প্রায় এক হাজার ৩৪ কোটি টাকা ব্যয়ে

র‌্যাব পাচ্ছে বিপুল সংখ্যক যানবাহন ও সরঞ্জাম

প্রকাশিত: ০৭ নভেম্বর, ২০১৮ ১১:৫৭:৪০

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন- র‌্যাবের আভিযানিক সক্ষমতা বাড়াতে এক হাজারের বেশি যানবাহন ও সরঞ্জাম কেনা হচ্ছে।

একটি প্রকল্পের আওতায় এই বাহিনীর জন্য ৫০টি এসি মাইক্রোবাস, ১৫টি অ্যাম্বুলেন্স, ৩ থেকে ৪ হাজার সিসির ১২০টি জিপ, ১৬টি রায়ট ভ্যান, বাস পাঁচটি, পেট্রোল পিক আপ ১৯৯টি, পেট্রোল কার ১৫০টি, মিনিবাস ২০টি, স্পেশালাইজড ভেহিক্যাল ৩০টি, ৭৫০ সিসির মোটর সাইকেল ২৫টি, ১৫০ সিসির মোটর সাইকেল ২৯৭টি, স্পিড বোট চারটি, বোট ওয়াটার ক্রাফট দুইটি, ফ্রিজার ভ্যান দুইটি, তিন টনের ট্রাক ১৮টি, ১০ টন ক্ষমতার রিকভারি ভেহিক্যাল দুইটি, একটি ক্রাইম সিন ভেহিক্যাল এবং ২৬টি সাঁজোয়া যান (এপিসি) কেনা হবে।

এছাড়াও ২২৪টি ফুল বডি আর্মার, ব্যালেস্টিক শিল্ড ১১২টি, ভেহিক্যাল ব্যারিয়ার ৬০টি, রমন স্পেকট্রোমিটার দুইটি এবং দুইটি এনআইআর (নিয়ার ইনফ্রারেড) স্পেকট্রোমিটার সংগ্রহ করা হবে।

প্রায় এক হাজার ৩৪ কোটি টাকা ব্যয়ের ‘র‌্যাব ফোর্সেস এর আভিযানিক সক্ষমতা বৃদ্ধি’ শীর্ষক বাস্তবায়ন করবে র‌্যাব সদর দপ্তর। প্রকল্পটির চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য বুধবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় তোলা হতে পারে বলে পরিকল্পনা কমিশনের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে র‌্যাব এর গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান বলেন, “আমাদের যানবাহনের অপ্রতুলতা রয়েছে। প্রকল্পটি অনুমোদন পেলে আমাদের যানবাহনের সক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। “এ প্রকল্পের মাধ্যমে যেসব যানবাহন সংগ্রহ করা হবে তা র‌্যাবের সকল ইউনিটে সরবরাহ করা হবে। তবে প্রকল্পের সকল কার্যক্রম র‌্যাবের সদর দপ্তর পরিচালনা করবে।”

পরিকল্পনা কমিশনের আর্থ-সামাজিক অবকাঠামো বিভাগের একজন কর্মকর্তা জানান, বর্তমানে চাহিদার তুলনায় র‌্যাবের যানবাহন ৪৪ শতাংশ কম রয়েছে। এরমধ্যে সম্প্রতি ১৩ শতাংশ যানবাহন অকেজো ঘোষিত হয়েছে। আর যা সচল আছে তার মধ্যে ৬৪ শতাংশ পুরনো হয়ে গেছে। ওই কর্মকর্তা বলেন, দেশে জঙ্গি ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের হুমকির ধরন প্রতিনিয়ত পরিবর্তন হচ্ছে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় র‌্যাবের স্পেশাল টিম, বোম্ব ও ডগ স্কোয়াড, ফরেনসিক এবং ইনভেস্টিগেশন উইংয়ের আধুনিকায় জরুরি হয়ে পড়েছে।

তিনি আরো জানান, প্রস্তাবিত প্রকল্পের আওতায় যানবাহন এবং সরঞ্জাম কেনা হলে র‌্যাবের ব্যাটালিয়ন পর্যায়ে প্রয়োজনীয় আধুনিক যানবাহন সরবরাহ করা সম্ভব হবে। পাশাপাশি যানবাহনগুলো সংগ্রহ করা হলে র‌্যাবের সদরদপ্তর কেন্দ্রিক নির্ভরতা কমে আসবে।

প্রজন্মনিউজ২৪/নিরব

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন



আরো সংবাদ














ব্রেকিং নিউজ