শালবন থেকে কঙ্কাল উদ্ধার

প্রকাশিত: ১৫ অক্টোবর, ২০১৬ ০৪:২৬:২১

নওগাঁর ধামইরহাট উপজেলার জাতীয় উদ্যান ‘আলতাদিঘী’ শালবন এলাকা থেকে কঙ্কাল উদ্ধার করা হয়েছে। কঙ্কালটি উদ্ধার করে পোস্ট মোর্টেম ও ডিএনএ পরীক্ষার জন্য নওগাঁয় পাঠিয়েছে পুলিশ।

এদিকে, ৭ দিন আগে অপহৃত শিশু সাখাওয়াত হোসেনের (১৪) কঙ্কাল বলে দাবি করেন তার বাবা আনোয়ার হোসেন। সাখাওয়াত হোসেন উপজেলার সদর ইউনিয়নের কোকিল মৌলভীপাড়ার আনোয়ার হোসেনের ছেলে ও হরিতকি ডাঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র।  

ধামইরহাট থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিকদার মশিউর রহমান জানান, শনিবার সকালে উপজেলার আলতাদিঘী শালবন রাস্তার পার্শ্বে স্থানীয় লোকজন মানুষের মাথার খুলি, মেরুদণ্ড, শরীরের কিছু হাড়, পায়ের জুতো ও পরিত্যক্ত পোশাক দেখতে পান। পরে খবর পেয়ে পুলিশ সেগুলো উদ্ধার করে।

মানুষের কঙ্কাল উদ্ধার হওয়ার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে সাখাওয়াতের বাবা গিয়ে পোশাক ও পায়ের জুতো দেখে তার ছেলের কঙ্কাল বলে দাবি করেন।

পারিবারিক ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ৮ অক্টোবর সকালে কোকিল মৌলভীপাড়া গ্রামের আবু মোত্তালেবের (বুলবুল) ছেলে রবিউল ইসলাম অন্তর (১৬) সাখাওয়াতকে ডেকে নিয়ে যায়।

সাখাওয়াতকে অনেক খোঁজাখুঁজির পর পাওয়া না গেলে তার বাবা আনোয়ার হোসেন বাদী হয়ে ধামইরহাট থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলায় বুলবুল, অন্তরসহ ৪ জনকে আসামি করা হয়। মামলার পর অন্তর ও বুলবুলকে গ্রেফতার করলেও শিশুটিকে উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ।

ওসি সিকদার মশিউর রহমান আরো জানান, কঙ্কালটি যে ওই অপহৃত শিশুর তা নিশ্চিত হওয়া যাবে ডিএনএ পরীক্ষার পর। এ ছাড়াও কিভাবে তাকে হত্যা করা হয়েছে তার কারণ জানা সম্ভব হবে। বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে খতিয়ে দেখে হচ্ছে।

পাঠকের মন্তব্য (০)

লগইন করুন