অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখরিত জাবি

প্রকাশিত: ০৫ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১১:১২:৩৫

অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখরিত জাবি
অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখরিত জাবি

হাবিব আহসান, জাবি প্রতিনিধিঃ শীতের হালকা হালকা আমেজ চারিদিকে। এই ঠান্ডা ,এই গরম এমন আমেজ চারিদিকে।  প্রকৃতির যখন এ অবস্থা ঠিক তখন  প্রতিবারের মত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে শীত একটু আগেই এসেছে। আর সেই  সঙ্গে  আসছে হাজার হাজার অতিথি পাখি। অতিথি পাখিদের অন্যতম আশ্রয়স্থল জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের জলাশয়ে। ইতোমধ্যে স্থানগুলো অতিথি পাখিতে ভরে উঠছে। পাখি দেখতে ক্যাম্পাসে ভিড় করতে শুরু করেছেন অনেক পাখিপ্রেমী।

ষড়ঋতুর দেশ বাংলা দেশ। ঋতুর পালাক্রমে বিদায় নিয়েছে শরৎ। পাতাঝরা হেমন্ত এসে কড়া নাড়ছে দরজায়। হেমন্ত যেতে না যেতেই কুয়াশার চাদর পরে নামছে শীত। ক্যাম্পাসের ছোট ও বড় আকারের জলজ পদ্ম সুশোভিত লেকে বিভিন্ন প্রজাতির শত শত অতিথি পাখির আগমন ঘটেছে। কুয়াশাচ্ছন্ন ও শীতের আবহাওয়ায় সবুজে সুশোভিত বিশাল এই এলাকা অতিথি পাখিদের কলরব পাখিপ্রেমীরা মুগ্ধ হয়ে দর্শন করছে এই অতিথিদের।

হাজার হাজার মাইল দূর থেকে শীতের শুরুতে আগমন ঘটে এর অতিথিদের। হিমালয়ের উত্তরের দেশ সুদূর সাইবেরিয়া, চীন, মঙ্গোলিয়া ও নেপালে এ সময়টায় প্রচুর তুষারপাত হয়। এ তুষারপাতে পাখিরা মানিয়ে নিতে না পেরে বাংলাদেশের মতো নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলে চলে আসে। শীত চলে গেলে তারাও চলে যাবে তাদের আপন ঠিকানায়। জাবির এ আঙিনায় যেসব অতিথি পাখি আসে তা হলো- সরালী, পিচার্ড, গার্গেনি, মুরগ্যাধি, মানিকজোড়, কলাই, নাকতা, জলপিপি, ফ্লাইপেচার, কোম্বডাক, পাতারি, চিতাটুপি, লাল গুড়গুটি ইত্যাদি। এছাড়াও প্রায় ১০০ প্রজাতির পাখির দেখা মেলে এই ক্যাম্পাসে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের  শহীদ মিনারের পাশ দিয়ে ডান দিকে গেলেই চোখে পড়বে রাস্তার দুপাশের জলাশয়গুলোতে ফুটে থাকা লাল শাপলা। আর তাতে খেলা করছে দূর-দূরান্ত থেকে আসা অতিথি পাখিরা। তারা কখনো উড়ছে, কখনো ডুব দিচ্ছে, আবার কখনো চুপ মেরে বসে আছে। ষড়ঋতুর এই দেশে শীত আসছে উৎসবের আমেজে। আর সে উৎসবটা অন্য যেকোনো জায়গার চেয়ে জাবি ক্যাম্পাসে একটু বেশিই। এখন অতিথি পাখির কল-কাকলিতে ঘুম ভাঙছে শিক্ষার্থীদের।

ক্যাম্পাসে ছোট-বড় ১০ থেকে ১২টি লেক রয়েছে। এগুলোর মধ্যে চারটি লেকে অতিথি পাখি বেশি বসে। এবারও প্রশাসনিক ভবনের সামনের লেক, জাহানারা ইমাম ও প্রীতিলতা হল সংলগ্ন লেক, বোটানিক্যাল গার্ডেনের পাশে ওয়াইল্ড লাইফ রেসকিউ সেন্টারের লেক এবং সুইমিং পুল সংলগ্ন সবচেয়ে বড় লেকে এরই মধ্যে পাখিরা আসতে শুরু করেছে। এই লেকগুলোকে অভয়াশ্রম হিসেবে ঘোষণা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

অতিথিদেরকে স্বাগত জানাতে নতুন রূপে সেজেছে জাবি। অসংখ্য রক্তিম ফুটন্ত লাল শাপলার সৌন্দর্যে মন মাতানো রূপ ধারণ করেছে জাবি ক্যাম্পাস। দূর থেকে তাকালেই প্রাণটা জুড়িয়ে যায়। যেকারো নজর কাড়বে এ দৃশ্য। শহরের ব্যস্তময় যান্ত্রিক জীবন আর ইট পাথরে ঘেরা ধূলাবালি থেকে হাফ ছেড়ে বাচঁতে  অসংখ্য দর্শনার্থী ভিড় করছে।

প্রজন্মনিউজ২৪/নিরব

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন





ব্রেকিং নিউজ