মীরসরাইয়ে

মামলা তুলে নেয়ার জন্য প্রাণ নাশের হুমকি

প্রকাশিত: ০৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০৬:১৮:৩৬

সানোয়ারুল ইসলাম রনি,মীরসরাই সংবাদদাতা : মীরসরাইয়ে মামলা তুলে নেয়ার জন্য প্রাণ নাশের হুমকির প্রতিকার চায় দরিদ্র অসহায় পরিবার। নিরীহ সিএনজি চালক যুবক তার ও তার পরিবারের নিরাপত্তায় যুবক সুমন চন্দ্রের স্ত্রী স্বপ্নরাণী বেদী অশ্রুসিক্ত নয়নে স্বামীর প্রাণ রক্ষায় গৃহায়ন ও গনপূর্তমন্ত্রী  ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এর হস্তক্ষেপ এর আকুল আবেদন জানান।

উপস্থিত গনমাধ্যম কর্মীদের মাধ্যমে ন্যায় সঙ্গত আইনি সহযোগিতা এবং জীবনের নিরাপত্তা প্রার্থনা করেন  মীরসরাই থানার ওসি জাহিদুল কবির এর কাছে।

মীরসরাইয়ে আপন চাচাতো ভাইয়ের জমি কব্জা করতে ভূক্তভোগিকে প্রকাশ্যে জিম্মিকরে জমি বায়নার নামে জোর পূর্বক ৩শ’ টাকার স্টাম্পে স্বাক্ষর নেয়ার অভিযোগ করে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সসম্মেলন করেছেন ভূক্তিভোগি পরিবার। মীরসরাই প্রেসক্লাবে বৃহস্পতিবার ৬ ডিসেম্বর দুপুরে লিখিত অভিযোগ পাঠ করেন ভুক্তভোগি মীরসরাই উপজেলার ১১ নং মঘাদিয়া ইউনিয়নের মধ্যম মঘাদিয়া তিনঘরিয়া টোলার মৃত দ্বিজেন্দ্র কুমার নাথের ছেলে সুমন চন্দ্র নাথ।

এসময় তিনি লিখিত অভিযোগ পাঠকরে বলেন, তার বাড়ীর পাশবর্তি ৩ শতক জমি জোরপূর্বক লিখে নিতে প্রতিপক্ষ মৃত যাত্রামোহন নাথের ছেলে সুনিল চন্দ্র নাথ (৪৮) ও দিলীপ চন্দ্র নাথ (৫৫) গং আবুতোরাব বাজারে একটি দোকানে আটকে রাখে। সেখানে তাকে মারধর করে প্রাণ নাশের হুমকি দিয়ে জোরাপূর্বক ১’শ টাকা করে ৩শ’ টাকার স্টাম্পে বায়না নামা বাবদ স্বাক্ষর নেন।

এঘটনায় ভূক্তভোগি সুমন প্রতিকার চেয়ে বিজ্ঞ আদালতে গত ৮ নভেম্বর মিচ মামলা নং-৯৮৭/১৮ দায়ের করেন। মামলাটির তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করারজন্য আদালত থেকে মীরসরাই থানাতে পাঠানো হয়।

থানার এসআই আমিরুল মুজাহিদ মামলাটির তদন্ত করছেন। পরে মামলার বিষয়টি বিবাদী পক্ষ জানলে তারা সুমনকে মামলা উঠিয়ে নেয়ার জন্য নিজেরা এবং প্রভাবশালীদের দিয়ে বিভিন্ন ভাবে প্রাণ নাশের হুমকি-ধমকি প্রদান করেন বলে সুমন অভিযোগ করেন।

এই ঘটনায় বাদী পক্ষের স্বাক্ষী স্থানীয় পল্লি চিকিৎসক জনৈক রাখল চন্দ্র নাথকেও বিএনপি আখ্যায়িত করে হুমকি প্রদান করেন বলে রাখাল চন্দ্র সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন।

এবিষয়ে বিবাদী পক্ষের সুনিল চন্দ্র নাথের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি তার জমি নিতে চাইনি। তার টাকার প্রয়োজন বলে সে ই আমার কাছে জমি বিক্রয়ের চেষ্টা করে। তাকে কোন প্রকার হুমকি ধমকি দেয়া হয়নি বলেও তিনি জানান।

এই বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মীরসরাই থানার এসআই আমিরুল মুজাহিদ বলেন, বিজ্ঞ আদালতের আদিষ্ট হয়ে মামলার তদন্ত করার জন্য সরেজমিনে যাই। প্রাথমিক তদন্তে আমি জানতে পারি বিবাদী পক্ষ ৩শ টাকার স্টাম্পে সুমন থেকে জোরপূর্বক স্বাক্ষর নিয়েছে। তবে ৫০ হাজার টাকা নিয়েছে কিনা তা এখনো প্রমানিত হয় নি।

বিষয়টি আরো তদন্ত করে উভয় পক্ষের স্বাক্ষী প্রমানসহ প্রয়োজনীয় প্রতিবেদন আদালতে প্রেরন করা হবে বলে জানান।

এই বিষয়ে মীরসরাই থানার ওসি তদন্ত বিপুল দেবনাথ বলেন কেউ কোন প্রকার জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় ভুগলে বা হুমকীর সম্মুখিন হলে আমাদের সহযোগিতা চাইলে বা থানায় ডায়েরী করলেই আমরা প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা নিবো।

প্রজন্মনিউজ২৪/আরমান/রনি 

 

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ