ্ডিত হবে। তোমাদের সবার জন্য দোয়া রইল।

অকৃতকার্য পরীক্ষার্থীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘হতাশ হওয়ার কোনো কারণ নেই। এখন থেকেই মনোযোগ দিয়ে প্রস্তুতি নিতে শুরু করবে। আগামীতে তোমরা আরো ভালো ফল করবে, এটা আমার প্রত্যাশা। অভিভাবকদের এ মুহূর্তে তাদের সহযোগিতা করতে হবে।’ এবার ভালো ফলের জন্য প্রধানমন্ত্রী দেশবাসী, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও পরিচালক এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও শিক্ষা বোর্ডের সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রতি অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানান।

প্রজন্মনিউজ২৪/মামুন

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন