আমার প্রথম স্ত্রী ও মেয়ে আমার দ্বিতীয় স্ত্রীকে হত্যা করেছে: আবদুল মতিন

প্রকাশিত: ০৯ নভেম্বর, ২০১৮ ১২:০৯:২১

হাফিজুল ইসলাম লস্কর,সিলেট প্রতিনিধি:  বুধবার (৭ নভেম্বর) রাত সাড়ে ৯ টার দিকে সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার তোয়াক্কুল ইউনিয়নের পাইকরাজ গ্রামের আবদুল মতিনের বাড়িতে মুত্যুবরন করেন তার দ্বিতীয় স্ত্রী মনোয়ারা বেগম (২৩)। এটি হত্যা না স্বাভাবিক মুত্যু তা নিয়ে এলাকায় ধ্রুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে।

আর মৃত মনোয়ারা বেগমের হত্যার অভিযোগ উঠেছে তারই সতীন ও সতীন কন্যার বিরুদ্ধে। আবদুল মতিনের দ্বিতীয় স্ত্রী মনোয়ারা বেগম (২৩) কে হত্যার জন্য দায়ী করা হচ্ছে তারই প্রথম স্ত্রী সাহেনা বেগম (৪২) ও তার মেয়ে সুলতানা বেগম (১৯) কে। মোবাইল ফোনে কথা কাটাকাটি নিয়ে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

এ ঘটনায় আবদুল মতিনের প্রথম স্ত্রী সাহেনা বেগম (৪২) ও তার মেয়ে সুলতানা বেগম (১৯) জড়িত বলে জানিয়েছেন আবদুল মতিন। পরে গোয়াইনঘাট থানা পুলিশ সাহেনা ও সুলতানা বেগমকে আটক করেছে।

পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনার দিন রাতে মনোয়ারাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেলে নিয়ে আসা হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মোবাইল ফোনে কথা কাটাকাটির জেরে মনোয়ারাকে গলা টিপে হত্যা করেছেন সাহেনা ও সুলতানা। মনোয়ার স্বামী ও সন্তান এসময় পাশের রুমেই ছিলেন।

খবর পেয়ে আবদুল মতিনের বাড়ি সালুটিকর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইনপেক্টর রজিউল্লাহ সাহেনা ও সুলতানাকে আটক করে ফাঁড়িতে নিয়ে এসেছেন। গোয়াইনঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আবদুল জলিল জানিয়েছেন, এ ঘটনায় এখনও মামলা হয়নি। মামলা দায়ের করা হলে পরবর্তি আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। দু’জনকে আটকের বিষয় তিনি নিশ্চিত করেছেন। মরদেহ এখন হাসপাতাল মর্গে আছে বলে জানান তিনি।

প্রজন্মনিউজ২৪/নিরব

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ