মাননীয় সেতুমন্ত্রী, ফুলের ঘায়ে মূর্ছা যাবেন না!

প্রকাশিত: ১৬ জানুয়ারী, ২০১৯ ০৫:২১:৫১

অসীম সাহা: মাননীয় সেতুমন্ত্রী, আপনি শুধু সেতুমন্ত্রীই নন, সড়ক পরিবহনমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকও বটে। বহুদিন পর আপনার মুখে বিকশিত হাসি দেখে আমি খুবই আপ্লুত হয়েছি। কিন্তু বুঝতে পারিনি আপনি কেন হেসেছেন? সেকি অনেক তারকা মানে অভিনেতা-অভিনেত্রী একসঙ্গে পুনরায় মন্ত্রী হবার জন্যে আপনাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানাতে যাওয়ার জন্যে, নাকি গাছের ফুল এবং ফুলের মতো সুন্দরী নায়িকাদের দেখে? যেটাই হোক, কোনোটাতেই অসুবিধা নেই। বিকশিত হাসির জন্য দুটোই উপযোগী।

 কিন্তু আমি চিন্তিত একটি কারণে। সেটা হলো, হঠাৎ করে এতো অভিনেতা-অভিনেত্রী আপনাকে এমন করে অভ্যর্থনা জানাতে গেলো কেন? সেকি শুধু আপনি মন্ত্রী হয়েছেন বলে, নাকি এর পেছনে অন্য কোনো উদ্দেশ্যও আছে? আপনি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার পরেই দলে আপনি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব। তাই আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ এবং আপনার সক্রিয় ভূমিকা দলে যে কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণের ব্যাপারেও গুরুত্বপূর্ণ।

 সামনেই মহিলা কোটায় সংসদ সদস্য নির্বাচন করার মতো কাজে আপনার মতামত এবং ভূমিকা বুঝেই যে এতো অভিনেতা-অভিনেত্রী বিশেষত অভিনেত্রী আপনার কাছে ফুলেল শুভেচ্ছা জানাতে গেছেন, এ-ব্যাপারে অন্যের সন্দেহ থাকতে পারে, আমার নেই! তা তারা করতেই পারেন। এবারের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রচার-প্রচারণায় অভিনেতা-অভিনেত্রীরা একযোগে পথে নেমেছেন। আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ বিজয়ের ফলে ইতিমধ্যে তাদের একটা অধিকারও জন্মেছে।

 সেই অধিকার নিয়ে তারা সংসদ সদস্য হবার জন্য মনোনয়ন চাইতেই পারেন। এতে দোষের কিছু নেই। তবে আমি বিস্মিত হচ্ছি এই ভেবে যে, এবারের মতো আর কোনো বার মিডিয়াজগতের এতো অভিনেতা-অভিনেত্রীকে ক্ষমতার সিংহাসনে আরোহণের জন্য এমন দৌড়ঝাঁপ করতে দেখিনি। বিশেষত নারী অভিনেত্রীদের তৎপরতা বিশেষভাবে লক্ষণীয়। দলবেঁধে যারা ওবায়দুল কাদেরকে শুভেচ্ছা জানাতে গেছেন, তারা নারীকোটায় সংসদ সদস্য হতে কতোটা উদ্যোগ গ্রহণ করেন এবং কতোটা তারা পান, তার ওপর ভবিষ্যতে নিশ্চিত সিদ্ধান্ত দেয়া সম্ভব হবে।

 তাই এ নিয়ে আর কথা না বাড়ানোই ভালো। তবে মাননীয় মন্ত্রীর কাছে আমার একটি সতর্কবার্তা আছে, তিনি যেন ফুলের ঘায়ে মূর্ছা না যান। এতো ফুল ও এতো সুন্দরী অভিনেত্রীর ফুলের ঘায়ে তিনি যদি মূর্ছা যান, তা হলে বঞ্চিত হবে আওয়ামী লীগের প্রকৃত নারীকর্মীরা, যারা দুর্দিনে রাজপথে আওয়ামী লীগের হয়ে কাজ করেছেন। দুর্দিনের এই পথের সাথিদের বাদ দিয়ে যদি ‘নারী কাওয়া’দের মনোনয়ন দেয়া হয়, তা হলে তারচেয়ে দুর্ভাগ্যজনক আর কিছু হবে না। গত দশ বছরে অনেক কাওয়াকে আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশের সুযোগ করে দিয়েছেন কিছু আওয়ামী লীগ নেতা।

 এমনকি স্বাধীনতাবিরোধী ও বঙ্গবন্ধু এবং আওয়ামী লীগবিরোধী অনেককে ফুলের মালা দিয়ে দলে বরণ করে নেয়া হয়েছে। নেয়া হয়েছে তথাকথিত সেলিব্রেটিদের, যারা বিএনপি ও এরশাদের দালালি করেছেন। তারা এখন আওয়ামী লীগের বাসরঘরে। আর নিবেদিতপ্রাণ অনেক কর্মীই দলের তথাকথিত বড় বড় নেতার দরোজায় দরোজায় মাথা কুটে মরছেন। একইসঙ্গে অর্থ ও পেশিশক্তিতে যারা বলীয়ান, দলের অনেক পরীক্ষিত নেতাকর্মীকে বাদ দিয়ে তাদেরও মনোনয়ন দেয়া হয়েছে।

 এই আত্মঘাতী ভূমিকা যদি এবার নারীকোটাতেও ঘটে, তা হলে তারচেয়ে দুর্ভাগ্যজনক আর কিছু হবে না। আওয়ামী লীগের যারা প্রকৃত নিবেদিনপ্রাণকর্মী কিন্তু যোগ্য, তারা যাতে মনোনয়ন পান এবং সংসদ সদস্য মনোনীত হতে পারেন, তা দেখার দায়িত্ব কিন্তু সাধারণ সম্পাদক হিশেবে ওবায়দুল কাদেরের ওপরও বর্তায়। অতীতে আমরা দেখেছি, সংসদের আইন-কানুন বোঝেন না, সংসদে ঠিকমতো কথাও বলতে পারেন না, কাগজ দেখে পড়তে গিয়েও সব গুবলেট করে ফেলেন, এমন লোকদেরও সংসদ সদস্য করা হয়েছে। সংসদ কোনো ইয়র্কি-ফাজলামোর জায়গা কিংবা কৌতুক প্রদর্শনের ক্ষেত্র নয়।

 এখানে জাতির আশা-আকাক্সক্ষা নির্ণয়ে আইন প্রণয়ন করাই প্রধান কাজ। লেখাপড়া না জেনে, সংসদের নিয়ম-কানুন না বুঝে অর্ধশিক্ষিতদের শুধু সংসদের শোভাবর্ধনের কোনো সুযোগ এখানে নেই। অতীতে আমরা সে-ধরনের কাজ অনেক দেখেছি। কিন্তু এবারের নিরঙ্কুশ বিজয়ের পর আওয়ামী লীগ আরো প্রাজ্ঞতার পরিচয় দিয়ে দেশের উন্নয়নের জন্য সংসদ সদস্যরা যাতে ভূমিকা রাখতে পারেন, সে-ধরনের প্রার্থীদেরই সংসদ সদস্য মনোনীত বা নির্বচিত করবেন, এটাই সকলের প্রত্যাশা।

 মাননীয় সেতুমন্ত্রী, ফুল গ্রহণ করুন, কিন্তু ফুলসুন্দরীদের শুভেচ্ছা কিংবা তদবিরে আপনার অবস্থান থেকে আপনি নড়বেন না, এটা নিশ্চয়ই আপনার মতো ঝানু রাজনীতিককে বলে দিতে হবে না। হেলেনের কারণে ট্রয় নগরীর ধ্বংস হয়েছিলো। এদের কারণে যেন আওয়ামী লীগের দুর্নাম না হয়, সেটা দেখার দায়িত্ব আপনার! এদের মধ্যে যারা অধিকতর যোগ্য তাদের জায়গা করে দিন, কিন্তু শুধু ফুলেল সৌন্দর্যে মুগ্ধ অনুরাগে কুপোকাৎ কিংবা ফুলের ঘায়ে মূর্ছিত হয়ে আপনি যেন ভুল কাউকে সংসদের ঢুকতে না দেন, সে-ব্যাপারে সতর্ক থাকতে আপনাকে অনুরোধ জানাই।

লেখক : কবি ও সংযুক্ত সম্পাদক, দৈনিক আমাদের নতুন সময়

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ