বাংলাকে সমৃদ্ধ করেছে আরবি, ফারসি : প্রফেসর আব্দুল মান্নান

প্রকাশিত: ২৬ এপ্রিল, ২০১৯ ০৬:০৩:৫৪

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর আব্দুল মান্নান বলেছেন, প্রতিটি ভাষাই বিদেশি শব্দ দ্বারা সমৃদ্ধ হয়।বাংলাও তার ব্যতিক্রম নয়। বাংলায় বিদেশি শব্দের ব্যবহার না থাকলে এই ভাষাটিও সংস্কৃত ভাষার মতোই একটি মৃত ভাষায় পরিণত হতো।বিদেশি ভাষা বিশেষকরে আরবি ও ফারসি এই ভাষাকে সমৃদ্ধ করেছে। শুক্রবার সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরসি মজুমদার হলে আঞ্জুমানে ফারসি’র কাউন্সিল অনুষ্ঠানে প্রধান আতিথির ভাষনে তিনি এসব কথা বলেন।

অধ্যাপক মান্নান বলেন, আমার জন্মস্থান চট্টগ্রাম ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের সর্বশেষ অঞ্চল হলেও এটি ছিল বিভিন্ন ভাষাভাষীদের প্রবেশ পথ। যে পথে ব্যবসায়ীদের সাথে বিভিন্ন ভাষা, ধর্ম ও সংস্কৃতির প্রবেশ ঘটেছে।

তিনি বলেন, বঙ্গ ছিল এ অঞ্চলের সবচেয়ে সমৃদ্ধ অঞ্চল। আর এখানে হাজার বছরের প্রাচীন বন্দর থাকায় এ পথ দিয়েই বেশিরভাগ বনিকরা এ অঞ্চলে প্রবেশ করতো। যে কারণে চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় এখনও প্রচুর বিদেশি শব্দের ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান বলেন, ফারসি এমন একটি ভাষা যা বিশ্বকে অনেক আন্তর্জাতিক মানের কবি,সাহিত্যিক উপহার দিয়েছে। এই ভাষাটি উপমহাদেশে দীর্ঘ সময় রাষ্ট্রীয় ভাষা ছিল।এ অঞ্চলে এই ভাষাটির বিস্তারে আঞ্জুমানে ফারসির নব গঠিত কমিটি নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করবে বলে আমার বিশ্বাস।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ঢাকাস্থ ইরান দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ রেজা নাফার। তিনি বলেন, এ অঞ্চলে ফারসি ভাষা ও সংস্কৃতি বিস্তারের লক্ষ্যে গঠিত আঞ্জুমানে ফারসির এই কাউন্সিল অনুষ্ঠানে ফারসি ভাষাভাষীদের দেশ ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরানের রাষ্ট্রদূত হিসাবে উপস্থিত থেকে নিজেকে ইতিহাসের অংশ করতে পারায় গৌরবান্বিত অনুভব করছি। আশাকরছি নতুন কমিটি আঞ্জুমানে ফারসির পথ চলাকে আরো বেগবান করবে। 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আবুল কালাম সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন প্রফেসর ড. কে এম সাইফুল ইসলাম খান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের ইরানি ভিজিটিং প্রফেসর ড. কাযেম কাহদুয়ী ও ঢাকাস্থ ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কালচারাল কাউন্সেলর ড. মাহদী হোসেইনী ফায়েক। আলোচনা পর্ব শেষে নতুন কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটির সভাপতি হিসাবে নির্বাচিত হন বিশিষ্ট লেখক ও সাহিত্যিক ড. ইসা শাহেদী, সহ সভাপতি অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক  শামিম বানু, যুগ্ম সম্পাদক অধ্যাপক আহসানুল হাদি, কুষাধ্যক্ষ এ্যাডভোকেট কামাল হোসেন, প্রচার সম্পাদক শেইখ মোহাম্মদ ওসমান গণি, প্রকাশনা সম্পাদক ঢাকাস্থ ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম, অনুবাদ ও গবেষণা সম্পাদক মেহেদি হাসান অফিস সম্পাদক মোহাম্মদ ইব্রাহিমসহ অনেকে কমিটিতে আসেন।

প্রজন্মনিউজ২৪/নাবিল

 

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ