গ্রেপ্তার করা হলো অ্যাসাঞ্জকে

প্রকাশিত: ১২ এপ্রিল, ২০১৯ ০১:১৫:৫৭ || পরিবর্তিত: ১২ এপ্রিল, ২০১৯ ০১:১৫:৫৭

আলোচিত জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে রীতিমতো চ্যাংদোলা করে ইকুয়েডরের দূতাবাস থেকে বের করেছে লন্ডনের পুলিশ। গোপন দলিল ফাঁস করে আলোচিত হওয়া উইকিলিকসের সহপ্রতিষ্ঠাতা অ্যাসাঞ্জকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

লন্ডনের পুলিশ আজ বৃহস্পতিবার জানিয়েছে, ইকুয়েডরের দূতাবাসে প্রবেশ করে অ্যাসাঞ্জকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। দীর্ঘ সাত বছর ধরে লন্ডনে ইকুয়েডরের দূতাবাসে রাজনৈতিক আশ্রয়ে ছিলেন অ্যাসাঞ্জ।

যুক্তরাজ্যের পুলিশ অ্যাসাঞ্জকে যেভাবে গ্রেপ্তার করেছে তার একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে সংবাদ মাধ্যম বিবিসি। সেখানে দেখা যায়, জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের মুখ ভর্তি সাদা দাড়ি। তাঁকে দাড়িগুলো বেশ বড় বড়। জাপটে ধরে রীতিমতো চ্যাংদোলা করে বের করে পুলিশ কর্মকর্তারা। ওই সময় অ্যাসাঞ্জ কিছু বলছিলেন। তবে কী বলছিলেন তা বোঝা যায়নি। পরে তাঁকে পুলিশের গাড়িতে ওঠানো হয়।

গোয়েন্দা পুলিশ স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড জানিয়েছে, ইকুয়েডরের রাষ্ট্রদূতের আহ্বানে দূতাবাসের ভেতরে ঢুকে তারা জুলিয়ান আসাঞ্জকে গ্রেপ্তার করে।

ইকুয়েডরের প্রেসিডেন্ট লেনিন মোরেনো বলেছেন, আন্তর্জাতিক কনভেনশন বার বার লঙ্ঘন করার জন্য মি. অ্যাসাঞ্জের আশ্রয় প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে।’

তবে উইকিলিকসের দাবি ইকুয়েডর 'আন্তর্জাতিক আইন ভঙ্গ করে' অ্যাসাঞ্জের রাজনৈতিক আশ্রয় খারিজ করে বেআইনি কাজ করেছে।

অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে ২০১০ সালে সুইডেনে দুজন নারীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে মামলা হয়। তবে তা পরবর্তী সময়ে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। লন্ডন পুলিশ বলছে, আদালতে আত্মসমর্পণ করতে ব্যর্থ হওয়ার কারণে অ্যাসাঞ্জকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ ২০০৬ সালে কয়েকজন সঙ্গীকে নিয়ে চালু করেন উইকিলিকস নামের ওয়েবসাইট। ওই সাইটে তিনি একের পর এক গোপন মার্কিন দলিলপত্র প্রকাশ করতে থাকেন। এই কারণে বিব্রত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তাঁর ওপর খুবই ক্ষুব্ধ হয়।

প্রজন্মনিউজ২৪/দেলাওয়ার হোসাইন।

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ